২১ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চাঁপাইয়ে প্রাণনাশের হুমকিতে পালিয়ে বেড়াচ্ছে দম্পতি

স্টাফ রিপোর্টার, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ॥ তিন মাস ধরে ঘরে আটকে রেখে তিন বন্ধু মিলে গৃহবধূকে গণধর্ষণের পর এবার হত্যার মিশন নিয়ে নেমেছে। সন্ত্রাসীদের প্রাণনাশের ভয়ে পাপিয়া (২০) ও তার স্বামী আশরাফুল ইসলাম বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। ভোলাহাট থানা এ ব্যাপারে কিছুই জানে না বলে জানালেও সন্ত্রাসীদের এজেন্টরা সার্বক্ষণিক থানার ওপর নজর রাখায় আশরাফুল অভিযোগ নিয়ে থানায় ঢোকার সাহস করছে না। কারণ পাপিয়া কিংবা স্বামী আশরাফুলকে হত্যা করার জন্য সন্ত্রাসীরা হলে হয়ে খুঁজে বেড়াচ্ছে। ঘটনাটি জেলার ভোলাহাট উপজেলার ফতেপুরের। পাড়া পড়শীদের মাধ্যমে জানা যায়, সন্ত্রাসীদের ভয়ে পাপিয়া দম্পতি পালিয়ে বেড়াচ্ছে। কয়েক মাস আগে স্বামীর এক আত্মীয়ের সঙ্গে পরিচয় হয় পাপিয়ার। তার বাড়ি শিবগঞ্জ উপজেলার ঘাইসাপাড়াতে। সমেশ মিঞার ছেলে তহব্বত দীর্ঘদিন ধরে নারী পাচারসহ কুখ্যাত চোরাকারবারি হিসেবে পরিচিত। পরিচয়ের পর থেকেই পাপিয়াকে বিদেশে মোটা বেতনে চাকরির প্রলোভন দিয়ে আসছিল। সর্বশেষ গার্মেন্টসে চাকরি দেয়ার নাম করে তহব্বত গত বছরের ২৯ ডিসেম্বর পাপিয়াকে ঢাকায় নিয়ে যায়। ঢাকাতে এক বাড়িতে আটকিয়ে রেখে তার দুই সহযোগী বন্ধু ভোলাহাট উপজেলার ফতেপুরের মৃত জমা হাজীর ছেলে মনিরুল ইসলাম ও দাউদের ছেলে শফিকুল ইসলামকে নিয়ে যৌন নির্যাতন করে। তিন মাস ধরে নরপশুদের নির্যাতনে পাপিয়া দারুণভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ে। নির্যাতনের এক পর্যায়ে ওই গৃহবধূ পাপিয়া কৌশলে একজনকে হাত করে তাঁর সহযোগিতায় সেখান থেকে পালিয়ে আসে। বাড়িতে এসে তার স্বামী ও পরিবারের লোকজনকে সব কিছু খুলে বলে। এ অবস্থায় ধর্ষণকারীরা ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের নিয়ে স্বামীর বাড়িতে হামলা চালিয়ে গৃহবধূকে পুনরায় উঠিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু এলাকাবাসীর প্রতিরোধের মুখে হামলাকারীরা পালিয়ে যাওয়ার পর থেকেই প্রাণনাশের হুমকি আসা শুরু হয়।