২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

যুক্তরাজ্যের প্রতিষ্ঠান এসএলআই আসছে ৯ আগস্ট

  • ফ্র্যাঞ্চাইজি ফুটবল লীগ আয়োজন

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ কয়েক মাস আগে ভারতের সেলিব্রেটি ম্যানেজম্যান্ট (সিএমজি) গ্রুপ বাংলাদেশে এসে প্রস্তাব দিয়েছিল প্রথম ফ্র্যাঞ্চাইজি ফুটবল লীগ আয়োজনের। এ নিয়ে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সঙ্গে কথা বললেও তাদের কার্যক্রমের নতুন কোন খবর নেই। তবে এবার নতুনভাবে এই লীগ আয়োজনে বাফুফের সঙ্গে কাজ করতে চাচ্ছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক ফুটবল ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান সকার লীগ ইন্টারন্যাশনাল (এসএলআই)।

এ বিষয়ে বাফুফের সঙ্গে আলোচনা করতে এসআইএল-এর দুই সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল আগামী ৯ আগস্ট বাংলাদেশে আসছে। দলে থাকবেন বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ কবির ও উর্ধতন আরেক কর্মকর্তা জেমস জোনাথন। ওইদিন সিলেটে সাফ অনূর্ধ-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের জন্য সিলেটে অবস্থানরত বাফুফে কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্রাথমিক আলোচনা করবেন কবির-জোনাথন। পরদিন ঢাকায় এসে বাফুফে সভাপতি কাজী মোঃ সালাউদ্দিনের সঙ্গে সাক্ষাত করবেন তারা।

ইন্ডিয়ান সুপার লীগের (আইএসএল) আদলে বাংলাদেশে এই লীগের নাম হবে বাংলাদেশ সুপার সকার লীগ (বিএসএসএল)। লীগ আয়োজন ছাড়াও বাফুফের সঙ্গে অন্য আরও কাজের পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করবেন তারা। যেমন : বাংলাদেশের ফুটবলের জন্য নতুন অবকাঠামো তৈরি, বাণিজ্যিক ও অর্থনৈতিক মডেল নির্ধারণ, ফ্র্যাঞ্চাইজির শেয়ার, শিক্ষামূলক প্রোগ্রাম ইত্যাদি। শেষোক্ত প্রজেক্টটির মাধ্যমে এদেশের শিক্ষার্থীরা যুক্তরাজ্যে পড়াশোনার সুযোগ পাবে। লীগে অংশ নেয়া ক্লাবগুলোর শেয়ারের কিছু অংশ এদেশের সমর্থকদের মধ্যে ছাড়ার পরিকল্পনা রয়েছে এসএলআইয়ের। এতে মাঠে খেলা দেখতে দর্শকরা স্বতঃস্ফূর্তভাবেই হাজির হবেন বলেই আশাবাদী এসএলআই। প্রয়োজনে বলিউড চিত্রতারকাদেরও বাংলাদেশ আনার ব্যবস্থা করবে তারা।

লীগ আয়োজনে বাংলাদেশের কোন স্পন্সর না পেলেও চলবে তাদের। কেননা তাদের সঙ্গে বৈশ্বিক অনেক প্রতিষ্ঠানের স্পন্সরশিপ চুক্তি রয়েছে। তবে এ ধরনের লীগ আয়োজনের অভিজ্ঞতা তাদের না থাকলেও বাংলাদেশে তারা সফল হতে বদ্ধপরিকর। সেটাতে সক্ষম হলে বিশ্বের অন্যান্য দেশেও এ রকম লীগ আয়োজিত হবে বলে মনে করে প্রতিষ্ঠানটি। এই লীগ আয়োজনে বাফুফে ছাড়াও বাংলাদেশ সরকারের সহযোগিতা লাগবে তাদের। সামগ্রিকভাবে সব পরিকল্পনা বাস্তবে রূপ নিলে এদেশের ফুটবল লাভবান হবে বলেই মনে করছেন বাফুফের কর্মকর্তারা।