২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মহাসড়কে অটোরিক্সা চলাচল বন্ধের প্রতিবাদে অবরোধ-মানববন্ধন

  • টাঙ্গাইলে ৪৮ ঘণ্টার শ্রমিক ধর্মঘট

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ সরকারী নিষেধাজ্ঞায় শনিবার থেকে সারাদেশের মহাসড়কে থ্রি-হুইলাম, অটোরিক্সা, টেম্পো চলাচল বন্ধ করে দেয়ায় সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত এসব যানবাহনের মালিক-শ্রমিকরা মহাসড়ক অবরোধ, মানববন্ধন, বিক্ষোভ করে। এতে যাত্রীসাধারণ পড়ে চরম দুর্ভোগে। স্টাফ রিপোর্টার ও নিজস্ব সংবাদদাতাদের পাঠানো খবর :

বগুড়া ॥ মহাসড়কে সিএনজি চালিত অটোরিকশা বন্ধ হওয়ায় বগুড়ার কয়েকটি রুটে জনদুর্ভোগ বেড়েছে। বিশেষ করে বগুড়া শহরের বাইরে মহাসড়কের ধারে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পৌঁছাতে রোগীদের ভোগান্তির কবলে পড়তে হচ্ছে। শহরতলির সিলিমপুর এলাকায় অবস্থিত মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে যাওয়ার জন্য শহরের স্টেশন রোড থেকে মহাসড়ক ধরে যেতে হয়। প্রতিনিয়ত মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রোগী ও স্বজনদের যেতে হয়। এ ছাড়াও জরুরী রোগী বহনে সিএনজি চালিত অটোরিকশা ব্যবহার হয় বেশি। এ্যাম্বুলেন্স ভাড়া বহনের ক্ষমতা সাধারণের থাকে না। তা ছাড়া সব সময় এ্যাস্বুলেন্স মেলেও না। গ্রামের রোগীদের দ্রুত বহন করতে ব্যবহার হয় সিএনজি চালিত অটোরিকশা। এদিকে বগুড়া শহর থেকে ১১ কিলোমিটার উত্তরে প্রাচীন নগরী মহাস্থানগড় একেবারে জাতীয় মহাসড়কের ধারে। একই সড়ক ধরে যেতে হয় শিবগঞ্জ উপজেলা সদরে। বিকল্প কোন পথ নেই। শহর থেকে প্রায় ২১ কিলোমিটার দক্ষিণে শেরপুর উপজেলা সদর মহাসড়কের ধারে। উত্তর-পশ্চিমে নন্দীগ্রাম উপজেলা বগুড়া-নাটোর মহাসড়কের ধারে। এভাবে দেখা যায় মহাসড়ক ধরে যাওয়ার গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় সিএনজি চালিত অটোরিকশা চলাচল বন্ধ হওয়ায় সাধারণ যাত্রীদের ভোগান্তি বেড়েছে। সিএনজি চালিত অটোরিকশা মালিক চালক সমিতির নেতৃবৃন্দের কথা- তারাও চায় মহাসড়কে কেন কোন সড়কেই যেন দুর্ঘটনা না হয়। সিএনজি চালিত অটোরিকশা চলাচলে বিকল্প ব্যবস্থা না করে দুর্ঘটনা রোধে মহাসড়কে এইসব ছোট ও হাল্কা যান বন্ধ করায় সাধারণ যাত্রীদের ভোগান্তি বাড়বে। একই সঙ্গে মহাসড়কে এইসব যান চলাচল বন্ধ হলে রুট ও যাত্রী কমে গিয়ে এই ছোট পরিবহনের সঙ্গে যুক্ত অন্তত ১০ হাজার পরিবারে দুর্ভোগ নেমে আসবে। এই বিষয়ে নাম প্রকাশ না করার অনুরোধ জানিয়ে এক ব্যক্তি বলেন, বঙ্গবন্ধু সেতু চালু হওয়ার পর জাতীয় মহাসড়কে পাবনার দূরত্ব কমাতে চলনবিলের বুক চিড়ে হাটিকুমরুল বনপাড়া মহাসড়ক নির্মাণের সময় সুদূরপ্রসারি ভাবনায় ডিজাইনে সড়কের ধারে একটু নিচে হাল্কা ও ছোট যানবাহন চলাচলের ব্যবস্থা করা হয়। ওই মহাসড়কে দুর্ঘটনার হার একেবারেই কম। বর্তমানের মহাসড়কগুলোতে এভাবে কোন একটি ধারে চিহ্নিত করে একটি ছোট লেন বানিয়ে ছোট যানবাহন চলাচলের ব্যবস্থা করা যেতে পারে। বর্তমানে দেশজুড়ে সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। জনসংখ্যা বেড়ে যাওয়ার সঙ্গে যানবাহনের সংখ্যা বেড়ে গেছে। রোগী বহনসহ জরুরী নানা প্রয়োজনে দ্রুত যাতায়তের জন্য সাধারণের বাহন হিসাবে বাসের পাশাপশি সিএনজি চালিত অটোরিকশা ব্যবহার হচ্ছে বেশি।

চট্টগ্রাম ॥ মহাসড়কে অটোরিক্সা চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে শনিবার ঢাকা-চট্টগ্রাম ও চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে বিক্ষোভ করেছে অটোরিক্সা চালক ও মালিকদের বিভিন্ন সংগঠন। এ উপলক্ষে আয়োজিত সমাবেশ থেকে আগামী ১৩ আগস্ট চট্টগ্রাম মহানগরী ও জেলার সর্বত্র সিএনজি অটোরিক্সা ধর্মঘট কর্মসূচী ঘোষণা করা হয়েছে।

শনিবার সকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে অনুষ্ঠিত এ সমাবেশে বলা হয়, মহাসড়কে অটোরিক্সা চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা প্রদান করে সরকার শ্রমজীবী মানুষের রুটি রুজির উপর আঘাত করেছে। এ সিদ্ধান্তের ফলে সারাদেশে প্রায় দশ লাখ মানুষ বেকার হয়ে যাবে, যা দেশের অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

সিদ্ধিরগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ ॥ ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে সিএনজি চালিত অটোরিকশা চলাচল বন্ধের সরকারী সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চারটি স্থানে সড়ক অবরোধ করেছে সিএনজি ও অটো রিকশার মালিক ও চালকরা। এ ছাড়াও তারা বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধনও পালন করেছে। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনলে যান চলাচল শুরু হয়। নিষেধাজ্ঞা জারির পর শনিবার সকাল থেকেই মহাসড়কে চলাচলকারী সিএনজি ও অটোরিকশা ধরপাকড় শুরু করে পুলিশ। ফলে শনিবার বেলা ১১টায় ও দুপুর ১টায় তারা অবরোধ সৃষ্টি করে। এর আগে সকালে নারায়ণগঞ্জ শহরে শহরের চাষাঢ়ায় বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে অটো রিকশা চালক ও মালিকরা।

মুন্সীগঞ্জ ॥ ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ব্যারিকেড তুলে নেয়ার পর দুপুর ১২টা থেকে যানচলাচল শুরু হয়। এর আগে বেলা ১১টার দিকে মহাসড়কটির মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার বাউসিয়া পয়েন্টে সিএনজি, অটোরিক্সা মালিক-শ্রমিকরা এ অবরোধ সৃষ্টি করে। এতে মহাসড়কে ভয়াবহ যানজট সৃষ্টি হয়।

টাঙ্গাইল ॥ সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রীর নির্দেশের পর শনিবার সকাল থেকে সারাদেশের মতো বঙ্গবন্ধু সেতু-টাঙ্গাইল-ঢাকা মহাসড়কে সিএনজিচালিত অটোরিক্সা ও অটোটেম্পো চলাচল বন্ধ হয়েছে। এদিকে ছোট যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা ও সিএনজিচালিত অটোরিক্সা আটকের প্রতিবাদে জেলা অটোরিক্সা, অটোটেম্পো ও সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়ন রবিবার সকাল ৬টা থেকে ৪৮ ঘণ্টার ধর্মঘট আহ্বান করেছে।

জানা যায়, সরকার নিষেধাজ্ঞা জারির পর থেকে স্থানীয় প্রশাসন ও হাইওয়ে পুলিশ যৌথভাবে বঙ্গবন্ধু সেতু-ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে সিএনজিচালিত অটোরিক্সা ও অটোটেম্পো চলাচল বন্ধে কার্যকরী প্রদক্ষেপ গ্রহণ করে। সেই সঙ্গে মহাসড়কের এলেঙ্গা থেকে গোড়াই পর্যন্ত হাইওয়ে পুলিশের বিশেষ মোবাইল টিম কাজ করছে। শুধুমাত্র স্টেশনে গ্যাস নেয়া ছাড়া কোন অটোরিক্সা ও অটোটেম্পোকে হাইওয়ে সড়ক ব্যবহার করতে দেয়া হচ্ছে না।

নরসিংদী ॥ সরকারী সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে অবাধে চলছে নসিমন, করিমন, রিক্সা, অটোরিক্সা ও ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক। এসব যানবাহন চলাচল বন্ধে নরসিংদী জেলা প্রশাসনসহ স্থানীয় প্রশাসনের কোন উদ্যোগ নেই। শনিবার দুপুরে সরেজমিন এ প্রতিবেদক ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের শাহেপ্রতাপ ও পাঁচদোনা এলাকায় গেলে এলাকাবাসী জানায়, সরকারী সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে এ মহাসড়কে রিক্সা ও অটোরিক্সা চললেও রহস্যজনক কারণে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে তা বন্ধ করা হচ্ছে না।