২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাধভাঙ্গা উৎসবে মুছে গেল ছিটমহল

বাধভাঙ্গা উৎসবে মুছে গেল ছিটমহল

নিজস্ব সংবাদদাতা, লালমনিরহাট॥ ভারত ও বাংলাদেশের স্থলসীমান্ত চুক্তি অনুযায়ী, শুক্রবার রাত ১২টা ১ মিনিটে দুই দেশের ১৬২টি ছিটমহলের মানুষের জাতীয়তা বদল হলো। এই দিনটির অপেক্ষা সেই ১৯৪৯ সাল থেকে, অবসান ঘটলো ৬৮ বছরের অপেক্ষার।

বাংলাদেশের মূল ভূখন্ডের ভেতরে থাকা ভারতের ১১১টি ছিটমহল মধ্যরাত থেকে বাংলাদেশের হলো। এগুলোর আয়তন ১৭১৬০.৬৩ একর। অন্যদিকে ভারতের মূল ভূখন্ডের ভেতরে থাকা বাংলাদেশের ৫১টি ছিটমহল হলো ভারতের। এগুলোর আয়তন ৭১১০.০২ একর।

দীর্ঘ ৬৮ বছর ধরে অন্য দেশের মূল ভূখন্ডের ভেতরে ছিটমহলে অবরুদ্ধ জীবন কাটানো প্রায় ৫২ হাজার বাসিন্দা মুক্তি পেলো। এ মুক্তি যেমন বাংলাদেশের ভেতর থেকে বিলুপ্ত হতে যাওয়া ভারতীয় ছিটমহলে, ঠিক তেমনি ভারতের ভেতরে বাংলাদেশের ছিটমহলেও। দুই দেশেরই ছিটমহলগুলোর বাসিন্দারা প্রত্যাশা অনুযায়ী নাগরিকত্ব এবং যে যেখানে বসবাস করছে, সেখানেই থাকার সুযোগ পাচ্ছে। শনিবার থেকে ভারতের ছিটমহলে বাংলাদেশের পতাকা ও বাংলাদেশের ছিটমহলে ভারতের পতাকা উড়বে। শুক্রবার মধ্যরাতেই দুই দেশের মধ্যে অপদখলীয় ভূমি বিনিময়ও কার্যকর হলো।

লালমনিরহাটের ভিতবকুটি ছিটমহলে শুক্রবার রাত ১২টা ১মিনিট বেজে উঠার সঙ্গে সঙ্গে বিজয়ের আনন্দে মেতে উঠে হাজার হাজার ছিটবাসী। শুরু হয় আতশবাজি, ৬৮টি মোমবাতি প্রজ্বলনের মধ্যে দিয়ে ছিটবাসী পুরন করলো স্বরনীয় এ দিনটি। জেলার ৫৯টি ছিটমহলের বাসিন্দারা আতশবাজী ফুটিয়ে আর আলো জ্বালিয়ে আনন্দ প্রকাশ করে তাদের অভিব্যক্তি।

নির্বাচিত সংবাদ
এই মাত্রা পাওয়া