১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কামরাঙ্গীচরে প্রথম স্ত্রী নাসিমাকে খুন করে জুয়েল

স্টাফ রিপোর্টার ॥ দ্বিতীয় বিয়ের পর ঝামেলা সরিয়ে ফেলতে প্রথম স্ত্রী নাসিমা আক্তারকে (২৫) হাত-পা বেঁধে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়। রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে প্রথম স্ত্রী নাসিমা খুনের কথা স্বীকার করেছে গ্রেফতারকৃত জুয়েল বিশ্বাস। বৃহস্পতিবার ঢাকা মেট্রোপলিটন মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে লালবাগ জোনের জ্যেষ্ঠ সহকারী কমিশনার আরএম ফয়জুর রহমান এমন তথ্য জানিয়ে বলেন, এক মাস ধরে অনুসন্ধানের পর মঙ্গলবার রাতে ধানম-ি থেকে জুয়েলকে গ্রেফতার করা হয়।

তিনি জানান, গত ৩০ জুন রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরের পশ্চিম রসুলপুর কামাল সুপার মার্টের পেছনের আনোয়ার মিয়ার ভবনের তৃতীয় তলা থেকে হাত-পা বাঁধা অর্ধগলিত অজ্ঞাতনামা এক নারীর মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে তার লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ মর্গে পাঠানো হয়। এ ঘটনায় ওইদিন পুলিশ বাদী হয়ে কামরাঙ্গীরচর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। এই মামলার তদন্ত করতে গিয়ে জুয়েলের সংশ্লিষ্ট খুঁজে পায় পুলিশ। হত্যাকা-ের এক মাস সাতদিন পর পুলিশ ধানম-ি এলাকা থেকে জুয়েলকে গ্রেফতার করে। তিনি জানান, সেদিন (৩০ জুন) হত্যার পরিকল্পনা অনুযায়ী খেলার ছলে স্ত্রী নাসিমার হাত-পা বেঁধে ফেলেন জুয়েল। এরপর তার মুখে বালিশ চাপা দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন। সারারাত না ঘুমিয়ে ভোরে পাঁচ বছরের শিশুসন্তান দিপুকে নিয়ে কামরাঙ্গীরচরের বাড়ি থেকে গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জ পালিয়ে যান। যাবার সময় বাসার দরজায় বাইরে থেকে তালাবদ্ধ করে যান জুয়েল। পালানোর সময় দিপু তার মাকে নেয়ার কথা বললে জুয়েল জানান, ‘তোমার আম্মু ঘুমায়’। ছেলেকে নিয়ে গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়ায় গিয়ে সেখানে দ্বিতীয় স্ত্রীর কাছে ওঠেন জুয়েল। ছেলেকে দ্বিতীয় স্ত্রীর কাছে রেখে কয়েকদিন আগে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের একটি মেসে ওঠেন তিনি। সহকারী পুলিশ কমিশনার আরএম ফয়জুর রহমান জানান, গ্রেফতারকৃত জুয়েল জিজ্ঞাসাবাদে জানায়, ২৮ জুন প্রথমে স্ত্রী নাসিমা আক্তার ও ছেলে দিপুকে নিয়ে কামরাঙ্গীরচরের পশ্চিম রসুলপুরের ওই বাসা ভাড়ায় ওঠেন তিনি। পরিকল্পনা মতো ওইদিন রাতেই স্ত্রী নাসিমা গলা টিপে হত্যা করেন।