২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কোরবানির পশু যত্রতত্র জবাই করা যাবে না

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নাগরিক দুর্ভোগ লাঘবে আসন্ন পবিত্র ঈদ-উল-আযহায় কোরবানির পশু জবাইয়ে বিশেষ নির্দেশনা প্রদান করেছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। স্কুল ও খেলার মাঠ এবং উন্মুক্ত স্থানসহ নির্দিষ্ট কিছু স্থানে পশু জবাই করতে সারাদেশের ৩২৩টি পৌরসভা ও ১১টি সিটি কর্পোরেশনকে এ নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এ নির্দেশনা বাস্তবায়নে পশু জবাইকারী, মসজিদের ইমামসহ কসাইদেদর ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য হবে। নির্দেশনা বাস্তবায়নে নাগরিকদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানানো হয়েছে। নাগরিক দুর্ভোগ লাগবে কম স্থানে অধিক সংখ্যক লোক একত্রে হয়ে পশু কোরবানি দেয়ার জন্য এ নির্দেশনা জারি করা হয়েছে বলে জানা গেছে। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠক শেষে স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব আবদুল মালেক সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

সচিব বলেন, ঈদ-উল-আযহায় ছড়িয়ে-ছিটিয়ে কোরবানির পশু জবাই করতে দেখা যায়। এবার সারাদেশের ৩২৩ পৌরসভা ও ১১ সিটি কর্পোরেশনকে এ বিষয়ে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। নির্দেশনায় স্কুল বা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাঠ, খেলার মাঠ বা উন্মুক্ত স্থানে পশু জবাই করতে বলা হয়েছে। এক্ষেত্রে একটি এলাকার লোকেরা তাদের কোরবানির পশু একটি স্থানে জড়ো করে জবাই করতে পারেন। পাশাপাশি এ নির্দেশনা মানতে ইমামদেরও অবহিত করা হয়েছে। কোরবানির পশু জবাইয়ের ক্ষেত্রে কসাইদের কাছেও এ নির্দেশনা পাঠানো হবে। এছাড়া ঈদে নিরাপত্তা ব্যবস্থা যেন বিঘিœত না হয় সেজন্য পুলিশ-আনসারসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকেও প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়া হবে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বা খেলার মাঠ এবং উন্মুক্ত স্থানে একই এলাকার অনেক পশু জবাই হলে নগর বা পৌর কর্তৃপক্ষের বর্জ্য সরাতে সুবিধা হবে। এছাড়া ঈদ-পরবর্তী পশুর চামড়া বেচাকেনায়ও সুবিধা হবে। বিগত কোরবানির ঈদগুলোতে দেখা গেছে, বাসার সামনের রাস্তায়-গলিতে বা যত্রতত্র পশু জবাইয়ের কারণে অনেকদিন ধরে দুর্গন্ধ-ময়লা ছড়িয়েছিল। এবার সে পরিস্থিতি এড়াতে এমন পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এর গে, সচিবালয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয়ের আরেকটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সে বৈঠকে রেলপথ-নৌপথে মলমূত্র ত্যাগ বন্ধে বিশেষ কন্টেইনার ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। আর এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে একটি টেকনিক্যাল কমিটিও গঠন করা হয়।

নির্বাচিত সংবাদ