১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আন্দোলন করে লাভ নেই- শাহজাহান খান

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥ আন্দোলনরত ড্রাইভার ও মালিকদের উদ্দেশ্যে নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খান বলেছেন, আন্দোলন করে লাভ নেই। সিদ্ধান্ত অনড় থাকবে। প্রধান সড়কে ধীর গতির যানবাহন চলাচলের কারণেই দুর্ঘটনা হয়। দেশের মানুষের জান-মাল রক্ষার প্রশ্নে কোনো আপোষ নেই।

বৃহস্পতিবার সকালে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েটের) এক্সিডেন্ট রিসার্চ ইনিস্টিটিউটের উদ্যোগে আয়োজিত দুইদিনব্যাপী এক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন। ’প্রমোটিং রোড সেফটি ফর চিলড্রেন’ শীর্ষক এই কর্মশালায় রোড সম্পর্কে শিশুদের সচেতন করে তোলাসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কয়েকটি সেশন অনুষ্ঠিত হবে। আগামীকাল শেষ দিনে শিক্ষাক্রমে অর্ন্তভূক্তির জন্য শিশুদের উদ্দেশ্যে লেখা সড়ক নিরাপত্তা বই নিয়ে নির্ধারিত প্যানেলে আলোচনা হবে।

এসময় শাহজাহান খান আরও বলেন, সরকারের এই সিদ্ধান্তকে সবার স্বাগত জানানো উচিত। অনেকেই না বুঝে আন্দোলন করছেন। সবাই যখন তাদের ভুল বুঝতে পারবে তখন আস্তে আস্তে আন্দোলন স্মিমিত হয়ে যাবে। মানুষের জীবনও রক্ষা পাবে। জাতীয়, আঞ্চলিক, জেলা, ¯’ানীয়সহ সব ¯’ানর অধীনে বাংলাদেশে আড়াই লাখ কিলোমিটার সড়ক রয়েছে। এর মাত্র তিন হাজার ৫৭০ কি.মি. জাতীয় মহাসড়কে তিন চাকার যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। জাতীয় মহাসড়ক বাদে বাকি সব সড়কেই তিন চাকার যান চলতে পারবে। এই সড়কগুলোকে সরকারের সহায়তায় আরও চলাচলের উপযোগী করে গড়ে তোলা হ”েছ। দেশে দুর্ঘটনার প্রবণতা অনেক কমেছে। সামনে এই হারকে আরও কমিয়ে আনা সম্ভব।

বিশ্বব্যাংকের কড়া সমালোচনা করে মন্ত্রী বলেন, কয়েকদিন পর পরই বিভিন্ন মনগড়া তথ্য দিয়ে আমাদের উপরে দোষ চাপিয়ে দেয়া হয়। ড্রাইভারদের কারণেই শুধু দুর্ঘটনা ঘটে না। রাস্তার নির্মাণ শৈলির ত্রুটির জন্যও দুর্ঘটনা ঘটে। তাই ড্রাইভারদের ফাঁসির দাবি করলে ইঞ্জিনিয়ারদেরও অর্ন্তভূক্ত করা উচিত। পরিসংখ্যান তুলে ধরে জনগণকে বিভ্রান্ত করাই বিশ্বব্যাংকের কাজ। এরা আমাদেরকে পদ্মাসেতু প্রকল্পে অর্থ সহায়তা দেয়নি। এদের কাছ থেকে ভালো কিছু কিভাবে আশা করা যায়। এই সং¯’াগুলো এই পরিবহন ও নৌ সড়ককে মানুষের কাছে শত্রু হিসেবে চিহ্নিত করে যা”েছ। এটি একটি ভীষণ খারাপ দিক।

সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, দেশের এই গুরুত্বপূর্ণ সেক্টরের উন্নয়নকে ত্বরাণি¦ত করতে আপনাদের ভূমিকা অনস্বীকার্য। তবে অনেক সাংবাদিক তাদের প্রতিবেদনে ভুল-ভাল তথ্য দিয়ে সরাসরি আমাদেরকে দোষারোপ করে যা”েছ। আমাদের বক্তব্য হ”েছ তথ্যগুলো সঠিকভাবে তুলে ধরুন। তথ্য নিয়ে আমি আপনাদের সাথে যেকোনো ধরনের আলোচনায় বসতে রাজি আছি। জনগণকে বিভ্রান্ত না করে আসুন সমস্যার সমাধানে একসাথে কাজ করি।

বুয়েট ভিসি অধ্যাপক খালেদা একরামের সভাপতিত্বে কর্মশালার উদ্বোধনী অংশে আরও বক্তব্য রাখেন শিক্ষা সচিব নজরুল ইসলাম থান, সড়ক পরিবহন ও সেতু সচিব এম এ এন সিদ্দিক। উপ¯ি’ত ছিলেন একসিডেন্ট রিসার্চ ইনিস্টিটিউটের (এআরআই) ভারপ্রাপ্ত পরিচালক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মাহবুব আলম তালুকদার, এডভোকেট আবদুল হামিদ হাওলাদর প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ইনিস্টিটিউটের শিক্ষক সহকারী অধ্যাপক আরমানা সাবিহা হক।