২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

‘পার্টি মুডে বাংলাদেশ কোচিং স্টাফরা’

  • স্টেইনের রসিকতা!

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ চট্টগ্রাম টেস্ট বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়ার পর ঢাকা টেস্টের পরিণতিও একই হয়েছে। যেই ঢাকা টেস্ট শেষ হয়েছে, সোমবার রাতেই দক্ষিণ আফ্রিকায় চলে গেছেন হাশিম আমলারা। আর বৃষ্টি নিয়ে, বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়া টেস্টগুলো নিয়ে রসিকতা করেছেন ডেল স্টেইন। বাংলাদেশে থাকার সময় টিম হোটেলের সুইমিং পুলে সতীর্থদের সঙ্গে তোলা এক ছবি টুইটারে পোস্ট করেন। সেই পোস্টের সঙ্গে লিখে দেন, ‘যখন রোদ ওঠে তখন আমরা ক্রিকেট খেলি না, রোদ পোহাই!’ স্টেইনের এ পোস্টেই বোঝা যাচ্ছে বৃষ্টিতে যে দুটি টেস্টই হলো না তা নিয়ে তার রসিকতা।

বাংলাদেশ ছেড়ে এরই মধ্যে চলে গেছেন দক্ষিণ আফ্রিকানরা। টি২০ সিরিজে ২-০ ব্যবধানে জয় দিয়ে শুরু করলেও ওয়ানডেতে ২-১ ব্যবধানে সিরিজ হেরেছে প্রোটিয়ারা। টেস্ট সিরিজটা ভাল কাটেনি সফরকারীদের। বৃষ্টিতে কোন টেস্টই ঠিকমতো খেলা হয়নি। ঢাকা টেস্টের চারদিন তো খেলাই হলো না। মিরপুর টেস্টের শেষদিন তো খেলা শুরু হওয়ার আগেই শেষ হয়ে গেছে। শেষ দিনটা কেমন কাটল দক্ষিণ আফ্রিকার? সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে সেই প্রশ্নের জবাব দিলেন স্টেইন। আর সেটা করতে গিয়ে আরেকবার বাংলাদেশ নিয়ে মজা করলেন দানবীয় এই পেসার। মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টের শেষদিন সকালেই টেস্ট ড্র ঘোষণা করা হয়। টিম হোটেলেই পুরোদিন কাটিয়ে দেয় দক্ষিণ আফ্রিকা। সে সময়টাতে হোটেলের সুইমিং পুল লবিতে রোদ পোহাচ্ছিলেন স্টেইন। সতীর্থদের সঙ্গে তেমন একটা ছবিই তিনি পোস্ট করেছেন টুইটারে। আর সেখানে রসিকতা করে ক্যাপশন দিয়েছেন।

দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটাররা হতাশ হতেই পারেন। বাংলাদেশ সফরে এসে যে প্রাপ্তির খাতা সমৃদ্ধ করতে পারেননি। আবার ওয়ানডে সিরিজে হেরেছেন। তবে বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা কিন্তু খুব আনন্দেই আছেন। সেই আনন্দ ছুঁয়ে গেছে দলের কোচিং স্টাফদেরও। পার্টি মুডেই আছেন হাতুরাসিংহেরা। দলের মধ্যে জয় পাওয়ার বিশ্বাস তৈরি করে দিয়েছেন প্রধান কোচ হাতুরাসিংহে। তার সঙ্গে পর্দার আড়ালে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাফল্য পেতে কাজ করে গেছেন পেস বোলিং কোচ হিথ স্ট্রিক, স্পিন বোলিং কোচ রুয়ান কালপাগে, ফিল্ডিং কোচ রিচার্ড হ্যালসল, ট্রেইনার মারিও ভিল্লাভারায়েন।

বিশ্বকাপ থেকেই যেন বদলে গেছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের চেহারা। আর সেটার জন্য দলের কোচিং স্টাফদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানানোই যায়। বিশ্বকাপ, পাকিস্তান সিরিজ, ভারত সিরিজ ও সর্বশেষ দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজ টানা পাঁচ মাস ক্রিকেটের মধ্যেই কাটিয়েছেন ক্রিকেটাররা। সঙ্গে ছিলেন কোচরা। এবার ক্রিকেটারদের সঙ্গেই একটা ছুটি পাচ্ছেন কোচরাও। সেই ছুটি নিজের পরিবারের সঙ্গেই কাটাবেন কোচরা। বাংলাদেশ ছাড়ার আগে একটা ছোটখাটো ঘরোয়া পার্টিই করে গেলেন তারা। সেই পার্টির মধ্যমণি ছিলেন হাতুরাসিংহেই। আরও ছিলেন কালপাগে ও ভিল্লাভারায়েন। হাতুরাসিংহে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম টুইটার বার্তায় পার্টির একটি ছবি পোস্ট করেছেন। সেখানেই লিখেছেনও, ‘বাংলাদেশ ছাড়ার আগে কিছু সুন্দর সময় কাটালাম। দারুণ উদযাপন করলাম, বন্ধুদের সঙ্গে। সবাইকে ধন্যবাদ।’ তাতেই বোঝা গেছে, পার্টি মুডেই পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাতে যাওয়ার আগে বাংলাদেশের সময়গুলো উপভোগ করেছেন কোচরা।