২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পুঁজিবাজারে আবারও ৮শ’ কোটি টাকার লেনদেন

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ চলতি সপ্তাহের প্র্রথম কার্যদিবসে দেশের উভয় পুঁজিবাজারে সূচকের ইতিবাচক প্র্রবণতায় লেনদেন শেষ হয়েছে। যদিও দিনটিতে প্র্রধান বাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের তালিকাভুক্ত বেশিরভাগ কোম্পানির দর কমেছে। সকালে লেনদেন শুরুর পর থেকেই সূচকের ওঠানামা দিয়ে লেনদেন চলে। কিন্তু বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণ আগের তুলনায় বেশি ছিল। অপেক্ষাকৃত বড় মূলধনী কোম্পানির চাহিদা বাড়ার কারণে টানা দ্বিতীয় দিনের মতো ডিএসইতে সূচক বেড়েছে। সাধারণ বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে প্র্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণ বাড়ায় উভয় বাজারে বেড়েছে লেনদেন। আর ডিএসইতে আবারও লেনদেন ছাড়ালো ৮০০ কোটি টাকা। যার পরিমাণ আগের দিনের লেনদেনের চেয়ে প্র্রায় ২০০ কোটি টাকা বেশি।

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বিভিন্ন কোম্পানির অর্ধবার্ষিক ও প্র্রান্তিকের আর্থিক প্র্রতিবেদন প্র্রকাশ শুরু হয়েছে। প্র্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুনাফা বেড়েছে বেশিরভাগ কোম্পানির। আর এসব কোম্পানিতে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ বেড়েছে। এর ফলে মুনাফায় থাকা কোম্পানিগুলোর শেয়ারের প্রতি ক্রেতাদের চাহিদা বেড়েছে। পাশা পাশি আসন্ন অর্ধবার্ষিকে অন্যান্য কোম্পানির মুনাফা বা প্রতিবেদন ভাল আসবে বলে প্রত্যাশা করছেন সবাই। আর এ কারণে রবিবারের বাজারে সূচক ও লেনদেন বেড়েছে বলে মনে করছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা।

সকালে ইতিবাচক প্রবণতা দিয়ে শুরুর পরে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সার্বিক সূচক আগের দিনের চেয়ে ৯ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৪ হাজার ৮০২ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ২ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১ হাজার ১৯২ পয়েন্টে এবং ডিএসই-৩০ সূচক ১ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১ হাজার ৮৮৫ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ৩১৯টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৪১টির, কমেছে ১৪৯টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ২৯টি কোম্পানির শেয়ার দর। যা টাকায় লেনদেন হয়েছে ৮০৬ কোটি ৫৩ লাখ ২৩ হাজার টাকা।

ডিএসইর লেনদেনের সেরা কোম্পানিগুলো হলো : লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট, খুলনা পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, বেক্সিমকো ফার্মা, ডেসকো, ফার কেমিক্যাল, শাশা ডেনিমস, গ্রামীণফোন, বিএসআরএম লিমিটেড, বিএসআরএম স্টিল ও অলিম্পিক এক্সেসরিজ।

দর বৃদ্ধির সেরা কোম্পানিগুলো হলো : ১ম আইসিবি, বিডি ওয়েল্ডিং, ইসলামী ব্যাংক, ন্যাশনাল পলিমার, জেমিনি সী ফুড, বিএসআরএম লিমিটেড, আইসিবি ১ম এনআরবি, নাভানা সিএনজি ও স্টাইল ক্রাফট।

দর হারানোর সেরা কোম্পানিগুলো হলো : মেঘনা লাইফ, আইএসএন, পিপলস লিজিং এ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেড, ফনিক্স ফাইন্যান্স, স্ট্যান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্স, রূপালী ব্যাংক, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স, ন্যাশনাল হাউজিং এ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেড, ফাস ফাইন্যান্স ও প্রগতি ইন্স্যুরেন্স।

এদিকে দিনশেষে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সাধারণ মূল্যসূচক ৩০ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৮ হাজার ৯৯০ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ২৬১টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১১০টির, কমেছে ১২৬টির ও দর অপরিবর্তিত রয়েছে ২৫টির। যা টাকায় লেনদেন হয়েছে ৬০ কোটি ৭৬ লাখ ২৩ হাজার টাকা। এর আগের কার্যদিবস অর্থাৎ বৃহস্পতিবার সিএসইর সাধারণ মূল্যসূচক ৫০ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৮ হাজার ৯৭২ পয়েন্টে। ওইদিন লেনদেন হয় ৬১ কোটি ৬৪ লাখ টাকা।

সিএসইর লেনদেনের সেরা কোম্পানিগুলো হলো : অলিম্পিক এক্সেসরিজ, লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট, বিএসআরএম লিমিটেড, ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন এ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড, খুলনা পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, বেক্সিমকো ফার্মা, বেক্সিমকো, বিএসআরএম স্টিল, পিপলস লিজিং এ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেড ও শাশা ডেনিমস।