২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রাজধানীর উত্তরায় ফের এক তরুণী গণধর্ষণের শিকার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ রাজধানী উত্তরায় আবারও এক বিক্রয় প্রতিনিধি তরুণী গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন। তিনি কর্মস্থল থেকে বাসায় ফেরার পথে তারই সহকর্মী ও বন্ধুরা মিলে রাতভর ধর্ষণ করে বলে ধর্ষিতার পরিবার জানায়। পরে ধর্ষিতাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসিতে) ভর্তি করা হয়। আজ শনিবার তার ফরেনসিক পরীক্ষা করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়।

ধর্ষিত তরুণী অভিযোগ করেন, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে কাজ শেষে বাসায় ফেরার পথে সহকর্মী আরিফ তার সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেন। একপর্যায়ে আরিফ পাশের একটি নির্মাণাধীন ভবনের কাছে নিয়ে যায়। সেখানে আরিফ ও তার বন্ধুরা অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে পালাক্রমে ধর্ষন করে। ধর্ষিতার জামাই বিল্লাল হোসেন জানান, গত বছর সে এসএসসি পাস করে। সংসারে অভাব-অনটনের কারণে আড়াই মাস আগে উত্তরার রাজলহ্মীতে স্বপ্ন সুপার শপে সেলসম্যান হিসেবে কাজ শুরু করেণ। প্রতিদিনই সে হেঁটেই কর্মস্থলে আসা-যাওয়া করত। পরে রাত ১১টার দিকে শ্যালিকা বাসায় গিয়ে তার বোনকে জানায়। পরে তাকে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে রাত ৩টার দিকে তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি করা হয়। তিনি জানান, শ্যালিকা একটু সুস্থ হলেই এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ করা হবে। জানা গেছে, ধর্ষিতার গ্রামের বাড়ি বরিশাল জেলার বাবুগঞ্জে। উত্তরা ১২ নম্বর সেক্টরে বড় বোনের সঙ্গে থাকতেন ওই তরুণী। ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই সেন্টু চন্দ্র দাস জানান, ওই তরুণীকে হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে। উত্তরা পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলী হোসেন খান জানান, ইতোমধ্যে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ধর্ষিতার সঙ্গে থানার পুলিশের টিম কথা বলেছে। ধর্ষক আরিফসহ তার সহযোগীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। যে কোন মুহূর্তে তাদের গ্রেফতার করে আইনের সম্মুখীন করা হবে।

এর আগে ২১ মে রাজধানীর কুড়িলে কর্মজীবী এক গারো তরুণীকে জোর করে মাইক্রোবাসে তুলে পালাক্রমে ধর্ষণ করা হয়। দেড় ঘণ্টা ধরে চলন্ত গাড়িতে তাকে এভাবে পালাক্রমে ধর্ষণ করে দুর্বৃত্তরা। এই ধর্ষণের ঘটনায় দেশ জুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। পরে পুলিশ এক বায়িং হাউসের দুই গাড়ি চালককে গ্রেফতার করে। তার এক মাস আগে বর্ষবরণের উৎসবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় নারীদের যৌন নিপীড়নের ঘটনা ঘটে। এ সময় বিভিন্ন সংগঠন এই যৌন নিপীড়নের প্রতিবাদে আন্দোলনে নামে। পরে নিপীড়কদের ধরিয়ে দিতে পুলিশ পুরস্কারের ঘোষণা দিলেও ওই ঘটনায় এখন পর্যন্ত কেউ গ্রেফতার হয়নি।