২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মঞ্চেই বান্ধবীকে বিয়ের প্রস্তাব

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপে ইতালির সিমোনে রাফিনি শনিবার ২৫ কিলোমিটার ম্যারাথন সাঁতারে স্বর্ণপদক জিতেন। অসামান্য এই কীর্তির দিন আরেকটি চমকপ্রদ ঘটনারও জন্ম দেন তিনি। মঞ্চেই বান্ধবীকে বিয়ের প্রস্তাব দেন সিমোনে রাফিনি। আর এ সময় বান্ধবীও তার ডাকে সাড়া দিয়েছেন। এর ফলে আনন্দে-উদ্বেলিত ইতালির এই সাঁতারু। আগামী বছর ব্রাজিলের রিও অলিম্পিকের পরই বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার কথা জানান সিমোনে রাফিনি।

বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপের ম্যারাথন সাঁতারে এবার ফেবারিট হিসেবেই যোগ দেন ইতালির সিমোনো রাফিনি। রাশিয়ার কাজাঙ্কা নদীতে শনিবার স্বর্ণপদক জিতে তার প্রমাণও দেখালেন তিনি। ২৫ কিলোমিটার ওপেন ওয়াটার স্বর্ণপদক জিততে তার সময় লেগেছে চার ঘণ্টা ৫৩ মিনিট এবং ১০.৭ সেকেন্ড। স্বর্ণপদক এবং একইদিনে বান্ধবীর কাছ থেকে ‘হ্যাঁ’ সূচক উত্তর। একইদিনে দুটিই পেয়ে গেলেন তিনি। রাফিনির বান্ধবীও সাঁতারু। অরোরা পোনসেলও সাঁতারু। তারই সতীর্থ। একইদিনে স্বর্ণপদক এবং বান্ধবীর হৃদয় জয় করে উচ্ছ্বসিত ইতালিয়ান তারকা বলেন, ‘স্বর্ণপদক জিতে আমি খুবই আনন্দিত। তবে তার চেয়েও বেশি খুশি আমার প্রস্তাবে অরোরা রাজি হওয়ায়। তার কাছ থেকে ভালবাসার চিহ্ন পেয়ে আমি খুবই খুশি।’

মঞ্চ থেকে রাফিনির এমন প্রস্তাব পেয়ে প্রথম দিকে হতবিহম্বল হয়ে পড়েন অরোরা। যদিওবা উত্তর দিতে খুব বেশি সময় নেননি তিনি। দ্রুতই হাতের আঙ্গুলকে হৃদয় বানিয়ে বুঝেন দিলেন রাফিনির প্রস্তাবে সে রাজি। তবে কেমন ছিল সেই অনুভূতি? এ বিষয়ে ইতালির প্রমীলা সাঁতারু অরোরার অভিমত হলো, ‘প্রকৃতপক্ষে রাফিনির এমন প্রস্তাবের বিষয়টি ছিল হঠাৎ ধাক্কা খাওয়ার মতোই।’ বান্ধবী রাজি এখন তাহলে বিয়ের অপেক্ষা! তাহলে কখন হবে তাদের বিয়ে? সে বিষয়টাও জানিয় দিলেন অরোরা। তিনি জানান, আগামী বছর ব্রাজিলের রাজধানী রিওতে হবে ক্রীড়াজগতের মহাযজ্ঞ অলিম্পিকের আসর। তাই এর আগের সময়টাতে খুব ব্যস্ত থাকবেন তারা। যে কারণে অলিম্পিকের পরের সময়টাই বিয়ের জন্য সুন্দর সময়। সেই সময়টাকেই বেছে নেবেন তারা। এ বিষয়ে অরোরা বলেন, ‘আমরা আগামী রিও অলিম্পিকের পরই বিয়ে করব।’ সিমোনে রাফিনির নিঃসন্দেহে ক্যারিয়ার সেরা মুহূর্ত বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপের মঞ্চে স্বর্ণ নিয়ে উঠা। সেই সঙ্গে জীবনের মানেও বুঝে গেলেন তিনি। এ বিষয়ে রাফিনি বলেন, ‘এটাই আমার জীবনের সেরা মুহূর্ত। এখন আমি অবশ্যই অলিম্পিকের দিকে দৃষ্টি দিচ্ছি। তবে আজই (শনিবার) আমি জীবনের মানে খোঁজে পেলাম।’

বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপে দ্বিতীয় হয়েছেন মায়ের। রাফিনির চেয়ে মাত্র ৪.৪ সেকেন্ড কম সময় নিয়ে রৌপ্যপদক জয় লাভ করেন তিনি। দুই বছর আগে বার্সিলোনায় অনুষ্ঠিত বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপেও ফেবারিট ছিলেন মায়ের। কিন্তু সেবার চতুর্থ হয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছিল তাকে। এবার দুইয়ে থেকে পদক জয়ের মঞ্চে উঠে উচ্ছ্বসিত মায়ের। রাফিনি-মায়েরের পর তৃতীয় স্থানটি দখল করেছেন ফুরলান। ২৭.৩ সেকেন্ড পেছনে থাকায় ব্রোঞ্জপদক জিতেন তিনি। গত সপ্তাহে ৫ কিলোমিটারেও ব্রোঞ্জপদক জিতেছিলেন ফুরলান। যে কারণে এবারের আসরে এটা তার দ্বিতীয় ব্রোঞ্জপদক জয়।