২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সিরিজ জয়ে চোখ আফ্রিদির

  • শ্রীলঙ্কা-পাকিস্তান দ্বিতীয় টি২ আজ

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ শ্রীলঙ্কা সফরে উড়ছে পাকিস্তান। প্রথমে মিসবাহ-উল হকের নেতৃত্বে ২-১-এ টেস্ট, এরপর আজহার আলি বাহিনীর ৩-২-এ ওয়ানডে সিরিজ জয়ে নিশ্চিত হয় বহুল আলোচিত চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির টিকেট। পাকিরা এবার টি২০তেও সাফল্যের সেই ধারা বজায় রাখার পথে। বৃহস্পতিবার প্রথম টি২০তে স্বাগতিকদের ২৯ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়ে দুই ম্যাচের সিরিজে ১-০তে এগিয়ে শহীদ আফ্রিদির দল। আজ দ্বিতীয় ও শেষ ম্যাচ জিতে সিরিজ নিশ্চিত করতে দারুণ আত্মবিশ্বাসী তিনি। সতীর্থদের প্রশংসায় ভাসানোর পাশাপাশি লক্ষ্যের কথা পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন অতিস্বল্পদৈর্ঘের পাকিস্তান অধিনায়ক।

‘এটা চমতকার দলীয় নৈপূণ্যের ফল। ব্যাটিং-পার্টনারশিপ, বোলিং-ফিল্ডিং প্রতিটি বিভাগেই আমরা সেরাদের মতো খেলেছি। শেহজাদের পারফর্মেন্স আউটস্ট্যান্ডিং, যথারীতি সিনিয়রিটির স্বাক্ষর রাখছে মালিক, আকমল ইজ এ গ্রেট। দ্বিতীয় ম্যাচ জিতে টি২০ সিরিজ জয়ের মধ্য দিয়ে সফর শেষ করতে চাই’Ñ কথাগুলো বলার সময় চোখে-মুখে আত্মবিশ্বাস ঠিকরে পড়ছিল আফ্রিদির। মনেই হয়নি বাংলাদেশ সফরে হারতে হয়েছিল। এরপর ঘরের মাটিতে জিম্বাবুইয়ের বিপক্ষে জয় অবশ্য তাদের আত্মবিশ্বাসে রসদ যোগায়। কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে এক কথায় প্রতিপক্ষকে উড়িয়ে দিয়ে শুরু করে আফ্রিদি বাহিনী। টস জয় থেকে সবকিছুই ছিল অতিথিদের অনুকূলে। দলীয় ১০ রানে মুক্তার আহমেদের আর ৫২ রানে মোহাম্মদ হাফিজের উইকেট হারালেও শেহজাদ-মালিকরা তা বুঝতে দেননি। লঙ্কান বোলারদের শাসন করে দলকে নিয়ে গেছেন ১৭৫ রানের চ্যালেঞ্জিং অবস্থানে। আহমেদ শেহজাদ ৩৮ বলে ৪৬, শোয়েব মালিক ৩১ বলে অপরাজিত ৪৬ ও উমর আকমল মাত্র ২৪ বলে ৩ চার ও সমানসংখ্যক ছক্কায় খেলেন ৪৬ রানের ‘ড্যাশিং’ ইনিংস। তবে এদের কেউ নন, প্রতিপক্ষকে ১৪৬ রানে বেঁধে রাখতে দুরন্ত বোলিংয়ের ‘নায়ক’ সোহেল তানভির। ২৯ রানের বিনিময়ে ৩ উইকেট নেন এই পেসার। আনোয়ার আলির শিকার ২। পাক বোলিংয়ের সামনে দাঁড়াতেই পারেননি লঙ্কান ব্যাটসম্যানরা। মিলিন্দা শ্রীবর্ধনে ৩৫, চামারা কাপুগেদারা অপরাজিত ৩১ ও দানাঞ্জিয়া ডি সিলভা ৩১ ছাড়া স্বাগতিকদের হয়ে আর কেউই সুবিধা করতে পারেননি। ব্যাটিং-বোলিং কোন বিভাগেই সন্তুষ্ট নন লাসিথ মালিঙ্গা। শ্রীলঙ্কার টি২০ অধিনায়ক বলেন, ‘প্রথমে আমাদের বোলিং ভাল হয়নি। আমি নিজেও বল হাতে প্রত্যাশা পূরণ করতে পারিনি। এরপর ব্যাটিংয়ে ৩ ওভারের মধ্যে ৩ উইকেট হারানোর পর ব্যাকফুটে চলে যাওয়া। অথচ দানাঞ্জিয়া-কাপুগেদারা দেখিয়েছে, এখানে রান পাওয়া মোটেও অসম্ভব নয়। ম্যাচের ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে চাই।’

আনেক আগেই টেস্ট ছাড়া শহীদ আফ্রিদি গত বিশ্বকাপ খেলে বিদায় নেন ওয়ানডে থেকে। বর্তমানে অধিনায়ক হয়ে আছেন কেবল অতিস্বল্পদৈর্ঘের টি২০তে। ভারতে অনুষ্ঠেয় ২০১৬ টি২০ বিশ্বকাপ খেলে সকল ধরনের ক্রিকেট থেকে অবসর নেবেন বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন। সে লক্ষ্যে দল তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন তিনি। বোর্ড ও কোচিং স্টাফকে নিয়মিত পরামর্শ দিচ্ছেন। আফ্রিদি বলেছেন, তিনি এমন একটি দল গড়ে তুলতে চান, যেখানে প্রতিটি পজিশনে একাধিক বিশ্বমানের পারফর্মার ‘রিজার্ভ’ হিসেবে থাকবে!