২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চাই মানসিকতার পরিবর্তন

শাহ্ আলম বাচ্চু

শিক্ষককে বলা হয় মানুষ গড়ার কারিগর। এই কারিগরই জ্ঞানের নির্ভরতার আলো নিয়ে আগামী প্রজন্মকে মানুষ করে তোলার জন্য মুখ্য ভূমিকা পালন করেন। কারণ একজন সুশিক্ষিত মানুষ দেশ ও দশের সম্পদ। তবে দুঃখ হলেও সত্যি যে, আজকাল শিক্ষকরা ছাত্রদের মনোযোগ দিয়ে ক্লাসে পড়াতে চান না। কারণ তাঁরা প্রাপ্য পারিশ্রমিক পাচ্ছেন না। তাই শিক্ষকরা হয়ে উঠছেন কোচিং বাণিজ্যের ওপর নির্ভরশীল। কারণ এই কোচিং সেন্টার থেকে প্রচুর অর্থ আয় করা সম্ভব। আগেকার শিক্ষকরা অর্থ নয়, সম্মান চাইতেন। এখনকার শিক্ষকরা সম্মান নয়, অর্থ চান। অর্থ আর সম্মান দুইয়ের মাঝে ব্যাপক ব্যবধান। অর্থ চাইলে নিজে লাভবান আর সম্মান চাইলে দেশ লাভবান হয়। অর্থ যেখানে প্রধান বিবেচ্য বিষয়, নীতি বাক্য আর সম্মান সেখানে বড্ড বেমানান। আগেকার শিক্ষকরা একজন ছাত্রকে প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত করতেন। জ্ঞানের মশাল হাতে দিয়ে বের করে দিতেন। ছিল না কোন ভর্তিযুদ্ধ। কারণ লক্ষ্য ছিল একটাই মানুষ হওয়া। এখনকার উদ্দেশ্য সরকারী জেলা স্কুল, সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তিযুদ্ধ। এই যুদ্ধে জয়ী হতে না পারলে ছাত্র হিসেবে কলঙ্ক, অভিভাবকরা লজ্জিত আর শিক্ষকরা পরাজিত। এসব নেতিবাচক চিন্তায় আজ ছাত্ররা দিশেহারা। তাই ছাত্ররা আজ কোচিংনির্ভর হয়ে উঠছে। যাদের অর্থ আছে তারা না হয় কোচিংনির্ভর, আর যাদের অর্থ নেই তাদের তো ক্লাস রুম ছাড়া গতি নেই। শিক্ষকরা তো কোচিং বাণিজ্যের পক্ষে মত দেবেন। তাহলে কিভাবে লেখাপড়া ভাল হবে। স্কুল শিক্ষক কিভাবে সৎ ও ভাল থাকবেন? জাতি কিভাবে সামনের দিকে অগ্রসর হবে? দুর্গম এলাকার তো কথাই নেই। সেখানে শিক্ষকের পদধূলি মাসে একবার পড়ে। শিক্ষকরা প্রতিদিন যান না। সেখানে ওই এলাকার অল্প শিক্ষিত যুবকদের দিয়ে ক্লাস চালান। বেতনের কিছু অংশ তাদের দেন। আর মাসের শেষে গিয়ে বেতন শিটে সই করে বেতন ভোগ করেন। এই যদি হয় নীতি, তাহলে কিভাবে হবে শিক্ষিত জাতি? কিভাবে বলব মানুষ গড়ার কারিগর? আমাদের স্কুল শিক্ষকদের মানসিকতার পরিবর্তন হওয়া উচিত। জাতিকে সুশিক্ষিত করতে প্রকৃত মানুষ হতে হবে। কোচিংবাণিজ্য দূরে রেখে ক্লাসে মনোযোগী হতে হবে। বিভিন্ন অজুহাতে ছাত্রদের কাছ থেকে অর্থ সংগ্রহ বন্ধ করতে হবে। সরকারের উচিত শিক্ষকদের ভাল পারিশ্রমিক দেয়া যাতে তাঁদের চাহিদা পূরণ হয়। শিক্ষক নিয়োগবাণিজ্য বন্ধ করতে হবে। উপযুক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে সৎ, যোগ্য, মেধাবীদের শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দিতে হবে। ছাত্ররাও তখন শিক্ষককে সম্মান করতে চাইবে।

রাধানগর পাবনা থেকে