২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঈদে মুক্তি পাচ্ছে ‘আশিকি’

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আগামী ঈদ উল আযহায় বাংলাদেশ ও ভারতে এক সঙ্গে মুক্তি পাচ্ছে জাজ মাল্টিমিডিয়া এবং এসকে মুভিজ প্রযোজিত, বাংলাদেশের আব্দুল আজিজ ও ভারতের অশোক পাতি পরিচালিত নতুন চলচ্চিত্র ‘আশিকি’। তবে শূটিংয়ের শুরুর দিকে চলচ্চিত্রের ‘আশিকি’ নাম ছিল না। চলচ্চিত্রের ‘ও প্রেমী ও প্রেমী’ নাম পাল্টে ‘আশিকি’ করা হয়। তবে মুক্তির আগেই বিভিন্ন কারণে আলোচনায় এসেছে ‘আশিকি’ চলচ্চিত্রটি। বিশেষ করে বাংলাদেশের মডেল, উপস্থাপিকা, অভিনেত্রী নুসরাত ফারিয়া মাজহারের প্রথম চলচ্চিত্র ‘আশিকি’। এ কারণে আলোচনা যেন লেগেই আছে। তবে জাজের যে কোন চলচ্চিত্রই মুক্তির আগে যে পরিমাণ আলোচনা ছড়ানো হয় মুক্তির পর তা আর থাকে না। এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ‘আশিকি’। নতুন এ চলচ্চিত্রটি নিয়ে দর্শকরাও আশাবাদী কারণ এর অন্যতম অভিনেত্রী নুসরাত আগে থেকেই নানা কারণে আলোচিত। তার উপস্থাপনা, মডেলিং এবং কোন কোন ক্ষেত্রে অভিনয়ের দ্যূতি ছড়িয়েছেন এই অভিনেত্রী। সে কারণে নুসরাতের এই চলচ্চিত্রটি নিয়ে অনেকেই আশাবাদী। নুসরাত ছাড়াও এতে আরও অভিনয় করেছেন ভারতের জনপ্রিয় অভিনেতা অঙ্কুশ হাজরা এবং বিশেষ একটি চরিত্রে অভিনয় করছেন মৌসুমী। এদিকে ‘আশিকি’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে প্রথমবারের মত দর্শক মাতাতে যাচ্ছেন বাংলাদেশের অন্যতম গ্লামারার্স অভিনেত্রী নুসরাত। চলচ্চিত্রটি নিয়ে ভীষন আশাবাদী আলোচিত উপস্থাপিকা নুসরাত বলেন, বাস্তবধর্মী কাহিনী নিয়ে নির্মিত চলচ্চিত্রটি দর্শকের ভাল লাগবে। নুসরাত আরও বলেন, এতদিন দর্শক বাংলা চলচ্চিত্র মানেই বুঝত, নায়ক-নায়িকাকেন্দ্রিক সাজানো গল্প বা প্রেমকাহিনী, বাস্তবের সঙ্গে যার অনেকাংশেই মিল নেই। কিন্তু ‘আশিকি’ চলচ্চিত্রটি একেবারেই আলাদা। এর দৃশ্য এতই বাস্তবসম্মত করা হয়েছে, দর্শক রীতিমতো চমকে যাবে। তাদের জীবনের বাস্তবকাহিনী, সত্যিকারের প্রেমকাহিনী নিয়ে নির্মিত হয়েছে এই চলচ্চিত্রটি। সম্প্রতি স্কটল্যান্ড থেকে চলচ্চিত্রটির শূটিং শেষ করে এসেছেন নুসরাত। ক্যারিয়ারের প্রথম চলচ্চিত্রেই এত লগ্নি, এত আয়োজন, তারপর ঈদে মুক্তি নুসরাত নিজেকে ভাগ্যবতী দাবি করে বলেন, হল মালিক, বুকিং এজেন্ট, প্রযোজক সবাই একযোগে বলছে শুরুতেই এত বড় সুযোগ কেউ পায় না। সত্যি বলতে কি, চলচ্চিত্রের শূটিংয়ের সময়ও সবকিছু আমার চাহিদা অনুযায়ী হয়েছে। আমার ভাগ্য সত্যি ভাল। সহ-অভিনেতা অঙ্কুশ প্রসঙ্গে বলেন, অঙ্কুশ দারুণ একজন অভিনেতা, খুব পেশাদার। বন্ধু হিসেবেও ভাল। কাজের ক্ষেত্রেও যথেষ্ট সাহায্য করেছে আমাকে। পরিচালক অশোক পাতি ও অভিনেতা রজতাভ দত্তকে ‘অভিনয়ের স্কুল’ আখ্যা দিয়ে নুসরাত বলেন, তারা দু’জন সত্যিই অসাধারণ। একজন সহশিল্পীকে কিভাবে সাহায্য করতে হয় রনিদা সত্যিই ভাল জানেন। অশোক স্যারের কাছে অভিনয়টা যেন নতুন করে শিখে এসেছি আমি। তার মতো শিক্ষকের জুড়ি মেলা ভার। নিজের চরিত্র নিয়ে নুসরাত বললেন, চলচ্চিত্রে বৈচিত্র্য আনতে যে ধরনের অভিনয় দরকার ছিল, তা করতে চেষ্টার ত্রুটি করিনি আমি। খুব কঠিন কিছু ছিল এমন নয়, তবে চরিত্রটির উপস্থাপনের ধরন সত্যি আলাদা ছিল। খুব শিগগিরই শুরু হবে চলচ্চিত্রের প্রচারের কাজ। নিজেকে তাই আলাদাভাবে প্রস্তুত করছেন নুসরাত। তার আগে অন্য কোনো চলচ্চিত্রের ব্যাপারে তিনি একেবারেই ভাবছেন না। সম্প্রতি শোনা যাচ্ছিল, জাজ মাল্টিমিডিয়ার পরবর্তী যৌথ প্রযোজনার চলচ্চিত্র ‘প্রমিজ’ থেকে নুসরাতকে বাদ দেয়া হয়েছে আর এর পেছনে হাত রয়েছে মাহিয়া মাহির। বিষয়টি উড়িয়ে দিলেও মাহির সঙ্গে প্রতিযোগিতার বিষয়টি না এড়িয়ে তিনি বলেন, প্রতিযোগিতা থাকবেই, চলচ্চিত্র জগত বলে কথা। খালি মাঠে ফ্রি কিক মেরে কোন মজা আছে! আমিও চাই ভাল কাজের প্রতিযোগিতা থাকুক। আমি লড়াই করে নিজের অবস্থান তৈরি করতে চাই। কাজ পাওয়ার ক্ষেত্রে প্রতিদ্বন্দ্বিতা যদি না থাকে তাহলে কাজের মজা থাকে না।