২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ফারুক নওয়াজের ছড়া

পৃথিবী অবাক হয়

ভারতীয়দের গান্ধী আছেন

কামাল তুরস্কের-

জামাল-নাসের মিসরীয়দের

রূপকার স্বপ্নের।

মাও সেতুঙের নাম লেখা আছে

চীনাদের অন্তরে-

রুশ বিপ্লবী লেনিনের নাম

মুছবে কেমন করে।

হো চি মিন আছে ভিয়েতনামের

লিংকন মার্কিনে-

মহাসংগ্রামী আরাফাত আছে

আরব-ফিলিস্তিনে।

কিউবার আছে ফিদেল ক্যাস্ত্রো

কিউবা তাঁকেই চায়-

ম্যান্ডেলা প্রিয় মহানবন্ধু

সাউথ আফ্রিকায়।

আমরা বাঙালি, বঙ্গবন্ধু

আমাদের পরিচয়-

শেখ মুজিবের নাম শুনলেই

পৃথিবী অবাক হয়।

মুজিবুর কখনো কি...

মধুমতি ধানসিঁড়ি যমুনার পাড়

নাম ধরে-ধরে ডাকে শুধুই তোমার।

সাগরের তীরঘেঁষা ঝাউবনে হাওয়া-

তোমার নামেই তার বয়ে বয়ে যাওয়া।

তোলপাড় নীলঢেউ, ঢেউতোলা কাশ

ডাহুকের-কোয়াকের শ্বাস-প্রশ্বাস

মেহগনি শালবনে শুকনো পাতায়...

তোমার নামটি মৃদু সুরে ভেসে যায়।

তুমি আছো পতাকায়, সবুজ মাঠেই

তোমার পায়ের ছাপ বলো কোথা নেই?

তুমি আছো হৃদয়ের মাঝারে সবার-

মুজিবুর কখনো কি জš§াবে আর!

যাতনার শতযুগ পার হয়ে শেষে...

বাঙালিকে স্বাধীনতা এনে দিলে এসে।

চিরজীবী তিনি

ঝিরিঝিরি হাওয়া বলে তাঁর কথা

তাঁর কথা কুলুকুলু ঢেউ বলে;

কেউ বলে, তিনি ওই পতাকাতে

‘তিনি সারা দেশজুড়ে’ কেউ বলে।

মধুমতি ধানসিঁড়ি করতোয়া

বয়ে যায় তাঁর নামে গান গেয়ে

দোয়েলেরা শালিকেরা ছুটে যায়

ধানবনে যেন তাঁর ঘ্রাণ পেয়ে।

মাঠে-ঘাটে, বিলেঝিলে, মেঠোপথে

গিরি আর ঝর্নাতে তাঁর কথা-

‘তিনি নেই’ এই কথা মানবো না

‘চিরজীবী তিনি’ এটা সারকথা।

বাঙালির হৃদয়ের তান তিনি

জীবনের সব গান, সব সুর;

ইতিহাসের লেখা তাঁর অবদান

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর।

রাসেল রাসেল ডাক শুনি

রাসেল রাসেল ডাকছে কে?

আসছে ভেসে মাঠ থেকে।

মাঠটা বেশি নয় দূরের...

রাসেলসোনার ইশকুলের।

ছুটির পরে রোজ সে-তো-

দৌড়ে মাঠে সুখ পেতো।

রাসেল রাসেল ডাকছে কে?

আসছে ভেসে ঝিল থেকে।

ধানমন্ডির ঝিলটা রোজ-

রাসেলসোনার করছে খোঁজ।

ডাকছে পাখি, পায়রারা

তাও রাসেলের নেই সাড়া।

খেলার সাথি, বন্ধু সব

গোলাপ-বেলি ফুলের টব

টুঙ্গিপাড়ার গাছ আকাশ-

দুঃখে কেমন ফেলছে শ্বাস!

দুঃখ কিসের? চক্ষু মেল...

হৃদয় জুড়ে শেখ রাসেল!