২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

টঙ্গীতে নির্যাতনের পর হত্যা ॥ প্রেমিক গ্রেফতার

নিজস্ব সংবাদদাতা, টঙ্গী॥ টঙ্গীতে প্রেমিকাকে নির্যাতনের পর হত্যা করেছে এক প্রেমিক। পুলিশ শনিবার গভীর রাতে লাশ উদ্ধার এবং প্রেমিককে আটক করেছে।

নিহতের নাম শান্তা (১৯)। তিনি নেত্রকোনা সদরের নাগড়া গ্রামের ইসলাম উদ্দিনের মেয়ে এবং টঙ্গীতে একটি পোশাক কারখানায় কাজ করতেন। ঘাতক প্রেমিকের নাম রুকনুজ্জামান (২৩)। তিনি রাজশাহীর বাঘা উপজেলার চকবাজার রাজাপুর গ্রামের সাঈদ মৃধার ছেলে।

টঙ্গী থানার এএসআই মোস্তফা কামাল জানান, শান্তা ও রোকনুজ্জামানের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। শনিবার শান্তাকে নিয়ে রুকনুজ্জামান তার বন্ধুর ফুফাত ভাই মিঠুর ভাড়া বাড়ি (টঙ্গীর পাগাড় এলাকার বাবুলের বাসা) যায়। মিঠুও স্থানীয় একটি পোষাক করাখানার শ্রমিক। মিঠু তার কর্মস্থলে চলে গেলে রুকনুজ্জামান তার প্রেমিকা শান্তাকে ধর্ষণ করে। পরে শান্তা বিয়ের জন্য রুকনুজ্জামানকে চাপ দিলে দুজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতি হয়। এক পর্যায়ে গলায় কাপড় পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে শান্তাকে হত্যা করে রুকনুজ্জামান ।

পুলিশ কর্মকর্তা আরো জানান, কর্মস্থল থেকে মিঠু রাতে বাসায় ফিরে এলে রুকনুজ্জামান ঘরের চাবি বুঝিয়ে দেওয়ার সময় তার আচরণ মিঠুর সন্দেহ হয়। পরে ঘরে লাশ দেখে এলাকাবাসীর সহায়তায় রুকনুজ্জামানকে ঘরে আটকে রাখে পুলিশকে খবর দেয় মিঠু। শনিবার দিবাগত গভীর রাতে শান্তার লাশ উদ্ধার এবং রুকনুজ্জামানকে আটক করা হয়।

প্রাথমিকভাবে রুকনুজ্জামান ধর্ষণ ও হত্যার কথা স্বীকার করেছে। লাশ ময়না তদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে বলে জানায় পুলিশ।