১২ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ওবামার জলবায়ু পরিকল্পনাকে স্বাগত জানিয়েছে ইইউ

বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনের আগে কার্বন নিঃসরণ কমাতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওমাবার পরিচ্ছন্ন বিদ্যুত পরিকল্পনা (ক্লিন পাওয়ার প্ল্যান) ঘোষণাকে ‘একটি ইতিবাচক পদক্ষেপ’ বলে স্বাগত জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। জলবায়ু নিয়ে সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের পরিকল্পনা ঘোষণা করেন দেশটির প্রেসিডেন্ট। ২০৩০ সালের মধ্যে দেশের কার্বন-ডাই-অক্সাইড নির্গমনের হার এক-তৃতীয়াংশ কমিয়ে আনাই এই পরিকল্পনার উদ্দেশ্য। খবর এএফপি ও বিবিসির।

ওবামা জলবায়ু ইস্যুতে নেয়া এই পরিকল্পনাকে দেশটির নেয়া এযাবতকালের সবচেয়ে বড় ও গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ বলে বর্ণনা করেছেন। তবে মার্কিন রিপাবলিকান রাজনীতিকরা বলেছেন, এই পরিকল্পনায় দেশটির অর্থনৈতিক উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই তারা কংগ্রেসে এই প্রস্তাবের বিরোধিতা করবেন বলে জানিয়ে দিয়েছেন।

আগামী ১৫ বছরের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের বিদ্যুতকেন্দ্রগুলো থেকে ক্ষতিকর গ্রীন হাউস গ্যাসের নির্গমন প্রায় এক-তৃতীয়াংশ কমিয়ে আনা সংশোধিত এ পরিকল্পনার লক্ষ্য। অর্থাৎ পরিকল্পনা অনুযায়ী ২০৩০ সালের মধ্যে বিদ্যুত খাত থেকে কার্বন নিঃসরণ ৩২ শতাংশ পর্যন্ত কমিয়ে আনা হবে।

ইরাক ও সিরিয়ায় ১৫ হাজার আইএস জঙ্গী হত

জঙ্গী সংগঠন ইসলামিক স্টেটকে (আইএস) লক্ষ্য করে ইরাক ও সিরিয়ায় চালানো মার্কিন নেতৃত্বাধীন বিমান হামলায় এক বছরে অন্তত চারশ’ ৫৯ জন বেসামরিক নাগরিক এবং ১৫ হাজারের বেশি আইএস জঙ্গী নিহত হয়েছে। স্বাধীন পর্যবেক্ষক সংস্থা এয়ারওয়ারস সোমবার এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে। খবর ইয়াহু নিউজের।

এয়ারওয়ারসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তাদের ধারণা ৫৭টি নির্দিষ্ট বিমান হামলায় এই বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে। এছাড়া সন্দেহ করা হচ্ছে ৪৮টি ফ্রেন্ডলি ফায়ারও এ মৃত্যু কারণ। যদিও আইএস নিয়ন্ত্রিত এলাকায় তথ্য যাচাই করা যথেষ্ট কঠিন ছিল। কেননা তারা সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মীদের অপহরণ ও হত্যা করে আসছে। অন্য মানবাধিকার সংগঠনগুলোও মার্কিন নেতৃত্বাধীন বিমান হামলায় হতাহতের সংখ্যা একইরকম জানিয়েছে। মার্কিন নেতৃত্বাধীন বিমান বাহিনী ইরাকে ৮ আগস্ট এবং সিরিয়ায় ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে আইএসকে লক্ষ্য করে হামলা শুরু করে। পরে জোট দেশগুলো চরমপন্থীদের হটাতে স্থলযুদ্ধেও যোগ দেয়। জোট বাহিনী দেশ দুটিতে এ পর্যন্ত ৫ হাজার ৮শ’ বিমান হামলা চালিয়েছে। তবে বিমান হামলায় মাত্র দুইজন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে বলে স্বীকার করেছে যুক্তরাষ্ট্র। গত বছর সিরিয়ায় আল কায়েদার সঙ্গে সম্পৃক্ত জঙ্গীদের লক্ষ্য করে চালানো বিমান হামলায় দুই শিশু নিহত ও দুই নারী আহত হয়। মে মাসে প্রকাশিত মার্কিন সামরিক তদন্ত প্রতিবেদনের বরাতে এ কথা জানা যায়।