১৫ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাঙালী জাতির হারানো গৌরব আবার ফিরিয়ে এনেছি

বাঙালী জাতির হারানো গৌরব আবার ফিরিয়ে এনেছি
  • শেখ কামালের ৬৬তম জন্মবার্ষিকীতে আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার মাধ্যমে যুদ্ধে বিজয়ী জাতিকে বিশ্বের কাছে ঘাতকের জাতি হিসেবে পরিণত হয়েছিল। বাঙালী জাতির সকল অর্জন ও গৌরবকে একে একে ধ্বংস করে দেয়া হয়েছিল। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর বাঙালী জাতির সেই হৃতগৌরব আবার ফিরিয়ে এনেছি। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের অর্থনৈতিক মুক্তি এবং ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ বিনির্মাণে কাজ করে যাচ্ছি। এ লক্ষ্যে ইতোমধ্যে আমরা অনেক অর্জন করেছি, এখনও অনেক বাকি আছে। ইনশা আল্লাহ বাংলাদেশকে আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে তুলব।

বুধবার বিকেলে ধানম-িস্থ আবাহনী মাঠ প্রাঙ্গণে ক্লাবটির প্রতিষ্ঠাতা ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠ পুত্র শহীদ শেখ কামালের ৬৬তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাখতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী শেখ কামালের ব্যক্তিজীবনের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তিনি বলেন, শেখ কামাল আমার দু’বছরের ছোট হলেও সে ছিল আমার খেলার সাথী, ঝগড়াঝাটি-মারামারিসহ সবকিছুর সঙ্গী। একজন প্রধানমন্ত্রী ও জাতির পিতার সন্তান হলেও অত্যন্ত সাদামাটা জীবন যাপন করত শেখ কামাল। কোন লোভ-লালসা ছিল না তার। তার একটিমাত্রই লক্ষ্য ছিল ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনের উন্নয়ন। আমৃত্যু শেখ কামাল তা করে গেছে।

আবাহনী লিমিটেড আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ঐতিহ্যবাহী এই ক্রীড়া সংগঠনটির চেয়ারম্যান ও দেশের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সালমান এফ রহমান। বিকেল চারটায় অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশ করেই প্রথমে প্রধানমন্ত্রী আবাহনী লিমিটেডের সকল পরিচালক ও কর্মকর্তাকে সঙ্গে নিয়ে সেখানে প্রতিষ্ঠিত শেখ কামালের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। এরপর ক্লাব প্রাঙ্গণে নির্মিতব্য শেখ কামাল বয়সভিত্তিক একাডেমির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। অনুষ্ঠানে বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী ক্রীড়া সংগঠক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও রাজনীতিক শেখ কামালের জীবনভিত্তিক একটি প্রমাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন আবাহনী লিমিটেডের পরিচালক ও বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন এমপি, কাজী নাবিল আহমেদ এমপি, বিশিষ্ট শিল্পপতি অঞ্জন চৌধুরী পিন্টু, সাবেক এমপি হারুন অর রশিদ, আবাহনী সমর্থক গোষ্ঠীর সভাপতি মীর নিজামউদ্দিন আহমেদ ও স্থানীয় সংসদ সদস্য বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্য ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস। স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানে আবাহনী মাঠ প্রাঙ্গণে নির্মিতব্য আন্তর্জাতিক মানের শেখ কামাল ক্রীড়া কমপ্লেক্সের ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন সালমান এফ রহমান ও নাজমুল হাসান পাপন।

প্রতিবারের মতো এবারও ক্রীড়া ক্ষেত্রে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ৬ জনকে আবাহনী লিমিটেডের পক্ষ থেকে শেখ কামাল স্বর্ণপদক প্রদান করেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীর হাত থেকে এবার শেখ কামাল স্বর্ণপদক গ্রহণ করেন জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক মামুনুল ইসলাম, ক্রিকেটে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান, বাংলাদেশ হকি দলের অধিনায়ক অসীম কুমার গোপ, সেরা পৃষ্ঠপোষক কাজী আনিস আহমেদ, সেরা সংগঠক নাজমুল হাসান পাপন এবং আবাহনী লিমিটেডের প্রয়াত পরিচালক শামসুল ইসলাম খান। শামসুল ইসলামের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে স্বর্ণপদক গ্রহণ করেন তাঁর পুত্র প্রকৌশলী মইনুল হক শান্ত। এছাড়া আবাহনী লিমিটেডের টেবিল টেনিস দল পরপর তিনবার হ্যাটট্রিক চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় শেখ জাহাঙ্গীর আলমকে বিশেষ ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠানে স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে আক্ষেপ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের মানুষকে অসম্ভব ভালবাসতেন বঙ্গবন্ধু। এ দেশের মানুষকে স্বাধীনতা এনে দিতে তিনি সারাটা জীবন জেল-জুলুম নির্যাতন সহ্য করেছেন। অনেকেই বঙ্গবন্ধুকে সাবধান করতেন। কিন্তু বঙ্গবন্ধু কোনদিন ভাবতেও পারেননি বাঙালীর কেউ তাঁর কোন ক্ষতি করবে। যে জাতির জন্য বঙ্গবন্ধু সারাটা জীবন সংগ্রাম করলেন, ভাষা থেকে স্বাধীনতা এনে দিলেন, অর্থনৈতিক মুক্তির দিকে দেশকে নিয়ে যাচ্ছিলেন, জাতির দুর্ভাগ্য সেই বাঙালী জাতির হাতেই বঙ্গবন্ধুকে জীবন দিতে হলো। আর বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে বিজয়ী জাতিকে ঘাতকের জাতিকে পরিণত করা হলো।

সপরিবারে বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে আবেগজড়িত কণ্ঠে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ৩১ মে সবাইকে রেখে শেখ রেহানাকে নিয়ে জার্মানিতে গেলাম। মাত্র ১৫ দিনের মধ্যে সব শেষ হয়ে গেল। মাত্র এক রাতেই বাবা-মা, তিন ভাই, আত্মীয়-পরিজন সবাইকে হারালাম। তিনি বলেন, জার্মানিতে যাওয়ার আগে শেখ কামালকে জিজ্ঞাসা করলাম তোর জন্য কী আনব? অন্যরা হলে সদ্য বিবাহিত স্ত্রীর জন্য কিছু আনত বলত। কিন্তু শেখ কামাল আমার ডায়েরিতে কী আনতে হবে তা লিখে দিল। পড়ে দেখলাম শেখ কামাল লিখেছে- জার্মানি থেকে আবাহনীর খেলোয়াড়দের জন্য এ্যাডিডাস বুট আনতে হবে। এ-ই ছিল শেখ কামাল।

তিনি বলেন, শেখ কামাল ছিল বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী। পড়াশোনায় ছিল মেধাবী। পড়াশোনার পাশাপাশি সে গান, নাটক, খেলাধুলা এবং অসম্ভব সুন্দর সেতার বাজাতে পারত। রাতে যখন ৩২ নম্বর বাসার তিনতলায় শেখ কামাল একমনে সেতার বাজাত, সেই সেতারের সুমধুর ঝংকার যেন ধানম-ির ওই এলাকার প্রতিটি জিনিসকে আলোড়িত করত। তিনি বলেন, শেখ কামাল একজন দক্ষ রাজনৈতিক কর্মীও ছিল। ঢাকা কলেজে পড়ার সময় ঐতিহাসিক ৬ দফার আন্দোলনসহ প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে সে ছিল সর্বাগ্রে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের একজন দক্ষ সংগঠক ছাড়াও মুক্তিযুদ্ধের সময় শেখ কামাল জেনারেল ওসমানীর এডিসিরও দায়িত্ব পালন করেছে। স্বাধীনতার পর শেখ কামাল সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়েছিল এবং ক্যাপ্টেনের দায়িত্বও পালন করেছে। কিন্তু মা’র (ফজিলাতুন্নেছা মুজিব) ইচ্ছা ছিল শেখ কামালকে পড়াশোনা শেষ করাতে। তাই মার ইচ্ছায় শেখ কামাল সেনাবাহিনীর চাকরি ছেড়ে দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অনার্স পাস করে মাস্টার্সে ভর্তি হয়। কিন্তু তার মাস্টার্স পাস করা হয়নি, তার আগেই ঘাতকদের হাতে তাকেও বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে জীবন দিতে হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধু পরিবারের প্রতিটি সদস্যই ছিল ক্রীড়ামোদী। আমার দাদা ছিলেন খেলোয়াড়, বাবাও খেলা-ধুলা করেছেন। শেখ কামাল, শেখ জামাল ও তাদের স্ত্রীরাও ক্রীড়ার সঙ্গে জড়িত ছিল। শেখ কামালই বাংলাদেশে আধুনিক ফুটবলের জন্ম দিতে ঐতিহ্যবাহী আবাহনী ক্রীড়াচক্র প্রতিষ্ঠা করে গেছে। তিনি বলেন, একটি সমাজকে উন্নয়ন করতে হলে সেই সমাজে শিশু-কিশোর কিংবা যুবকদের চরিত্র সুন্দরভাবে গড়ে তুলতে হয়। সততার সঙ্গে চলবে, সৎসঙ্গে চলবে, বিশ্বের কাছে নিজেদের উপযুক্ত করে গড়ে তুলবে। এদিক লক্ষ্য রেখেই শেখ কামাল ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে আমৃত্যু কাজ করে গেছে।

প্রধানমন্ত্রী চরম দুঃসময়েও আবাহনী ক্রীড়া চক্রকে টিকিয়ে রাখতে জড়িতদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, এই আবাহনীকে টিকিয়ে রাখতে অনেককে অনেক ঝড়ঝাপটা সহ্য করতে হয়েছে। এখানে আন্তর্জাতিক মানের শেখ কামাল ক্রীড়া কমপ্লেক্স গড়ে তোলা হচ্ছে। এটা হলে শুধু এই এলাকার জনগণই নয়, গোটা দেশের মানুষই ক্রীড়াক্ষেত্রে উপকৃত হবে। এই অত্যাধুনিক ক্রীড়া কমপ্লেক্স গড়ার কাজে আবাহনী ভক্ত ও অনুরাগীদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।