২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কোরিয়ায় ভাল খেলার প্রত্যয় ক্ষুদে ফুটবলারদের

  • এশিয়ান ইয়ুথ ফুটবল ফেস্টা (অনুর্ধ ১২), অংশ নেবে বাংলাদেশসহ ১৫ দেশের ৪ দল

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বিদ্যা অর্জনের জন্য সুদূর চীনেও যাওয়া যায়। তেমনি ফুটবল খেলার জন্য যেতে হয় চীন থেকেও দূরে, দক্ষিণ কোরিয়ায়। নিরীহ, নিষ্পাপ শিশু একেকজন। মা-বাবাকে ছাড়া কোনদিন বাইরে রাত কাটায়নি। অথচ ফুটবল খেলার জন্য এখন কি না তাদের মা-বাবাকে ছেড়ে যেতে হবে সুদূর দক্ষিণ কোরিয়ায়! কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় হচ্ছে কচি-কোমলমতি এসব শিশুদের মনে তার কোন লেশমাত্র নেই। তাদের মা-বাবারাও আশঙ্কা-দ্বিধা-কষ্ট ঝেড়ে রাজি হয়েছেন তাদের চোখের মণিদের দেশ থেকে হাজার হাজার মাইল দূরে। যাদের কথা বলা হচ্ছে, তারা হচ্ছে বাংলাদেশ অনুর্ধ ১২ জাতীয় দলের ১২ ক্ষুদে ফুটবলার। ‘এশিয়ান ইয়ুথ ফুটবল ফেস্টা’ আসরে অংশ নিতে বুধবার সকালে বিমানযোগে ঢাকা ত্যাগ করবে অনুর্ধ ১২ ফুটবল দল। দক্ষিণ কোরিয়ার জিয়োঞ্জি-ডোর আনসিয়ং সিটিতে আগামী ৭-১০ আগস্ট পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে ক্ষুদে ফুটবলারদের এই ফুটবল আসর। ১৫ দেশের (আফগানিস্তান, বাংলাদেশ, কম্বোডিয়া, চীন, পূর্ব তিমুর, ভারত, লাওস, মঙ্গোলিয়া, নেপাল, ফিলিস্তিন, পাকিস্তান, থাইল্যান্ড, তাজিকিস্তান, উজবেকিস্তান এবং স্বাগতিক দক্ষিণ কোরিয়া) ৪০ ফুটবল দলের ক্ষুদে ফুটবলার অংশ নেবে এই ফেস্টিভালে। প্রতি গ্রুপে ৫টি করে দল খেলবে। বাংলাদেশের গ্রুপ ও প্রতিপক্ষ এখনও নির্ধারিত হয়নি। প্রতিদিন একটি দল কমপক্ষে দুটি করে ম্যাচ খেলবে। খেলা হবে মাঠের মোট আয়তনের অর্ধেক অংশে। খেলা হবে ৩০ মিনিটের (১৫+১৫)। ম্যাচে এক দলের খেলোয়াড় থাকবে ৬ জন করে।

এ আসরে ১২ ফুটবলার, কোচ, ম্যানেজার ও মিডিয়া ম্যানেজারসহ মোট ১৬ জনের একটি দল যাচ্ছে বাংলাদেশ থেকে। উল্লেখ্য, এটাই বাংলাদেশের প্রথম কোন অনুর্ধ ১২ ফুটবল দল। দল গঠনের বাছাই প্রক্রিয়া ছিল অনেকটা এ রকম প্রথমে ২০০ ফুটবলারকে নিয়ে তিনদিনের ট্রায়াল হয়। সেখান থেকে বেছে নেয়া হয় ২২ জনকে। তারপর তাদের নিয়ে চারদিনের আরেকটি ট্রায়াল অনুষ্ঠিত হয়। সেখান থেকে বেছে নেয়া হয় ১৬ জনকে। তাদের গত ৬ জুন নিয়ে যাওয়া হয় সিলেটে অবস্থিত বাফুফে ফুটবল একাডেমিতে। সেখানে প্রায় দুই মাসের প্রশিক্ষণ শেষে চূড়ান্তভাবে বাছাই করা হয় ১২ জনকে। এই দলটিকে নিয়ে সোনালি স্বপ্নের জাল বুনছেন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) কর্মকর্তারা। তাদের স্বপ্নÑ ভবিষ্যতে এদের মধ্য থেকেই তৈরি হবে আগামী দিনের সালাউদ্দিন, সালাম, আসলাম, চুন্নু, বাদল, সাব্বির, রুমী, আলফাজ, মামুনুলরা।

এ উপলক্ষে মঙ্গলবার বাফুফের সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন অনুর্ধ ১২ দলের সব ফুটবলার, কোচ, ম্যানেজারসহ বাফুফে ফুটবল ডেভেলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান ও বাফুফে সহ-সভাপতি বাদল রায়, বাফুফে সদস্য ফজলুল রহমান বাবু, সত্যজিত দাস রূপু প্রমুখ। বাদল রায় বলেন, ‘এই ১২ ফুটবলারদের মা-বাবার প্রতি আমরা কৃতজ্ঞ। কারণ তারা তাদের সন্তানদের এত দূরে খেলতে পাঠাতে রাজি হয়েছেন, আমাদের প্রতি আস্থা রেখেছেন। এই দলটি দক্ষিণ কোরিয়া থেকে ফিরে আসলে সিলেটে অবস্থিত বাফুফে একাডেমিতে অন্তর্ভুক্ত করা হবে। সেই সঙ্গে তাদের লেখাপড়ার বিষয়টিও আমরা দেখব।’

দলটির অধিনায়ক মেহেদী হাসান একজন মিডফিল্ডার। নারায়ণগঞ্জের ছেলে সে। পড়ে বিয়াম হাই স্কুলের সপ্তম শ্রেণীতে। প্রয়াত মোনেম মুন্না, জাহিদ হাসান এমিলি এবং সোহেল রানার ভক্ত মেহেদীর লক্ষ্য, ‘আমরা চাই কোরিয়া গিয়ে দেশের সম্মান বজায় রাখতে ও ভাল খেলতে। আমাদের আত্মবিশ্বাস আছে সব দলকেই হারানোর।’

বাংলাদেশ অনুর্ধ ১২ জাতীয় ফুটবল দলের খেলোয়াড়রা হলোÑ রকিবুল হাসান, হীরা আহমেদ, মোহাম্মদ মেরাজ, মোহাম্মদ রানা, রাশেদুল ইসলাম, মমিনুল ইসলাম তন্ময়, মেহেদী হাসান (অধিনায়ক), শাহরিয়ার কবির, সাগর চন্দ্র পত্র, মুরাদ হোসেন, মেহরাব হোসেন অপি ও রেজাউল করিম। কোচÑ মোস্তফা আনোয়ার পারভেজ। মিডিয়া অফিসারÑ হাসান মাহমুদ, টিম ম্যানেজারÑ আরিফ হোসেন মুন এবং ডিরেক্টরÑ মাশুক মিয়া।

গত ৯ মে বাফুফে অনুর্ধ ১২ জাতীয় ফুটবল দলগঠনের লক্ষ্যে বাফুফে আর্টিফিশিয়াল টার্ফে প্রথম উন্মুক্ত ট্রায়াল অনুষ্ঠিত হয়। এ ট্রায়ালে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের প্রধান প্রশিক্ষক লোডভিক ডি ক্রুইফ। ফুটবলকে এগিয়ে নিতে হলে প্রয়োজন তৃণমূল পর্যায় থেকে উন্নয়ন করা। যে কারণেই বাফুফে এবার বয়সভিত্তিক দলগঠনে মনোযোগ দেয়। গত বছর মালয়েশিয়ায় অনুষ্ঠিত সুপার মক কাপে অনুর্ধ ১২ দল অংশ নেয়ার পর থেকেই বাফুফে ঠিক করে পর্যায়ক্রমে বয়সভিত্তিক খেলা চালিয়ে যাওয়ার। তাই সারাদেশ থেকে ট্যালেন্ট হান্ট করে ১৬ সেরা ফুটবলারকে নিয়ে গড়া হয় অনুর্ধ ১২ দলটি। এ দলে ছিল সুপার মক কাপে অংশ নেয়া সাত ফুটবলার। কোরিয়া যাত্রার আগে ১৬ জন থেকে চারজনকে বাদ দিয়ে গড়া হয় চূড়ান্ত স্কোয়াড।

কোরিয়া যাওয়ার আগে তিনটি প্রস্তুতি ফুটবল ম্যাচে অংশ নেয় অনুর্ধ ১২ ফুটবল দল। বাফুফে আর্টিফিসিয়াল টার্ফে অনুষ্ঠিত প্রতি ম্যাচেই জেতে তারা। হারায় ১০-০ গোলে নারায়ণগঞ্জের মদনপুর ফুটবল একাডেমিকে, ৫-১ গোলে নারায়ণগঞ্জ ফুটবল একাডেমিকে এবং ১-০ গোলে আরামবাগ ফুটবল একাডেমিকে।