২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রিপাবলিকান পার্টির প্রথম বিতর্কে মঞ্চ কাঁপালেন ট্রাম্প

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টির মনোনয়নের লড়াইয়ে ধনাঢ্য প্রতিদ্বন্দ্বী ডোনাল্ড ট্রাম্পের আধিপত্য বজায় রয়েছে। লড়াকু ট্রাম্প বৃহস্পতিবার রাতে দলের প্রচারাভিযানের প্রথম বিতর্ক অনুষ্ঠানে তার বাগাড়ম্বর দিয়ে মঞ্চ কাঁপিয়ে তুলেন। তিনি দলের মনোনয়ন না পেলে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বলে ঘোষণা দেন। তার এ তাক লাগানো ঘোষণার পর মঞ্চে থাকা তার প্রতিদ্বন্দ্বীরা শ্রোতাদের মনোযোগ আকর্ষণের জন্য অবশিষ্ট সময় ধরে একে অপরের সঙ্গে লড়াইয়ে লিপ্ত হন। খবর বিবিসি ও ইয়াহু নিউজের।

বিতর্কের শুরুতে ট্রাম্প তৃতীয় পক্ষ থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সম্ভাবনা নাকচ করে দিতে পারেন কিনা এ প্রশ্নের জবাবে তিনি ঘোষণা করেনÑ আমি এ সময়ে সেই প্রতিশ্রুতি দেব না। তিনি নারীদের বিষয়ে অশোভন মন্তব্য করার দায়ে ক্ষমা চাইতে অস্বীকার করেন এবং বিতর্কের সঞ্চালকদের সঙ্গে ঝগড়ায় জড়িয়ে পড়েন। ওহাইও অঙ্গরাজ্যের ক্লেভেল্যান্ড শহরে আয়োজিত ওই বিতর্ক অনুষ্ঠানে ১০ জন প্রার্থী খোলাখুলি ও কড়া ভাষায় মতবিনিময় করেন। সাম্প্রতিক জনমত জরিপের ভিত্তিতে ফক্স নিউজ তাদের বাছাই করে।

তারা অভিবাসন, সন্ত্রাসবাদ ও সমকামী বিয়ে নিয়ে বিতর্ক করেন। প্রত্যেকে নিজেকে ২০১৬-এর প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির অগ্রগামী প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের বিরুদ্ধে লড়াই চালানোর ক্ষেত্রে সবচেয়ে শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে উপস্থাপন করেন। তারা প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ও ইরানের সঙ্গে তার সম্পাদিত পরমাণু চুক্তির সমালোচনা করেন। ট্রাম্পের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ক্লোরিভার সাবেক গবর্নর জেব বুশ ট্রাম্পের মাত্রাতিরিক্ত বাগাড়ম্বরের শান্ত ভাষায় সমালোচনা করেন। বুশ দলের মধ্যপন্থী এস্টাব্লিশমেন্টের অন্যতম প্রিয় প্রার্থী।

বুশ বলেন, টাম্পের ভাষা বিভাজনমূলক। বারাক ওবামা ও হিলারি ক্লিনটন দেশকে ভাগ করার যে কাজটি প্রতিদিন করছেন, তা করে আমরা জয়ী হতে পারব না। অভিবাসন প্রশ্নে বুশ যুক্তরাষ্ট্রে অবৈধভাবে বসবাসরত লোকজনের মধ্যে কিছুসংখ্যককে আইনগত মর্যাদা দেয়ার একটি পথ খুঁজে বের করার আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করেন। এটি কোন কোন রিপাবলিকান ভোটারের জন্য এক অপ্রিয় অবস্থান, কারণ তারা আইনগত মর্যাদাকে ক্ষমা প্রদর্শনের শামিল বলে মনে করেন। বুশ বলেন, এখানে আসছেন এমন লোকজনের বিরাট সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশের জন্য আর কোন পথ খোলা নেই। ট্রাম্প বিশেষ করে অভিবাসন ইস্যুটি নিয়ে গ্রীষ্মকালজুড়েই প্রচার চালিয়ে এসেছেন। মেক্সিকান অভিবাসীরা ধর্ষক বলে মন্তব্য করে তিনি সমালোচনার মুখে পড়েন। তিনি বৃহস্পতিবার বলেন যে, সীমান্ত রক্ষীরাই তাকে এ কথা বলেছেন। এ প্রচার অভিযানে অভিবাসনকে এক ইস্যুতে পরিণত করার কৃতিত্বও তিনি দাবি করেন।