২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কুমিল্লায় আধিপত্যের জেরে ৪০ দোকানে তালা

  • ব্যবসায়ীরা ক্ষুব্ধ

নিজস্ব সংবাদদাতা, কুমিল্লা, ৫ আগস্ট ॥ কুমিল্লায় আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ৪০ দোকানে তালা লাগিয়ে দেয়া হয়েছে। মুরাদনগর উপজেলা সদর এলাকার গোমতী নিউমার্কেটে এ ঘটনা ঘটে। গত ছয় দিনেও এ ঘটনার সুরাহা না হওয়ায় ব্যবসায়ীদের মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। এ নিয়ে বিবদমান গ্রুপে যে কোন সময় সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন স্থানীয় এলাকার লোকজনসহ ওই মার্কেটের ব্যবসায়ীরা।

জানা গেছে, প্রায় ৩ বছর আগে মুরাদনগর থানার উত্তর পাশে একটি গর্ত ভরাট করে নির্মিত হয় গোমতী মার্কেট। ওই সময় গর্ত ভরাট, বন্দোবস্ত ও টিনশেড দোকান তৈরি বাবদ পূর্ব দখলীয় প্রতিজন দোকান মালিক থেকে ৫ লাখ ২০ হাজার টাকা করে নিয়ে সংশ্লিষ্ট দোকান মালিকদের দোকান বুঝিয়ে দেয়ার পর তারা ব্যবসা চালিয়ে আসছিলেন। এরই মধ্যে ওই মার্কেটে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে স্থানীয় এমপি ইউসুফ আব্দুল্লাহ হারুন ও কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সরকার সমর্থিত দুই গ্রুপে বিরোধের সৃষ্টি হয়। গোমতী মার্কেটের দোকান মালিকরা জানান, দুই নেতার অনুসারীদের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে গত শুক্রবার স্থানীয় এমপি সমর্থিত গোলাম মোস্তফা, উপজেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি ও বর্তমানে আওয়ামী লীগ নেতা হিসেবে পরিচিত মোস্তাক আহমেদ মাসুদ চেয়ারম্যান ও পার্থ সারথী দত্তের নেতৃত্বে ২৫-৩০ জনের একটি দল মার্কেটে গিয়ে ৪০টি দোকানে তালা ঝুলিয়ে দেয়। এ ঘটনার ৬দিন অতিবাহিত হলেও দোকান খুলে না দেয়ায় ব্যবসায়ীদের মাঝে আতঙ্ক, হতাশা ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে কেউ উদ্যোগ না নেয়ায় আমরা সীমাহীন ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে পড়েছি।

উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য সচিব ও মার্কেটের দোকান মালিক মোঃ সেলিম সরকারসহ অন্যান্য ব্যবসায়ী জানান, কোন কারণ ছাড়াই এমপি’র লোকজন হঠাৎ মার্কেটে এসে ৪০টি দোকানে তালা লাগিয়ে দিয়ে চলে যায়। এদিকে যেসব দোকানে তালা ঝুলানো হয়েছে ওইসব দোকানের মালিক দাবি করে এমপি সমর্থিত মোস্তাক আহমেদ মাসুদ চেয়ারম্যান বলেন, বন্দোবস্ত মূলে এসব দোকানের মালিক আমিসহ ৫জন। দোকানগুলোতে তালা দেয়ার পর এখন যারা দোকানের মালিক দাবি করছেন তারা যদি আগামী ৭দিনের মধ্যে বৈধ কাগজপত্র নিয়ে আসতে পারেন তাহলে তালা খুলে দেয়া হবে।

৮২ খালের অবৈধ বাঁধ অপসারণ শুরু

মংলা-ঘষিয়াখালী চ্যানেল

স্টাফ রিপোর্টার, বাগেরহাট ॥ আন্তর্জাতিক নৌরুট মংলা-ঘষিয়াখালী চ্যানেল রক্ষায় রামপালে চ্যানেল সংলগ্ন ৮২ খালের অবৈধ বাঁধ অপসারণ কাজ শুরু হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে প্রথম দফা অবৈধ বাঁধ উচ্ছেদের পর আবারও প্রবহমান খালগুলোতে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ শুরু করে প্রভাবশালীরা। এর প্রেক্ষিতে বুধবার দুপুর থেকে জেলা প্রশাসনের ৫টি মোবাইল টিম দ্বিতীয় দফায় পুনরায় অবৈধভাবে খালের উপর নির্মিত বাঁধ উচ্ছেদ শুরু করে।

রামপাল উপজেলার বাঁশতলী ইউনিয়নের স্যাদলার খালের উপর নির্মিত বাঁধ কেটে এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন বাগেরহাটের জেলা প্রশাসন মোঃ জাহাঙ্গীর আলম।

জানা গেছে, সরকারের রেকর্ডিয় খালে অবৈধ বাঁধ দিয়ে প্রভাবশালীদের চিংড়ি (মাছ) চাষের ফলে উপজেলার দুই শতাধিক খাল এখন মৃতপ্রায়। এর ফলে মংলা-ঘষিয়াখালী আন্তর্জাতিক নৌ চ্যানেলটি পলি জমে দ্রুত নাব্যতা হারাচ্ছে।

নির্বাচিত সংবাদ