২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মুশফিকের কণ্ঠে নেই বুলবুলের নাম!

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ আন্তর্জাতিক কিংবা ঘরোয়া ক্রিকেট, সবস্থানেই বাংলাদেশ দলের সাবেক অধিনায়ক আমিনুল ইসলাম বুলবুলের অবদান অনেক। ১৯৯৭ সালের আইসিসি ট্রফি জেতা অধিনায়ক। যে ট্রফি জিতে বাংলাদেশ দল বিশ্বকাপ খেলেই চলেছে। ১৯৯৮-২০০০ সাল পর্যন্ত ১৬ ওয়ানডে ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়েছেন বুলবুল। ২০০০ সালে বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট ম্যাচেই সেঞ্চুরি করেন। দেশের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরিয়ানও বুলবুল। কেউ যদি বাংলাদেশ দলের অধিনায়কদের নামগুলো উচ্চারণ করতে যান, তাহলে নির্দ্বিধায় বুলবুলের নামটি কণ্ঠে চলে আসবে। অথচ বর্তমান টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহীমের কণ্ঠে নেই বুলবুলের নাম!

ঘটনাটি ঘটেছে স্যামসাং মোবাইলের ৬ সেকেন্ডের চ্যালেঞ্জে। বন্ধু দিবসে এ চ্যালেঞ্জ নিয়ে মুশফিক তার ফ্যানপেজে একটি ভিডিও পোস্ট করেন। যেখানে ৬ সেকেন্ডে টেস্ট, ওয়ানডের অধিনায়কদের নাম একটানা বলে যান মুশফিক। তার বলা কথাগুলো ছিল এমন, ‘হাই এভরিওয়ান। স্যামসাং মোবাইল বাংলাদেশ আমাকে চ্যালেঞ্জ করেছে, ৬ সেকেন্ড চ্যালেঞ্জে অংশগ্রহণ করার জন্য। এবং আমি এটা চ্যালেঞ্জ নিয়েছি। আমি আজকে যেটা করতে যাচ্ছি, সেটা হচ্ছে; বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত অধিনায়কত্ব করেছে টেস্ট এবং ওয়ানডেতে বাই অর্ডারে, আমি এখন ৬ সেকেন্ডের মধ্যে তাদের নামগুলো বলব। লিপু ভাই, নান্নু ভাই, ফারুক ভাই, আকরাম ভাই, দুর্জয় ভাই, পাইলট ভাই, সুজন ভাই, সুমন ভাই, রাজিন ভাই, আশরাফুল, মাশরাফি, সাকিব, মুশফিক।’ সঙ্গে সঙ্গে করতালি পরে। এবং সাবাশিও দেয়া হয় মুশফিককে। এরপর মুশফিক বলেন, ‘এখন আমি চ্যালেঞ্জ করছি আমার কাজিন সিমন, আমার ফ্রেন্ড নিলয় এবং বাংলাদেশ টিমের প্লেয়ার তাসকিনকে। তোমরা তোমাদের এই এন্টারটেইনিং ভিডিওটি আপলোড কর। অবশ্যই সেটা হতে হবে ৬ সেকেন্ডের মধ্যে। এবং তোমাদের হাতে সময় আছে ২৪ ঘণ্টা।’

তাসকিন এ চ্যালেঞ্জ নেননি। নিবেনই বা কিভাবে, মুশফিক যে মস্তবড় ভুল করে ফেলেছেন। সাবাশি পেলেও চ্যালেঞ্জে যে নিজেই ফেল হয়েছেন। সব অধিনায়কের নাম নিলেও বুলবুলের নামটিই মুশফিক নেননি। অথচ ফারুক আহমেদের নাম ঠিকই নিয়েছেন মুশফিক। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশ দলকে কখনই নেতৃত্ব দেননি ফারুক আহমেদ। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে নেতৃত্ব দিয়েছেন। যদি সেই নেতৃত্ব বিবেচনা করা হয়, তাহলে রকিবুল হাসান, শফিকুল হক হীরার নামও চলে আসবে। মুশফিক তা করেননি। সাবেক ওয়ানডে অধিনায়ক গাজী আশরাফ হোসেন লিপু, মিনহাজুল আবেদীন নান্নু, ফারুক আহমেদ, আকরাম খান, টেস্ট অধিনায়ক নাঈমুর রহমান দুর্জয়, খালেদ মাসুদ পাইলট, খালেদ মাহমুদ সুজন, হাবিবুল বাশার সুমন, রাজিন সালেহ, মোহাম্মদ আশরাফুল, মাশরাফি বিন মর্তুজা, সাকিব আল হাসান ও নিজের নামও নিয়েছেন মুশফিক। কিন্তু বুলবুলের নাম না নেয়াতে স্যামসাংয়ের সঙ্গে যুক্ত হয়ে তার চ্যালেঞ্জ খুব বেশি আলোড়নও ছড়াতে পারেনি।

মুশফিক হয়ত চেয়েছিলেন, বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনে ছড়িয়ে পড়া বরফ চ্যালেঞ্জ, বলিউডের ব্যাং ব্যাং ছবির অভিনেতা ঋত্বিক রোশনের মতো চ্যালেঞ্জ ছড়িয়ে দিয়ে মাতাতে। কিন্তু গোড়াতেই ভুল থাকলে কী আর সেই চ্যালেঞ্জ কেউ নেয়। মুশফিক নিজেও ফেল মার্ক পেলেন। চ্যালেঞ্জও মাঠেই মারা পড়ল। যদিও এটা একটি খেলা। খেলা হলেও দেশের ক্রিকেটে অবদান রাখা ক্রিকেটারদের মধ্যে অন্যতম বুলবুলের নামটি বর্তমান টেস্ট দলের অধিনায়কের কণ্ঠে না থাকাটা হতাশাজনকই।

মুশফিক আবার বুধবারই দারাজ ডট কম ডট বিডির ব্র্যান্ড এ্যাম্বাসেডর হয়েছেন। দারাজ থেকে জানানো হয়, ‘মাঠে তার ব্যাপক সাফল্য ও উজ্জ্বল ভাবমূর্তির কারণে মুশকিকে বেছে নিয়েছি।’ মুশফিক জানান, ‘দারাজ ডটকম ডট বিডি’র সঙ্গে যুক্ত ও দেশের বৃহত্তম অনলাইন রিটেইলারের সাফল্যের অংশীদার হতে পেরে আমি আনন্দিত।’ রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে এ প্রতিষ্ঠানের আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে মুশফিক আসন্ন অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজ নিয়েও কথা বলেন। জানান, ‘এ্যাসেজে অস্ট্রেলিয়ার অবস্থা খুব ভাল না হলেও বাংলাদেশকে কঠিন চ্যালেঞ্জই নিতে হবে।’