১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দিনাজপুরে ঝুঁকিপূর্ণ সরকারী ভবনে কার্যক্রম

স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর ॥ দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে সরকারী কার্যক্রম। ছাদ ও দেয়াল ধসে যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে। এর কারণে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

বীরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের পুরনো ভবনটি ২০ বছর আগে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়। যে কোন মুহূর্তে দেয়াল ও ছাদের ফেটে যাওয়া অংশ ধসে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে সতর্ক করা হয়েছে গণপূর্ত বিভাগ থেকে। ১৯৬৭-১৯৬৮ অর্থবছরে গ্রেটবিম ও কলাম ছাড়াই ইটের গাঁথুনি দিয়ে হলরুমসহ ১৬ কক্ষবিশিষ্ট দ্বিতল ভবন নির্মাণ করা হয়। বর্তমানে ভবনটির অবস্থা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ।

ভবনের দেয়াল ও মেঝেতে বড় ধরনের ফাটলসহ ছাদ ধসে পড়ার উপক্রম হয়েছে। ফেটে যাওয়া অংশ দিয়ে কক্ষের ভিতর অবাধে ঢুকছে বৃষ্টির পানি। যার কারণে দেয়াল ও মেঝে স্যাঁতসেতে হয়ে পড়েছে। অফিসের সংরক্ষিত মূল্যবার প্রয়োজনীয় দাফতরিক কাগজপত্র নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। উপজেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা শরিফুল আলম জানান, ভবনটির বিভিন্ন স্থানে ফাটল দেখা দিয়েছে। বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসন ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানানোর পরও তারা কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি।

বীরগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম জানান, নতুন ভবন নির্মাণের প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দের জন্য উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেয়া হয়েছে। ভবনটি দ্রুত সংস্কারের ব্যবস্থা নেয়া দরকার। ভবনটির ধারণ ক্ষমতা ক্রমশ কমে যাচ্ছে। বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেতে জরাজীর্ণ ভবনটি ভেঙ্গে নতুন পরিকল্পনা মোতাবেক উন্নতমানের ভবন নির্মাণ তৈরি করা দরকার। অল্প সময়ের মধ্যেই সংশ্লিষ্ট বিভাগ নতুন ভবন নির্মাণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাসেল মনজুর জানান, ভবনটির বিভিন্ন স্থানে ফাটল দেখা দিয়েছে। এর আগে কয়েকবার মেরামত হয়েছে। রংপুর বিভাগীয় কমিশনার ও দিনাজপুর জেলা প্রশাসককে বিষয়টি লিখিতভাবে জানানো হয়েছে। ইতোমধ্যে কয়েকটি শাখার কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের স্থানান্তরিত করা হয়েছে। অবশিষ্ট কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সরিয়ে নেয়ার প্রক্রিয়া চলছে। এছাড়া উপজেলা কৃষি অফিস ও হিসাব রক্ষণ অফিসটিও সেই ভবনটি থেকে সরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।