১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নিলয় হত্যায় উদ্বিগ্ন গোটা বিশ্ব, ঘাতকদের দ্রুত গ্রেফতার দাবি

  • জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ব্লগার নীলাদ্রি চট্টোপাধ্যয় ওরফে নিলয় নীল হত্যার ঘটনা দ্রুত তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের গ্রেফতার দাবি জানিয়েছে জাতিসংঘ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য। বাংলাদেশ সরকারের প্রতি মতপ্রকাশের স্বাধীনতার নিশ্চিত করারও তাগিদ দিয়েছে তারা। শনিবার পৃথক বিবৃতির মাধ্যমে তারা এই তাগিদ দিয়েছে। এছাড়া ব্লগার নিলয় নীল হত্যার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতর থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে বলা হয়, ব্লগার নীলাদ্রিকে কাপুরুষোচিতভাবে হত্যার ঘটনায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে। এই ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্র গভীর শোক প্রকাশ করছে। একই সঙ্গে বাংলাদেশের জনগণের প্রতি সমর্থন জানায় দেশটি।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ব্লগার হত্যার মতো এমন জঘন্য ঘটনা আর যেন না ঘটে সেজন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশ যৌথভাবে সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ প্রতিরোধে কাজ করতে হবে। ব্লগার হত্যা প্রতিরোধ ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কাজ করবে।

এদিকে ব্লগার নিলয় নীল হত্যার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র ও কমনওয়েলথ বিষয়ক মন্ত্রী হুগো সোয়ার এক বিবৃতিতে বলেন, নিলয় নীলসহ এ নিয়ে চলতি বছর বাংলাদেশে চারজন ব্লগার হত্যার শিকার হলেন। এটা অত্যন্ত কাপুরুষোচিত ও আতঙ্কের মতো একটি ঘটনা।

তিনি বলেন, ব্লগার নিলয় হত্যার ঘটনা দ্রুত তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের বিচারের আওতায় আনতে হবে। আমি আশাকরি বাংলাদেশ সরকার দ্রুত এ বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণ করবে। সার্বজনীন মানবিধাকার হিসেবে মতপ্রকাশের স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে হবে। জঙ্গী ও সন্ত্রাসবাদ প্রতিরোধে বাংলাদেশ সরকারের পাশে থাকবে যুক্তরাজ্য।

এদিকে বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়ক রবার্ট ওয়াটকিনস এক বিবৃতিতে বলেছেন, ব্লগার হত্যাকা-ের ঘটনায় সরকার বিচারের ব্যবস্থা করতে না পারায় আবারও এমন জঘন্য অপরাধ ঘটল। বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়ক রবার্ট ওয়াটকিনসের বিবৃতিতে এ নিন্দা জানানো হয়। এ হত্যাকা-কে সহিষ্ণুতার ওপর হামলা বলে উল্লেখ করেছে জাতিসংঘ।

জাতিসংঘ বাংলাদেশ কার্যালয়ের আবাসিক প্রতিনিধি রবার্ট ডব্লিউ ওয়াটসকিন ব্লগার নিলয় নীলের হত্যাকা-ের ঘটনায় বলেন, এর আগের ব্লগার হত্যার ঘটনায় কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় আবারও এমন জঘন্য অপরাধের ঘটনা ঘটল। সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে ওয়াটকিনস বলেন, সবগুলো ব্লগার হত্যাকা-ের ঘটনার তদন্ত করে প্রকৃত দোষীদের দ্রুততম সময়ে বিচারের মুখোমুখি করা হোক। তিনি বলেন, জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশের সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন। হত্যাকা-ের এমন ঘটনায় সমাজের সর্বস্তর থেকে নিন্দা প্রকাশ করা হচ্ছে। কারণ, যাতে এমন জঘন্য ঘটনা আর না ঘটে।

এদিকে ব্লগার নীলাদ্রি চট্টোপধ্যায় নিলয় হত্যাকা-ের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে জড়িতদের শাস্তি দাবি করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। শনিবার তৈরি পোশাক প্রস্তুত ও রফতানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) অফিসে এক অনুষ্ঠানে এ কথা জানান বাংলাদেশে সফররত ইউরোপীয় ইউনিয়নের পার্লামেন্ট সদস্য ড. সাজ্জাদ করিম ও বাংলাদেশে নিযুক্ত ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত পিয়েরে মায়াদুন।

অনুষ্ঠানে ড. সাজ্জাদ করিম বলেন, ব্লগার নীলাদ্রি চট্টোপাধ্যায় নিলয় হত্যাকা- অত্যন্ত মর্মান্তিক। মুক্তচিন্তার মূল্য হিসেবে তার জীবন দিতে হলো মিলিশিয়াদের হাতে। এটা গ্রহণযোগ্য নয়। তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকারের দায়িত্ব হলো এই হত্যাকা-ের সঙ্গে জড়িতদের শাস্তি দেয়া।

বাংলাদেশে নিযুক্ত ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত পিয়েরে মায়াদুন বলেন, ব্লগার নিলয়কে হত্যা হলো- মতপ্রকাশের স্বাধীনতার ওপর আঘাত। যা অত্যন্ত দুঃখজনক ঘটনা। গত ছয় মাসে বাংলাদেশে এধরনের চারটি হত্যাকা- ঘটে বলেও উল্লেখ করেন তিনি বলেন, হত্যাকারীদের উদ্দেশ্য খুবই স্পষ্ট। রাষ্ট্রদূত পিয়েরে মায়াদুন বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এ ধরনের হত্যাকা- দেখতে চায় না। বাংলাদেশের যথাযথ কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব হলো হত্যাকারীদের ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া। ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করা।

উল্লেখ্য, শুক্রবার ঢাকায় বাসায় ঢুকে ব্লগার নিলয় নীলকে হত্যা করে জঙ্গীরা। এর আগে আরও ছয়জন ব্লগারকে হত্যা করা হয়। ব্লগার হত্যার ঘটনায় বিভিন্ন দেশ উদ্বেগ প্রকাশ করে আসছে। একই সঙ্গে হত্যাকা-ে জড়িতদের গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনার দাবি করছে তারা।