১৬ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বার্সিলোনা চ্যাম্পিয়ন রোমাকে হারিয়ে

  • জোয়ান গ্যাম্পার ট্রফি, ফিরেই চৌকস নৈপুণ্যে মেসি-নেইমারের, বার্সিলোনা ৩- এএস রোমা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ইতালিয়ান ক্লাব এএস রোমাকে ৩-০ গোলে হারিয়ে প্রাক-মৌসুম প্রস্তুতি টুর্নামেন্ট জোয়ান গ্যাম্পার ট্রফি জিতে নিয়েছে বার্সিলোনা। বুধবার রাতে ন্যুক্যাম্পে অনুষ্ঠিত শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে কাতালানদের হয়ে গোলগুলো করেন ব্রাজিলিয়ান অধিনায়ক নেইমার, আর্জেন্টাইন অধিনায়ক লিওনেল মেসি ও ক্রোয়েশিয়ান মিডফিল্ডার ইভান রাকিটিচ। ৫০তম গ্যাম্পার ট্রফি জয়ের পর বার্সা কোচ লুইস এনরিকে জানিয়েছেন, তার দলের লক্ষ্য গত মৌসুমের শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখা।

নতুন মৌসুম শুরুর আগে বেশ বিপাকে ছিল বার্সিলোনা। ইন্টারন্যাশনাল চ্যাম্পিয়ন্স কাপে টানা তিন ম্যাচে হার মানে গত মৌসুমের ট্রেবল জয়ীরা। গ্যাম্পার ট্রফি জিতে এই ক্ষতে প্রলেপ দিতে পেরেছে স্প্যানিশ পরাশক্তিরা। বার্সিলোনার প্রাক-মৌসুম প্রস্তুতি হিসেবে প্রতি বছরই নিজেদের মাঠে আয়োজন করা হয় গ্যাম্পার ট্রফি। ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা জোয়ান গ্যাম্পারের প্রতি সম্মান জানাতেই এ ম্যাচের আয়োজন করা হয়। এবার ৫০তম আসরে বার্সা আমন্ত্রণ জানায় রোমাকে। ছুটি কাটিয়ে এই ম্যাচের মধ্য দিয়ে বার্সার একাদশে ফেরেন মেসি, নেইমার, মাশ্চেরানো, দানি আলভেজ ও ক্লডিও ব্রাভো। ছুটিতে থাকায় প্রীতি টুর্নামেন্ট চ্যাম্পিয়ন্স কাপে খেলেননি এসব তারকারা। মজার বিষয় হচ্ছে, এই ম্যাচের মধ্য দিয়ে সাবেক ক্লাবের বিপক্ষে ডাগআউটে দাঁড়ান বার্সা কোচ এনরিকে। ২০১১-১২ মৌসুমে তিনি রোমার কোচ ছিলেন। বার্সিলোনার এর পরের মিশন উয়েফা সুপার কাপ। আগামী ১১ আগস্ট সেভিয়ার মুখোমুখি হবে তারা। এরপর ১৫ আগস্ট স্প্যানিশ সুপার কাপের প্রথম লেগে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে এ্যাথলেটিক বিলবাওয়ের বিপক্ষে। এ কারণে নতুন মৌসুম শুরুর আগে তিন শিরোপা জয়ের সুযোগ থাকছে বার্সিলোনার। ছুটি কাটিয়ে দলে ফিরেই জ্বলে উঠেন মেসি ও নেইমার। মূলত দলের সেরা এই দুই তারকার নৈপুণ্যে রোমাকে হারিয়ে গ্যাম্পার ট্রফি ধরে রেখেছে বার্সা। গত আসরে মেক্সিকোর ক্লাব লিওকে হারিয়ে শিরোপা জিতেছিল বার্সিলোনা। ন্যুক্যাম্পে স্বাগতিকদের ২৬ মিনিটে এগিয়ে নেন নেইমার। ম্যাথিউয়ের নিচু ক্রস থেকে পাওয়া বল মাপা শটে প্রতিপক্ষের জালে পৌঁছে দেন ব্রাজিলিয়ান তারকা। ৪১ মিনিটে মেসি-নেইমারের দারুণ বোঝাপড়ায় ব্যবধান দ্বিগুণ করে এনরিকের দল। নেইমারের বাড়ানো বলে বাঁ পায়ের নিখুঁত শটে লক্ষ্যভেদ করেন টানা চারবারের বর্ষসেরা মেসি। এই গোলের আগে ৩৪ মিনিটে হলুদ কার্ড দেখেন মেসি। প্রতিপক্ষের ফুটবলারকে গুঁতো ও গলা চেপে ধরে সমালোচিত হয়েছেন তিনি। বিরতির পর ৬৬ মিনিটে রাকিটিচের গোলে ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় বার্সিলোনা। বক্সের বাইরে থেকে ডান পায়ের জোরালো শটে গোলটি করেন এই মিডফিল্ডার।