১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ছবি আঁকাকেই বেশি প্রাধান্য দেই ॥ বিপাশা হায়াত

চিত্রশিল্পী বিপাশা হায়াত। একজন সফল অভিনেত্রী এবং নাট্যকারও। ছোটবেলা থেকে ছবি আঁকার প্রতি ছিল অদম্য ঝোঁক। এ লক্ষ্য নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের পেইন্টিং বিভাগ থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রী লাভ করেন। ক্যানভাসে রং ঢেলে, রঙের আস্তরের ওপর আঁচড় কেটে টেক্সার তৈরি করে হারিয়ে যাওয়া স্মৃতি ও তার বিমূর্ত আবেগকে তুলে আনার প্রচেষ্টা এবং সে স্মৃতির নির্যাস তাঁর শিল্পকর্মে। রাজধানীর গুলশানের বেঙ্গল আর্ট লাউঞ্জে আজ সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় শুরু হচ্ছে তাঁর আঁকা ছবি নিয়ে ‘স্মৃতির রাজ্যে’ শীর্ষক প্রদর্শনী। চতুর্থ একক এ প্রদর্শনী সম্পর্কে কথা হয় তাঁর সঙ্গে।

‘স্মৃতির রাজ্যে’ প্রদর্শনী সম্পর্কে বলুন

বিপাশা হায়াত : আমি বিমূর্তধারা নিয়ে?কাজ করি। এই প্রদর্শনীটি আমার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, এবার আমি কাজ করেছি স্মৃতি নিয়ে। বহু দিন ধরে স্মৃতিকে বেইজ করে ছবি আঁকছি। আমার কাজের প্রকাশ এই প্রদর্শনী। আমার মনে হয়, মানুষ তার জীবনের প্রতিটি কাজই করে থাকে তাদের স্মৃতি থেকে। এটা কিন্তু একটা অদ্ভুত বিষয়। আমিও এবারের ছবিতে তাই নিজের স্মৃতি নিয়ে খেলার চেষ্টা করেছি। আমি যেভাবে আমার মনোজগৎকে দেখি, তা-ই ছবির মাধ্যমে সবাইকে দেখাতে চেয়েছি। এ প্রদর্শনীতে আমার ২৮টি চিত্রকর্ম এবং ৮টি ড্রইং রয়েছে। প্রতিদিন দুপুর ১২টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত প্রদর্শনী খোলা থাকবে। শেষ হবে ২৯ আগস্ট।

স্মৃতি নিয়ে কাজ করতে আগ্রহী হলেন কেন?

বিপাশা হায়াত : আমি মনে করি শৈল্পিক কাজগুলো স্মৃতি থেকে হয়। কোন কবির কবিতা লেখা, কোন লেখকের গল্প লেখা এছাড়া কোন শিল্পীর শিল্পকর্ম তৈরি কিন্তু তাঁর স্মৃতি থেকে হয়। সবার চলার জন্য স্মৃতির এক বিশেষ গুরুত্ব আছে। শিল্পের ক্ষেত্রেও স্মৃতির গুরুত্ব বেশি। অতীত স্মৃতি আমাকে বেশি ভাবায়। ছোটবেলার সেই দিনগুলো এবং সুন্দর মুহূর্তগুলোর কথা ভাবি এবং এসব ভাবনার বিষয়ই উঠে এসেছে আমার চিত্রকর্মে।

হারানো স্মৃতির বিষয়টি কি প্রদর্শনীতে প্রতীয়মান?

বিপাশা হায়াত : মূলত এ জন্য আমার এ প্রদর্শনী নয়। আমার ছবির টুকরো অংশগুলো প্রতিনিধিত্ব করে আমার টুকরো স্মৃতিগুলোকে। আর যে লাইনগুলো দিয়ে এগুলো আলাদা করা সেটা একে আহ্বান করে আমার বর্তমানকে। ক্যানভাসটা আসলে এ দুই সময়-অতীত-বর্তমান এবং আমার মৌলিক আবেগ ধরে রাখার জায়গা। আমার কাজ শিল্প চর্চা এবং তা নিয়ে প্রদর্শনী করা। একজন শিল্প চর্চার মানুষ হিসেবে মনে করি এর গুরুত্ব অনেক। আমি ছোটবেলা থেকে শিল্পের সাধনা করে আসছি। তাঁর প্রকাশ আমার প্রদর্শনী। সব সময় আমার নিজস্ব অনুভূতি দিয়ে কাজ করতে আমি আগ্রহী। যদি আমার এ শিল্পকর্ম দর্শককে স্পর্শ করে তাহলে আমার সাধনা সার্থক হবে।

ছবি আঁকা এবং অভিনয় এ দুয়ের সামাঞ্জস্য কিভাবে করেন?

বিপাশা হায়াত : ভাল লাগার জায়গা থেকে আমার ছবি আঁকা। অভিনয়ও সে রকম এক ক্ষেত্র। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ছবি আঁকা নিয়ে সময় চলে যায়। পাশাপাশি অভিনয়ের সময়ও বের করে নিতে হয়।

আপনার কাছে ছবি আঁকা ও অভিনয়ের মধ্যে কোন্টির প্রাধান্য বেশি?

বিপাশা হায়াত : আমি ছবি আঁকাকেই বেশি প্রাধান্য দেই। এটার ভেতর ডুবে থাকতে চাই।

-গৌতম পাণ্ডে