২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সৌদি মসজিদে আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহত ১৫

  • আইএসের দায় স্বীকার

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ সৌদি আরবের দক্ষিণাঞ্চলীয় আবহা শহরের এক মসজিদে বৃহস্পতিবার আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিরাপত্তা বাহিনীর ১৫ জন সদস্য নিহত হয়েছেন। জঙ্গী সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস) এ হামলার দায় স্বীকার করেছে। মসজিদটিতে নিরাপত্তা বাহিনীর লোকজন নামাজ আদায় করেন বলে খবরে বলা হয়েছে। খবর বিবিসি ও আলজাজিরা অনলাইনের।

সৌদি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, আত্মঘাতী বোমা হামলায় ১৫ জন নিহত হয়েছেন। এর আগে রাষ্ট্রীয় রাষ্ট্রীয় টিভি চ্যানেল আল আখবারিয়া ১৭ জন নিহত হন বলে জানিয়েছিল। আত্মঘাতী বোমা হামলাকারীর শরীরের সঙ্গে বাঁধা বিস্ফোরকভর্তি ব্যাগের মাধ্যমে বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এর আগেই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র জানান, আত্মঘাতী হামলায় ১৩ জন নিহত হয়েছে এবং আরও নয়জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা গুরুতর। নিহতদের মধ্যে তিনজন মসজিদের কর্মচারী বলে তিনি নিশ্চিত করেন। আইএস এ হামলার দায় স্বীকার করেছে। এর আগে এ বছর মে ও জুলাই মাসে চালানো দুটো সন্ত্রাসী হামলার দায়ও স্বীকার করেছিল উগ্র জঙ্গী সংগঠনটি।

ওই মুখপাত্র আরও বলেন, নামাজ আদায় করার সময় ওই আত্মঘাতী হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় ১০ পুলিশ সদস্য এবং তিনজন কর্মচারী নিহত হয়। তিনি বলেন, ধারণা করা হচ্ছে একজন আত্মঘাতী এই হামলা চালিয়েছে। শরীরের বিভিন্ন অংশ বিভিন্ন জায়গায় পড়ে থাকায় ধারণা করা হচ্ছে শরীরে বাঁধা বিস্ফোরকভর্তি ব্যাগের মাধ্যমে এ হামলা চালানো হয়েছে। কর্মকর্তারা বলেন, সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত ‘স্পেশাল ওয়েপন্স এ্যান্ড ট্যাকটিস (সোয়াট)’ বাহিনীর সদস্যরা মসজিদটিতে নামাজ আদায় করেন। এই আত্মঘাতী হামলাটি কারা চালিয়েছে তা স্পষ্ট নয়। আছির প্রদেশের আমির হামলায় আহতদের দেখতে হাসপাতালে যান। তিনি তাদের খোঁজখবর নেন এবং উন্নত চিকিৎসার জন্য নির্দেশ দেন। রাজনৈতিক বিশ্লেষক জামাল খাশুজি বলেন, এই হামলার পেছনে যদি আইএসের হাত থাকে তবে এটা হবে সৌদি আরবের অভ্যন্তরে তাদের সবচেয়ে বড় হামলা। তিনি আলজাজিরাকে বলেন, আইএস আমাদের সঙ্গে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে। এই হামলার মাধ্যমে তারা আমাদের একটা ঝাঁকুনি দিয়ে দিল।

বৃহস্পতিবারের হামলাটি সাম্প্রতিক সৌদি নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর সবচেয়ে ভয়াবহ হামলা হিসেবে দেখা হচ্ছে। এসব হামলার জন্য দেশটি ইসলামিক স্টেট জঙ্গীদের দায়ী করে আসছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, জুলাইয়ের মাঝামাঝি রাজধানী রিয়াদে নিরাপত্তা চৌকিতে গাড়ি বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। ওই হামলায় এক ড্রাইভার নিহত এবং দুই পুলিশ সদস্য মারাত্মক আহত হন। এর আগে পুলিশ জানায়, দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের তাইফে জুলাইয়ের ৩ তারিখে একটি অভিযানের সময় এক পুলিশ সদস্যকে গুলি করে হত্যা করা হয়। ওই অভিযানে তিনজনকে গ্রেফতার করা হয় এবং আইএসের পতাকা উদ্ধার করা হয়। এর আগে গত মে মাসে একটি শিয়া মসজিদ হামলার ঘটনা ঘটে। ওই হামলার দায় স্বীকার করে আইএস গ্রুপ। প্রতিবেশী দেশ ইয়েমেনের শিয়া বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে প্রচার চালিয়ে আসছে সৌদি আরব। গত মাসে সৌদি কর্তৃপক্ষ দেশের বিভিন্ন জায়গায় মসজিদ ও নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর হামলা পরিকল্পনার অভিযোগে সন্দেহভাজন ৪৩১ আইএস জঙ্গীকে গ্রেফতার করে।