১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জুলাইয়ে সার্বিক মূল্যস্ফীতি বেড়েছে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ দেশের সার্বিক মূল্যস্ফীতি কিছুটা বেড়েছে। জুলাই মাসে সার্বিক মূল্যস্ফীতির এ হার দাঁড়িয়েছে পয়েন্ট টু পয়েন্টে ৬ দশমিক ৩৬ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল ৬ দশমিক ২৫ শতাংশ। এ সময় খাদ্য পণ্যের মূল্যস্ফীতি কমে দাঁড়িয়েছে ৬ দশমিক শূন্য ৭ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল ৬ দশমিক ৩২ শতাংশ। তবে খাদ্যবহির্ভূত পণ্যের মূল্যস্ফীতি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ দশমিক ৮০ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল ৬ দশমিক ১৫ শতাংশ। মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে পরিসংখ্যান ব্যুরোর এসব তথ্য প্রকাশ করেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এ সময় পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, দুই ঈদে বেশি খরচ হয়। ফলে এর প্রভাব বাজারে পড়ে। কয়েকদিন আগে ঈদে সারাদেশে অনেক কেনাকাটা হয়েছে। তাই মূল্যস্ফীতি বেড়েছে। এটি স্বাভাবিক। তবে আমাদের যে লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে চলতি অর্থবছরে মূল্যস্ফীতি ৬ দশমিক ২ শতাংশের নিয়ে যাওয়া, আশা করছি এর আশপাশেই থাকবে।

পরিসংখ্যান ব্যুরোর প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে দেখা যায়, গ্রামে সার্বিক মূল্যস্ফীতি পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে কমে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৮৮ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল ৫ দশমিক ৯০ শতাংশ। খাদ্য পণ্যের মূল্যস্ফীতি কমে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৪৩ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল ৫ দশমিক ৭৬ শতাংশ। খাদ্যবহির্ভূত পণ্যের মূল্যস্ফীতি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ দশমিক ৬৯ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল ৬ দশমিক ১৬ শতাংশ।

অন্যদিকে শহরে সার্বিক মূল্যস্ফীতি পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭ দশমিক ২৮ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল ৬ দশমিক ৯১ শতাংশ। খাদ্য পণ্যের মূল্যস্ফীতি কমে দাঁড়িয়েছে ৭ দশমিক ৫৮ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল ৭ দশমিক ৬৪ শতাংশ। খাদ্যবহির্ভূত পণ্যের মূল্যস্ফীতি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ দশমিক ৯৬ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল ৬ দশমিক ১৪ শতাংশ।