২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সমাজ ভাবনা ॥ এবারের বিষয় ॥ আমার স্কুলশিক্ষক

  • একজন শিক্ষকের অভিমত

মোঃ জহির উদ্দিন

শিক্ষক এমন একটি মহান শব্দ যা সকল শব্দের শীর্ষে। যাঁর মহত্ত্বের জন্য যুগে যুগে যারা মহাজ্ঞানীগুণী হয়েছেন তাঁদেরকে উপাধি দেয়া হয় শিক্ষক, প্রথম শিক্ষক উপাধি পান এ্যারিস্টটল এবং পরে আল ফারাবি। শিক্ষক হচ্ছেন গুরু আর বাকি সবাই শিষ্য এবং শিষ্যের ওপর শিক্ষকের প্রভাব থাকে জীবনভর। কাজেই বোঝা যাচ্ছে যে, একজন শিক্ষক কেমন হওয়া দরকার, তাঁকে কেমন করে তৈরি করা প্রয়োজন ইত্যাদি। তাছাড়া আমাদের সবাইকে কোন না কোন শিক্ষকের স্পর্শে বেরিয়ে আসতে হয়। মহাবীর আলেকজান্ডার থেকে শুরু করে অনেক গুণী মহাজ্ঞানী শিক্ষকের গুরুত্ব উল্লেখ করেছেন। সেই শিক্ষক কেমন হবেন তা সংজ্ঞায় সীমাবদ্ধ করা যাবে না। শুধু উদাহরণেই অনুধাবন করানো যায়। বিশেষ করে স্কুলজীবনে শিক্ষার্থীর ওপর শিক্ষকের প্রভাব এতই বেশি থাকে যে তা স্বল্প লিখনে শেষ করা যাবে না। কোমল মনের শিশুরা মনে করে তার শিক্ষকই জগতে সবচেয়ে বড় ও জ্ঞানী ব্যক্তি। শিক্ষক যাই শেখান তারা মনে করে এটাই ঠিক এবং নির্বিচারে গ্রহণ করে। যেমন আমার মেয়ে এসে বলল ম্যাডাম আজ শিখিয়েছেন, ‘ম্যা আই গো টু টয়লেট’? আমি বললাম তার চেয়েও সুন্দর করে বলবে, ম্যা আই গো টু ওয়াশ রুম? কিন্তু কোনভাবেই মানিয়ে নিতে পারলাম না। বলল, আমার ম্যাডাম যা বলেছেন তাই বলব। কাজেই আগে বুঝতে হবে শিক্ষকের কেমন প্রভাব এবং তখনই আমরা যারা শিক্ষক হতে চাই বা নিয়োগ করি বা শিক্ষক পদে আছি সকলের সমন্বিত উপলব্ধিই হবে শিক্ষকের সংজ্ঞা ও মর্যাদা। একজন শিক্ষক হবেন শিক্ষার্থীর বন্ধু, দার্শনিক, পথ-প্রদর্শক, অভিভাবক তার মা-বাবা সবই এবং তখনই গুরু শিষ্যের সার্থকতাই শুধু নয় একটি জাতিকে বিনির্মাণের মাধ্যমে বদলে দেয়া যাবে। শিক্ষক তাঁর ব্যক্তিগত জীবনের বাইরে যখন শিক্ষার্থীর স্পর্শে আসেন তখন মনে করতে হবে আমি পুরো মানুষটিই তার জন্য একটি মডেল। আমার কথা, আমার উচ্চারণ, আমার মুভমেন্ট, আমার চলন-বলন, রীতি নীতি, আচার আচরণ উদারতা সবই তার জন্য শিক্ষা এবং এর প্রভাব সে সারাজীবন বহন করবে। কাজেই আমার স্কুল শিক্ষক হবেন আমার উচ্চতর মডেল। অতএব রাষ্ট্র অন্য দফতর-অধিদফতরে কেমন কর্মকর্তা নিয়োগ দেন তাতে কিছুই আসে যায় না। কিন্তু জাতি গঠনে মানুষ গড়নের জন্য কেমন ব্যক্তিকে শিক্ষক নিয়োগ দিচ্ছেন তার জন্য অনেক কিছুই আসে যায়। বুঝতে হবে মানুষের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ হচ্ছে তার প্রিয় সন্তান এবং সেই মহামূল্যবান সন্তানদের শিক্ষকের হাতেই তারা তুলে দেন অনেক স্বপ্ন নিয়ে। আর সেই শিক্ষক কি পাচ্ছেন আর কি দিচ্ছেন সে কথা আমাদের সকলের জানা। কাজেই শেষ কথা হচ্ছে আমার স্কুলশিক্ষক হবেন বহু গুণে গুণান্বিত সুন্দর একজন মহান মানুষ এবং তাঁর মর্যাদাও হবে সেরকম। সেই মূল্যবান মানুষটিকে তৈরির জন্য রাষ্ট্র ও সমাজের প্রচার এবং গবেষণাও লাগবে সেরকম।

শাহ নিমাত্রা এসএফ কলেজ

জুড়ী, মৌলভীবাজার থেকে

নির্বাচিত সংবাদ
এই মাত্রা পাওয়া