১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ইন্ডিয়া ইনভেস্ট্র্রেড এক্সপো শুরু

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বিদ্যমান বাণিজ্যিক ও কানেক্টিভিটির সুবিধা যৌথভাবে কাজে লাগিয়ে দু’দেশকে এশিয়ার প্রবৃদ্ধির কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা সম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। তিনি বলেন, দু’দেশের মধ্যে সম্পাদিত স্থল সীমানা চুক্তি এক্ষেত্রে বিরাট সুযোগ এনে দিয়েছে।

ইন্ডিয়ান চেম্বার অব কমার্স (আইসিসি) আয়োজিত ইন্ডিয়া ইনভেস্ট্র্রেড-২০১৫ এর উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু এ কথা বলেন। ইন্ডিয়া-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (আইবিসিসিআই)-এর সহায়তায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বৃহস্পতিবার এ অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ইন্ডিয়া ইনভেস্ট্র্রেড-২০১৫ এর চেয়ারম্যান নয়নতারা পাল চৌধুরী। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার পঙ্কজ শরণ। অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে এফবিসিসিআই’র পরিচালক সাফকোয়াত হায়দার, ডিসিসিআই’র সভাপতি হোসাইন খালেদ এবং আইবিসিসিআই’র মোহাম্মদ আলী আলোচনায় অংশ নেন।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বিনিয়োগের জন্য একটি আকর্ষণীয় স্থান। বর্তমান সরকার দেশী-বিদেশী বিনিয়োগকারীদের জন্য উদার বিনিয়োগ ও শিল্পনীতি গ্রহণ করেছে। এ নীতির আওতায় বিনিয়োগকারীদের আকর্ষণীয় ইনসেনটিভ দেয়া হচ্ছে। তিনি বাংলাদেশ সরকার প্রদত্ত এসব সুবিধা নিয়ে বিনিয়োগে এগিয়ে আসতে ভারতীয় উদ্যোক্তাদের পরামর্শ দেন। উদ্যোক্তাদের মাঝে স্থিতিশীল ও বিশ্বাসযোগ্য সম্পর্ক দু’দেশের মধ্যে বিনিয়োগ ও শিল্পায়ন প্রক্রিয়া জোরদারে সহায়তা করবে। ভারতের সঙ্গে বাণিজ্য সম্পর্ক জোরদারের মাধ্যমে বাংলাদেশে সাশ্রয়ী অর্থনীতি গড়ে তোলা সম্ভব। দু’দেশের মধ্যে বাণিজ্য ঘাটতি কমাতে তিনি বাংলাদেশের রফতানি পণ্য বৈচিত্র্যকরণের পাশাপাশি উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির তাগিদ দেন। উল্লেখ্য, তিন দিনব্যাপী আয়োজিত ইন্ডিয়া ইনভেস্ট্র্রেড-২০১৫ এ ৬০টি স্টল স্থান পেয়েছে। এসব স্টলে ভারতের উদ্যোক্তাদের তৈরি জ্বালানি, বৈদ্যুতিক পণ্য ও সরঞ্জাম, শিল্প যন্ত্রপাতি প্রদর্শিত হচ্ছে। এ প্রদর্শনী প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।