১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া জনসন

ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া জনসন
  • ট্রেন্ট ব্রিজ টেস্ট

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ২-১এ পিছিয়ে থাকার সমীকরণটা পরিষ্কার। এ্যাশেজে টিকে থাকতে হলে বৃহস্পতিবার শুরু হতে যাওয়া ট্রেন্ট ব্রিজের চতুর্থ টেস্টে জিততেই হবে অস্ট্রেলিয়াকে। কঠিন এই পরিস্থিতিতে ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া দলটির বোলিং আক্রমণের মূল ভরসা মিচেল জনসন। ‘লড়াইয়ে ফিরে আসতে মরিয়া আমরা। এটা আমাদের জন্য ডু অর ডাই ম্যাচ, সতীর্থদের সবাই সেটা বুঝতে পারছেন। যদি ব্যর্থ হই তাহলে সবকিছু শেষ হয়ে যাবে।’ ট্রেন্ট ব্রিজ টেস্ট নিয়ে বলেন ৩৩ বছর বয়সী দ্রুতগতির এই বোলার।

এজবাস্টনে স্ট্রেইন ইনজুরিতে পরায় এই ম্যাচে স্বাগতিকরা পাচ্ছে না তাদের বোলিং আক্রমণের প্রধান অস্ত্র জেমস এ্যান্ডারসনকে। সুতরাং বাড়তি দায়িত্ব নিতে হচ্ছে স্টুয়ার্ট ব্রড আর স্টিভেন ফিনকে। সেই তুলনায় নিজেদের পেস আক্রমণ সমৃদ্ধ বলেই মনে করেন জনসন। তিনি আরও যোগ করেন, ‘মিচেল স্টার্ক এবং জস হ্যাজলউডের ওপর আমার অগাধ আস্থা, ওরা দুজনই বিশ্বমানের পেসার, যে কোন পরিস্থিতিতে ম্যাচে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম। কঠিন এই ম্যাচে সেরাটা দিতে আমিন নিজেও প্রস্তুত। জিমির অনুপস্থিতিতে প্রতিপক্ষের চেয়ে নিঃসন্দেহে বোলিংয়ে আমরাই এগিয়ে।’

তিন ম্যাচে জনসনের শিকার সংখ্যা ১০, ঠিক তার নামের সঙ্গে বেমানান। তবে এটা ঠিক সতীর্থদের নিয়ে এ পর্যন্ত বোলিংয়ে অসিরাই এগিয়ে। শীর্ষ ছয় উইকেট শিকারির চারজনই অস্ট্রেলিয়ার। ১৪ উইকেট নিয়ে সবার ওপরে হ্যাজলউড, ১২ শিকার নাথান লেয়ন আর মিচেল স্টার্কের। সেই তুলনায় অতিথিদের ব্যাটিংয়ের অবস্থা নাজুক। এজবাস্টনে প্রথম ইনিংসে ১৩৬ রানে অলআউট হওয়াটাই মূলত ডুবিয়েছিল মাইকেল ক্লার্কদের। ক্রমশ অলরাউন্ডার বনে যাওয়া জনসন ব্যাট হাতেও রাখতে চান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। ‘বোলিং প্রধান কাজ হলেও দলের প্রয়োজনে ব্যাট হাতে আরও ভূমিকার রাখতে চাই।’ বলেন জনসন।

সেই সামর্থ্য জনসনের রয়েছে। হতাশার এজবাস্টন টেস্টে প্রথম ইনিংসে জনি বেয়ারস্টোকে আউট করে

পঞ্চম অস্ট্রেলিয়ান হিসেবে টেস্টে তিন শ’ বা তার বেশি উইকেট নেয়ার কৃতিত্ব দেখান আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ের চতুর্থসেরা বোলার। এরপর তুলে নেন বেন স্টোকসকেও। পাশাপাশি শেন ওয়ানর্নের পর মাত্র দ্বিতীয় অসি ক্রিকেটার হিসেবে টেস্টে তিন শ’র ওপরে উইকেট এবং ২ হাজারের বেশি রান সংগ্রহে দারুণ অলরাউন্ড নৈপুণ্যের স্বাক্ষর রাখেন কুইন্সল্যান্ড তারকা। ব্যাটিং ব্যর্থতায় ক্লার্ককে তুলোধুনো করে ছাড়ছে অস্ট্রেলিয়ান মিডিয়া। চাঙ্গা হতে তাকে কিছুদিনের জন্য বিশ্রামে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন অনেকে। তিন টেস্টের ছয় ও একটি প্রস্তুতি ম্যাচ মিলিয়ে আট ইনিংসে একটি হাফসেঞ্চুরিও নেই অসি অধিনায়কের!

ইংল্যান্ড দলে এ্যান্ডারসনের পরিবর্তে ফেরানো হতে পারে মার্ক উডকে। লর্ডসে দ্বিতীয় টেস্টে ইনজুরিতে পড়েছিলেন তিনি, এখন পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠেছেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি) এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, নিজেকে শেষবারের মতো ঝালিয়ে নিতে বোলিং কোচ ওটিস গিবসনের অধীনে কাঠোর অনুশীলন করছেন তরুণ এই পেসার। যদি শতভাগ ফিটনেস ফিরে না পান সেক্ষেত্রে শেষ মুহূর্তে লাইম প্ল্যাঙ্কেটকে দলে নিতে পারে ইসিবি। পাশাপাশি ফর্মে না থাকার পরও উইনিং কম্বিনেশন ধরে রাখতে ওপেনার এ্যাডাম লিথকে সুযোগ দিতে চান স্বাগতিক কর্তারা।