২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মেসির গলা চেপে ধরা স্বাভাবিক!

  • রক্ষণভাগ শক্তিশালী করতে চান বার্সিলোনা কোচ লুইস এনরিকে

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ নিপাট ভদ্রলোক হিসেবেই পরিচিত লিওনেল মেসি। কিন্তু বুধবার জোয়ান গ্যাম্পার ট্রফিতে ইতালিয়ান ক্লাব এএস রোমার ফরাসী ডিফেন্ডার এমাপো ইয়াঙ্গা-এমবিয়ার গলা চেপে ধরে সমালোচনায় জর্জরিত বার্সিলোনা তারকা। গোটা ফুটবলবিশ্ব অবাক হয়েছেন মেসির এমন কা-ে। তবে এই বিষয়টিকে খুব একটা পাত্তা দিচ্ছেন না বার্সিলোনার সহ-সভাপতি জর্ডি মেস্ট্রে। বৃহস্পতিবার এক সাক্ষাতকারে তিনি বলেছেন, মেসির এমন কা- অনেকটাই স্বাভাবিক।

মেসির কা-ে হতবাক ফুটবল বিশ্ব। তবে অবাক হননি বার্সার সহ-সভাপতি। অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ফুটবল ম্যাচে অনেক ঘটনা ঘটে থাকে। আর মেসির মতো এ ধরনের ঘটনা হরহামেশাই হচ্ছে। ফুটবল ম্যাচে এটা স্বাভাবিক। এ ঘটনা অকল্পনীয় নয়। মেসির প্রসঙ্গটি নিয়ে এত গুরুত্ব দেয়ারও কোন কারণ দেখছি না। তিনি আরও বলেন, মেসির মতো এমন ঘটনা আগেও যেমন ঘটেছে, ভবিষ্যতেও ঘটবে। আপনি যখন ফুটবল খেলবেন, তখন আপনাকে স্বাভাবিক বিষয়গুলোকে মেনে নিতে হবে। আর সেটাই একজন ফুটবলারের জন্য স্বাভাবিক ঘটনা।

ফুটবল ক্যারিয়ারের অভিষেক ম্যাচে হাঙ্গেরির বিপক্ষে মাঠে নেমে ৪৪ সেকেন্ডের মাথায় লালকার্ড দেখা মেসি দ্বিতীয়বার আর কখনও লাল কার্ড দেখেননি। প্রীতি ম্যাচ হওয়ায় এবার লালকার্ড দেখা থেকে রেহাই পেয়েছেন সাবেক টানা চারবারের ফিফা সেরা ফুটবলার।

রোমার বিপক্ষে গ্যাম্পার ট্রফির ম্যাচের ৩৩ মিনিটে কালিমা লাগানো কা- ঘটান মেসি। সে সময় ফরাসী ডিফেন্ডার এমবিয়ার সঙ্গে ঝামেলা বাধিয়ে বসেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। শুরুটা করেছিলেন অবশ্য এমবিয়া। রোমার অর্ধে বল নিয়ে এগোচ্ছিলেন মেসি, তাকে পাহারা দিয়ে রাখার দায়িত্বে ছিলেন এমবিয়া। নেইমারকে পাস দিয়ে মেসি এগিয়ে যাচ্ছিলেন। এ সময় এমবিয়া যেভাবে মেসিকে আটকানোর চেষ্টা করেছিলেন, সেটা হয় তো পছন্দ হয়নি তার। নেইমারের কাছ থেকে ফিরতি পাস পেয়ে বল নিয়ে বক্সে ঢুকে পড়েন।

সামনে কেবল গোলরক্ষক। এ সময়ই রেফারি অফসাইডের বাঁশি বাজান। কিন্তু মেসি না থেমে বল নিয়ে এগোতে থাকেন। এ সময় এমবিয়া মেসিকে কিছু বললে তাদের মাঝে তর্ক শুরু হয়। এরপর এমবিয়া ঝামেলা শুরু করেন কপাল দিয়ে মেসিকে ধাক্কা দিয়ে। এর জবাব মেসি মাথা দিয়ে গুঁতো মারে। গুঁতো মারার পর ফরাসী ডিফেন্ডারের গলা ধরে ধাক্কাও দেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। এই অপ্রত্যাশিত ঘটনা নিয়েই এখন উত্তাল ফুটবলবিশ্ব।

বার্সিলোনা কোচ লুইস এনরিকে নতুন মৌসুমে দলের রক্ষণভাগ শক্তিশালী করার দিকে মনযোগ দিয়েছেন। কাতালানদের মাঝমাঠ, আক্রমণভাগ বরাবরই উজ্জ্বল। তবে প্রশ্নটা বার বার থেকে যাাচ্ছে রক্ষণভাগ নিয়ে। হরহামেশাই বার্সার রক্ষণভাগের দুর্বলতার চিত্র ফুটে উঠে। এরপরও সবকিছু ছাপিয়ে গত মৌসুমে ট্রেবল জয় করে বার্সা। দলের ডিফেন্ডারদের নিয়ে কোচ লুইস এনরিকও বেশ সন্তুষ্ট। তবে রক্ষণভাগ আরও শক্তিশালী করতে চান এনরিক। সম্প্রতি প্রীতি টুর্নামেন্ট ইন্টারন্যাশনাল চ্যাম্পিয়ন্স কাপে চার ম্যাচে আট গোল হজম করে বার্সা। লা লিগার চ্যাম্পিয়নদের পারফর্মেন্সও ছিল হতাশাজনক। এলএ গ্যালাক্সির বিপক্ষে কষ্টার্জিত জয় ছাড়া বাকি তিন ম্যাচেই টানা হারের স্বাদ পায় স্প্যানিশ পরাশক্তিরা। অনেকেই হয় তো যুক্তি দাঁড় করাবেন, মেসি-নেইমার-মাশ্চেরানো-আলভেজরা তো ছিলেন না!

কিন্তু অজুহাত দাঁড় করাতে চান না এনরিকে। রক্ষণভাগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পেনাল্টি অংশে ডিফেন্সিভ অবস্থাটা সামলাতে না পারলে খেসারত দিতে হয়। তবে আমরা এ দিকটাই অনেক উন্নতি করেছি। কিন্তু রক্ষণভাগকে আরও ভাল করতে হবে। কারণ বিশ্বমানের ডিফেন্স না থাকলে শিরোপা জেতা সম্ভব নয়। এটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।