২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

হাত পা মুখ বেঁধে গৃহপরিচারিকাকে গণধর্ষণ

  • স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি

নিজস্ব সংবাদদাতা, গফরগাঁও, ময়মনসিংহ, ৩১ জুলাই ॥ গফরগাঁওয়ে বাড়ির ভিতর এক কিশোরী (১৪) গৃহপরিচারিকাকে গণধর্ষণ করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার দুপুরে উপজেলার বারবাড়িয়া ইউনিয়নের পাকাটি গ্রামে আব্দুর রাজ্জাক মাস্টারের বাড়িতে। খবর পেয়ে পুলিশ ঐ কিশোরীকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার রাজ্জাক মাস্টারের বাড়িতে প্রায় ৮ বছর ধরে পার্শ্ববর্তী বাড়া গ্রামের দরিদ্র সিদ্দিক হোসেনের মেয়ে গৃহপরিচারিকার কাজ করছে। শুক্রবার দুপুর ১টার দিকে গৃহকর্তা রাজ্জাক মাস্টার মসজিদে জুমার নামাজ পড়তে চলে যান এবং একই সময় গৃহকর্ত্রী আনোয়ারা বেগম ডাক্তারের কাছে গফরগাঁও বাজারে যান। এ সময় বাড়িতে ঐ কিশোরী ছাড়া অন্য কেউ ছিল না। এই সুযোগে পাকাটি গ্রামের রঞ্জিতের ছেলে দিলীপ (১৮), চারিপাড়া গ্রামের দুলালের ছেলে হৃদয় (১৯) ও মাইজহাটি গ্রামের হাফিজ উদ্দিনের ছেলে আসাদুল ওরফে আশুসহ (১৮) ৩/৪ মাদকাসক্ত বখাটে ঐ কিশোরীর হাত, পা ও মুখ বেঁধে ধর্ষণ করে চলে যায়। রাজ্জাক মাস্টার নামাজ শেষে বাড়ি ফিরে কিশোরীকে অজ্ঞান ও হাত-পা-মুখ বাঁধা অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে গফরগাঁও থানায় খবর দেন। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

আব্দুর রাজ্জাক মাস্টারের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম বলেন, মেয়েটি আমাদের বাড়িতে প্রায় ৮ বছর ধরে কাজ করছে। শুক্রবার দুপুরে মেয়েটিকে বাড়িতে একা পেয়ে পাষ-রা তার ওপর পশুর মতো অত্যাচার করেছে।