২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পাকিস্তান ক্রিকেট লীগে খেলবেন সাকিব ও তামিম!

  • খেলা হবে কাতারের দোহায়

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ যে দেশই কোন টি২০ লীগ আয়োজন করুক, সেখানে বাংলাদেশের এক ক্রিকেটারের নাম থাকছেই। তিনি বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তার সঙ্গে আরেকটি নামও উচ্চারণ হয়। তিনি তামিম ইকবাল। যদিও শেষপর্যন্ত সব লীগে খেলতে পারেন না তামিম। তবে বিশ্ব টি২০ লীগগুলো ধাপিয়ে বেড়াচ্ছেন সাকিব। এবার পাকিস্তান যখন টি২০ লীগ (পাকিস্তান সুপার লীগ) আয়োজনের চেষ্টা চালাচ্ছে, সেখানেও আছে সাকিব আল হাসানের নাম। সঙ্গে তামিম ইকবালের নামও শোনা যাচ্ছে।

ভারতের আইপিএল হোক, অস্ট্রেলিয়ার বিগব্যাশ হোক, ইংল্যান্ডের কাউন্টি ক্রিকেট হোক, ওয়েস্ট ইন্ডিজের সিপিএল হোক কিংবা নিজ দেশের বিপিএল হোক, সাকিবের বিচরণ আছেই। এবার পাকিস্তানের লীগ থেকেই বা তার নাম বাদ যায় কিভাবে? ক্রিকেট.কম নামের পাকিস্তানের একটি ক্রিকেট বিষয়ক গণমাধ্যম জানিয়েছে, পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) টি২০ ম্যাচের এই লীগ আয়োজনের জন্য গোটা বিশ্ব থেকেই কয়েকজন ক্রিকেটারকে প্রস্তাব দিয়েছেন। তাদের মধ্যে আছেন বাংলাদেশের সাকিব। এরইমধ্যে নাকি পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) সাকিবের সম্মতিও পেয়েছে। এখন বাংলাদেশ থেকে তামিমকেও রাজি করানোর চেষ্টা চলছে। শুধু সাকিবই নন, পাকিস্তানের লীগ খেলতে রাজি হয়েছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিস গেইল, শ্রীলঙ্কার কুমার সাঙ্গাকারা, দক্ষিণ আফ্রিকার জ্যাক ক্যালিসও। রাজি করানোর চেষ্টা চলছে তামিম ইকবাল, দক্ষিণ আফ্রিকার উইকেটরক্ষক কুইনটন ডি কক, ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাইরন পোলার্ড ও জিম্বাবুইয়ের হ্যামিল্টন মাসাকাদজাকে। পিসিবির সূত্রের বরাত দিয়ে এমনটিই জানিয়েছে ক্রিকেট.কম.পিকে। পাকিস্তানের এ ক্রিকেট লীগ অনুষ্ঠিত হবে কাতারে। সেই চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পিসিবি। আগামী বছর ১১ মার্চ থেকে ৩ এপ্রিল ভারতে অনুষ্ঠিত হবে টি২০ বিশ্বকাপ। এর আগে পিসিবি এ টি২০ লীগ আয়োজন করতে চাচ্ছে। ফেব্রুয়ারিতে এ লীগ আয়োজনের প্রস্তাবনা আছে। সাকিব ও তামিম এ লীগে থাকলেও খেলতে না পারার সম্ভাবনাই বেশি। জানুয়ারিতে সিরিজ খেলতে বাংলাদেশে আসবে জিম্বাবুইয়ে। সিরিজ শেষ হবে ফেব্রুয়ারিতে। ফেব্রুয়ারিতে যদি কাতারে পাকিস্তানের লীগ হয়, তাহলে সাকিব-তামিমের না খেলার সম্ভাবনাই থাকছে। এখনও অবশ্য কোন কিছুই চূড়ান্ত নয়। এর আগেও পাকিস্তানের লীগ হবে হবে করে যে আর হয়নি। তবে লীগটি হলে আকর্ষণই কুড়াবে। টি২০ বিশ্বকাপের আগেই যে হচ্ছে। তাই টি২০ খেলার সঙ্গে মানিয়ে নেয়ার সুযোগও পেয়ে যাবেন ক্রিকেটাররা।

টি২০ লীগ আয়োজনে শেষ পর্যন্ত কাতারের দ্বারস্থ হতে হচ্ছে পাকিস্তানকে। ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে অনুষ্ঠিতব্য নিজস্ব এ ফ্র্যাঞ্জাইজভিত্তিক টি২০ লীগ দোহায় আয়োজন করতে চায় বলে কাতারের কাছে প্রস্তাব দিয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। এখন পর্যন্ত অবশ্য কোন নিশ্চয়তা মিলেনি। ২০০৯ সাল থেকে এক রকম নিজ ভেন্যু বনে যাওয়া সংযুক্ত আরব আমিরাতে পাকিস্তান সুপার লীগ (পিএসএল) আয়োজন করা হবে বলে প্রথম ঘোষণা দিয়েছিল পিসিবি। এমিরেটস ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি) সঙ্গে এ নিয়ে আলোচনাও চলে। কিন্তু সেই আলোচনা ব্যর্থ হওয়ার পর কেবলমাত্র দেশের ক্রিকেট স্টেডিয়ামগুলোকে সংস্কারের কথা জানিয়ে কাতার অলিম্পিক এ্যাসোসিয়েশনের মাধ্যমে একটি আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব দিয়েছে পিসিবি। প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিতব্য টুর্নামেন্টের বিকল্প ভেন্যু হিসেবে দোহায় যাচ্ছে পাকিস্তান। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড ২০০৮-০৯ সালে প্রথমবার ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগ আয়োজন করে। তাদের অনুকরণে ফ্র্যাঞ্জাইজিভিত্তিক পিএসএল আয়োজন করতে যায় পিসিবি। ইতোপূর্বে কয়েকবার উদ্যাগ নিয়েও নিরাপত্তার কারণে তা আয়োজন করতে পারেনি পিসিবি। ২০০৯ সালে লাহোরে শ্রীলঙ্কা দল বহনকারী বাসে সন্ত্রাসী হামলার পর থেকে পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট নিষিদ্ধ হলে সংযুক্ত আরব আমিরাতকেই নিজেদের দ্বিতীয় হোম ভেন্যু হিসেবে বিবেচনা করে আসছিল পাকিস্তান। আগামী ফেব্রুয়ারি মাসে মাস্টার্স চ্যাম্পিয়ন্স লীগের (এমসিএল) জন্য ইতোমধ্যেই বুকড হয়ে গেছে উল্লেখ করে নিজেদের তিন মাঠ ভাড়া দিতে পিসিবির প্রস্তাবে অপারগতা প্রকাশ করে ইসিবি। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নেয়া খেলোয়াড়দের নিয়ে অনুষ্ঠিত হবে মাস্টার্স চ্যাম্পিয়ন্স লীগ। তাই ইসিবি যখন পাকিস্তানের প্রস্তাব গ্রহণ করতে অপারগতা জানায়, পিসিবি কাতারের দ্বারস্থ হয়। যে অবস্থা দেখা যাচ্ছে, তাতে লীগ হয়েও যেতে পারে। তখন এক দুটি ম্যাচের জন্য হলেও সাকিব-তামিমকে লীগে খেলতে দেখা যেতে পারে।