২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

তিস্তায় নোংরা ও বিষাক্ত দুর্গন্ধ পানির ঢল

স্টাফ রিপোর্টার, নীলফামারী ॥ ঘোলা এবং দুর্গন্ধযুক্ত উজানের ঢলের পানিতে তিস্তা নদীতে বন্যা দেখা দিয়েছে। শুক্রবার সকাল থেকে নীলফামারীর ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার (৫২দশমিক ৪০) ১৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে তিস্তা ব্যারাজের সব জলকপাট খুলে রেখেছে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)। এলাকায় বৃষ্টিপাত না থাকলেও উজানের ঢলে তিস্তা নদীতে বন্যার সৃষ্টি করেছে। এতে ডিমলা উপজেলার পূর্বছাতনাই, খগাখড়িবাড়ি, টেপাখড়িবাড়ি, খালিশা চাঁপানী, ঝুনাগাছ চাঁপানী, গয়াবাড়ি ও জলঢাকা উপজেলার, গোলমু-া, ডাউয়াবাড়ি, শৌলমারী ও কৈমারী ইউনিয়নের বিস্তীর্ণ এলাকার ২৫টি চর ও গ্রামের ১০ হাজার পরিবার বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছে বলে জনপ্রতিনিধিরা জানিয়েছে। এলাকাবাসী জানায়, উজান থেকে তিস্তায় যে ঢলের পানি নেমে এসেছে এবং অব্যাহতভাবে আসছে তা প্রচ- ঘোলা ও নোংরা । এই পানি থেকে চরম দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ছে। যা এলাকার পরিবেশ বিষাক্ত করে তুলছে। এতে রোগবালাই ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করছে তিস্তা অববাহিকায় বসবাসরত মানুষজন। তিস্তাপারের বাইশপুকুর গ্রামের নুরুল ইসলাম জানান, এর আগেও তিস্তায় ঘোলা পানি এসেছিল। কিন্তু সে রকম খারাপ কিছু দেখা যায়নি। কিন্তু বৃহস্পতিবার রাত থেকে উজানের যে ঢল আসতে থাকে তা নিমিষেই তিস্তার পানির চেহারা পাল্টে দেয়। শুক্রবার সকালে কালচে ঘোলা পানির সাথে বিষাক্ত দুর্গন্ধ এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে।; যা কিটনাশকের মতো ঝাঁঝালো হওয়ায় তিস্তাপারের পরিবেশকে বিষাক্ত করে তুলেছে। পূর্বছাতনাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ খান বলেন, উজান থেকে যে ঘোলা ও দুর্গন্ধযুক্ত ঢলের পানি নেমে এসেছে তা তিস্তাবেষ্টিত গ্রামের বিস্তীর্ণ এলাকা দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পূর্ববাইশপুকুর গ্রামের সাইদুর রহমান জানান, তাদের গ্রামটি তিস্তা ব্যারাজের ভাটিতে হওয়ায় সেখানকার ঘরবাড়ির ভেতর দিয়ে তিস্তার কালো রঙের বিষাক্ত দুর্গন্ধযুক্ত পানির স্রোত বয়ে যাচ্ছে। এ ধরনের অবস্থা আগে কখনও দেখা যায়নি। অনেকের ধারণা, উজানে ভারতে ভারি বৃষ্টিপাতে সেখানকার ক্ষেত -খামারের ফসলে ছিটানো কিটনাশক ধুয়ে আসায় ঘোলা ও দুর্গন্ধ পানির ঢল ধেয়ে এসেছে।

বোর্ড চেয়ারম্যানের অপসারণ দাবিতে নাগরিক সমাজ একাট্টা

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী ॥ রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড চেয়ারম্যানের অপসারণের দাবিতে এবার একাট্টা হয়েছে নাগরিক সমাজ। শিক্ষক, ছাত্র, অভিভাবক ও সমাজের বিভিন্ন স্তরের পেশাজীবীদের সমন্বয়ে গঠিত নাগরিক সমাজ বোর্ড চেয়ারম্যানের অপসারণ দাবিতে মহাসমাবেশের ডাক দিয়েছে।

আগামী ১০ আগস্ট নগরীর লক্ষ্মীপুর মোড়ে এ মহাসমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। শুক্রবার বেলা ১১টায় রাজশাহী নগরীর শাহমখদুম কলেজের শিক্ষক মিলনায়তনে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় এ ঘোষণা দেয় নাগরিক সমাজ। সভায় সাংবাদিক মুস্তাফিজুর রহমান খানের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, জাতীয় শিক্ষক-কর্মচারী ফ্রন্টের জেলা আহ্বায়ক অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা, মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক কল্পনা রায়, নাগরিক সমাজের সদস্য সচিব বাবু রাজকুমার সরকার, বঙ্গবন্ধু কলেজের উপাধ্যক্ষ কামরুজ্জামান, জুলফিকার আহমেদ গোলাপ। মতবিনিময় সভায় রাজশাহী বোর্ড চেয়ারম্যান ড. অধ্যাপক আবুল হায়াতকে প্রত্যাহার দাবি জানানো হয়।

নির্বাচিত সংবাদ