২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মুখের হাসি আসল না নকল চেনার উপায়

প্রিয়জনের মুখের হাসি দেখতে কার না ভাল লাগে। বিশেষ করে শিশুর হাসির তো কোন তুলনাই হয় না। কারণ, শিশুর হাসি নিষ্পাপ আর অকৃত্রিম। হাসি বিভিন্ন ধরনের রোগ প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। মানসিক বিষন্নতা এবং অপসাদ দূর করতে হাসির কোন তুলনা হয় না। মানবদেহের গালে বিদ্যমান জাইগোমেটিকাস মেজর মাংসপেশীর মাধ্যমেই হাসি প্রকাশিত হয়। তবে, আমরা যখন মনেপ্রাণে হাসি বা খুবই আনন্দে থাকি তখন চোখের পাশে গোলাকার অরবিকিউলারেস অকুলি মাংসপেশীও হাসিতে কিছুটা হলেও ভূমিকা রাখে। তাই আনন্দে হাসতে হাসতে অনেকেরই চোখ বন্ধ হয়ে আসে। তাছাড়া হাসিতে দাঁতের ভূমিকার কথা না বললেই নয়। আপনার দাঁত সুন্দর না থাকলে হাসিও সুন্দর দেখাবে না। তবে যাঁরা অভিনেতা বা অভিনেত্রী তাঁরা হাসির প্রকাশভঙ্গি প্রশিক্ষণের মধ্য দিয়ে রপ্ত করে থাকেন। হঠাৎ করেই এমনটি কেউ করতে পারবে না। তাই হাসির সময় চোখের দিকে তাকালেই বোঝা যায়, হাসি আসল নাকি নকল। কারণ, সাধারণ মানুষ কৃত্রিম হাসি গালের মাংসপেশীর মাধ্যমেই প্রকাশ করে থাকে। পাকা অভিনেতা ছাড়া চোখের হাসি রপ্ত করা কঠিন। কেউ কেউ কপাল উঁচু করে বা বিভিন্ন পদ্ধতিতে চোখের হাসি প্রকাশ করার চেষ্টা করেন। মনোযোগ দিয়ে লক্ষ্য করলে সহজেই আসল হাসি এবং নকল হাসির স্বরূপ যে কেউ উন্মোচন করতে পারবেন। মুচকি হাসির ক্ষেত্রে সব সময় চোখের হাসি শতভাগ প্রকাশিত নাও হতে পারে। তাই সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। হাসি যেমনই হোক, আমাদের সবারই উচিত হাসি-খুশি থাকা এবং অন্যকে হাসি-খুশি রাখা।

ডা. মোঃ ফারুক হোসেন

মাহী ডেন্টাল কেয়ার, ইব্রাহিমপুর, বউবাজার, ঢাকা

মোবাইল: ০১৮১৭৫২১৮৯৭

ই-মেইল: ফৎ. ঋধৎঁয়ঁ @ মসধরষ . পড়স