১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বগুড়ায় জামায়াতের কেন্দ্রীয় নেতাসহ জেলা সেক্রেটারি গ্রেফতার ॥ ৩৫ হাতবোমা উদ্

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নেতা ও জেলা জামায়াতের সাবেক আমীর মোঃ গোলাম রব্বানী এবং বগুড়া জেলা জামায়াতের সেক্রেটারি অধ্যাপক মোঃ নাজিম উদ্দিনকে শহরের চকলোকমান থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের বাড়ি তল্লাশি করে ৩৫টি হাতবোমা উদ্ধার করা হয়। এছাড়া গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী থেকে রেজাউল করিম নামে এক জামায়াত নেতা এবং গাইবান্ধার সাঘাটা থেকে এক জামায়াত নেতাসহ তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়। বুধবার রাত ও বৃহস্পতিবার তাদের গ্রেফতার করা হয়। খবর স্টাফ রিপোর্টার ও নিজস্ব সংবাদদাতাদের।

পুলিশ জানায়, এ বছরের শুরুতে বগুড়ায় অবরোধের সময় পেট্রোলবোমা হামলা চালিয়ে নাশকতা এবং ২০১৩ সালের মার্চে জামায়াত নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে চাঁদে দেখার গুজব ছড়িয়ে হত্যা, নাশকতা, অগ্নিসংযোগ, ভাংচুর চালিয়ে তা-ব ও ত্রাস সৃষ্টির হোতা এবং পরিকল্পনাকারী ছিলেন জামায়াত নেতা গোলাম রব্বানী ও নাজিম উদ্দিন। আগামীতে আরও বড় ধরনের নাশকতা ঘটানোর লক্ষ্যে তারা হাতবোমা মজুদ করেছিল। তাদের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ডিবি পুলিশ, বগুড়া সদর ও শাহজাহানপুর থানা পুলিশ যৌথভাবে শহরের চকলোকমানে ওই দুই ব্যক্তির বাড়িতে অভিযান চালায়। প্রথমে জামায়াতে ইসলামের কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদের সুরা সদস্য, কেন্দ্রীয় শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের সহ-সভাপতি ও বগুড়া জেলা জামায়াতের সাবেক আমীর মোঃ গোলাম রব্বানীর (৬০) বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। এ সময় রব্বানীর বৈঠকখানার সিলিংয়ের ওপরে ব্যাগের ভেতরে ২০টি হাতবোমা পাওয়া যায়। একই সময়ে জেলা জামায়াতের সেক্রেটারি অধ্যাপক মোঃ নাজিম উদ্দিনের (৫৮) বাড়িতে অভিযান চালিয়ে রান্নাঘরের টিনের চালার ওপরে ১৫টি তাজা হাতবোমা (ককটেল) পাওয়া যায়। উভয়কে আটকের পর তাদের বিরুদ্ধে পূর্বের মামলার সঙ্গে বিস্ফোরক আইনে মামলা দায়ের করা হয়।

এ বিষয়ে পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান জানান, শহরে বড় ধরনের নাশকতার পরিকল্পনা করছিলেন তারা। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। প্রয়োজনে আদালতে হাজির করে তাদের আরও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড চাওয়া হবে।

গোপালগঞ্জ ॥ কাশিয়ানীতে রেজাউল করিম নামে এক জামায়াত নেতাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে সাতটায় কাশিয়ানীর জয়নগর বাজার এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি মহেশপুর ইউনিয়ন জামায়াতের সেক্রেটারি। তার বিরুদ্ধে কাশিয়ানী থানায় বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে। গ্রেফতার এড়াতে তিনি পালিয়ে ছিলেন। বুধবার রাতে গোপনে জয়নগর বাজার এলাকায় এক আত্মীয়ের বাড়িতে আসেন তিনি। খবর পেয়ে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

গাইবান্ধা ॥ সাঘাটায় নাশকতা মামলার আসামি জামায়াত নেতা এনামুল হক (৫০), রানা (৩৭) ও ছাত্রদল কর্মী জুয়েলকে (২৭) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বোনারপাড়া রেলগেট এলাকা থেকে বুধবার রাতে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এনামুল সাঘাটা উপজেলা জামায়াতের সেক্রেটারি।

খুলনা ॥ খুলনা মহানগর ইসলামী ছাত্রশিবিরের সভাপতি মিম মিরাজ হুসাইনসহ জামায়াত-শিবিরের ১১৯ নেতা-কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে সোনাডাঙ্গা থানা পুলিশ নগরীর সিদ্দিকীয়া কামিল মাদ্রাসায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে। এছাড়া দৌলতপুরে জামায়াতের দুই সদস্যকে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ।

চট্টগ্রাম ॥ চট্টগ্রাম মহানগর জামায়াতে ইসলামীর আমির সাবেক সংসদ সদস্য আ ন ম শামসুল ইসলামকে ফের জেলগেটে আটক করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কোতোয়ালি থানা পুলিশ তাকে আটক করে। এ নিয়ে তিনবার তিনি জামিনে বেরিয়ে জেল গেটেই গ্রেফতার হলেন।

চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের ডেপুটি জেলার মনির হোসেন জানান, মোট ১০টি মামলা ছিল জামায়াত নেতা শামসুল ইসলামের বিরুদ্ধে। সবকটি মামলার জামিনের নথি কারাগারে পৌঁছালে যাচাই-বাছাই শেষে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার ৬টায় তাকে মুক্তি দেয়া হয়। জেলগেটে তিনি পুনরায় গ্রেফতার হন।

কুড়িগ্রাম ॥ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ওয়াহেদুন্নবী সাগরের ওপর হামলার অভিযোগে জেলা ছাত্রশিবিরের সভাপতি রাশেদুল ইসলাম রোমান, কর্মী শাহালম, জাকির হোসেন ও মমিনুলকে বেধড়ক মারপিঠ করে পুলিশের সোপর্দ করে ছাত্রলীগ। এ ঘটনায় লাঞ্ছিত হন সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জামায়াত নেতা হাবিবুর রহমান। কুড়িগ্রাম সদর থানা পুলিশ গ্রেফতারকৃতদের গত ১৭ মার্চ পাটেশ^রীতে পুলিশ-জামায়াত সংঘর্ষের মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করে। এ ব্যাপারে ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে একটি পৃথক মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানান জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সফিকুল ইসলাম শাকিব।