২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

টঙ্গীতে অপহরণের দু’দিন পর দুই স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার, আটক ৩

নিজস্ব সংবাদদাতা, টঙ্গী, ৩০ জুলাই ॥ টঙ্গীতে অপহরণের দু’দিন পর বৃহস্পতিবার সকাল এগারোটায় অষ্টম শ্রেণীর দুই ছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়েছে। আটক করা হয়েছে তিনজনকে। এরা হলো মেহেদী হাসান (২১), জুবায়ের হোসেন (২০) ও মর্জিনা বেগম (৫০)। অপহৃত দুই ছাত্রী হলো উম্মে হাবিবা কলি (১৩) ও জেসমিন আক্তার দিপা (১৪)। তারা টঙ্গীর সাতাইশ উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী।

পুলিশ জানায়, গত ২৮ জুলাই কোচিংয়ে যাওয়ার পথে স্কুলের সামনে থেকে মেহেদী হাসান ও জুবায়েরসহ একদল অপহরণকারী কলি ও দিপাকে অপহরণ করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। পরে জুবায়েরের মুঠোফোন করে টঙ্গীর ভাদাম এলাকা থেকে বৃহস্পতিবার তাদের উদ্ধার করা হয়। এ সময় অপহরণকারী মেহেদী হাসান ও জুবায়েরকে আটক করে পুলিশ। মেহেদী হাসানকে ছাড়িয়ে নিতে তার মা মর্জিনা বেগম থানায় গেলে পুলিশ তাকেও আটক করে। মর্জিনা বেগম সাংবাদিকদের জানান, এটা প্রেমঘটিত ব্যাপার, অপহরণের কোন ঘটনা নয়।

শিশুগুমের অভিযোগে আটক ১ ॥ টঙ্গীতে পেয়ারা চুরির অপরাধে ব্র্যাকের এক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে শিশু গুমের অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরে প্রকৌশলীর শ্যালককে আটক করেছে পুলিশ।

থানায় অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, টঙ্গীর পাগাড় সোসাইটি এলাকায় ব্র্যাকের ইঞ্জিনিয়ার জয়নাল আবেদিনের গাছের পেয়ারা চুরির অপরাধে তিনি বুধবার রাজু (৭) নামের এক মাদ্রাসা ছাত্রকে আটক করে বেধড়ক মারপিট করে ঘরে আটকে রাখেন। শিশু রাজুর পরিবারের পক্ষ থেকে এই অভিযোগের পর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে রাজুকে না পেয়ে ফিরে যায়। অবশেষে রাজুকে কোথাও খুঁজে না পেয়ে তার বাবা আনিসুর রহমান বৃহস্পতিবার টঙ্গী মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করলে এএসআই অজিত কুমার সাহা ঘটনাস্থলে যান। সেখানে শিশু রাজুকে না পেয়ে বাড়ির মালিক ইঞ্জিনিয়ার জয়নাল আবেদিনের শ্যালক আক্তারকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। ইঞ্জিনিয়ার জয়নাল আবেদিন পলাতক রয়েছেন। এএসআই অজিত সাহা বলেন, শিশু রাজুর সন্ধান দিতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আক্তারকে আটক করা হয়েছে। টঙ্গী মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ আলী বলেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।