১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পুঁজিবাজারে সূচক কমেছে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ স্বল্প মূলধনী কোম্পানিগুলোর চাহিদা বৃদ্ধির দিনে সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস রবিবার মূল্য সূচকের নিম্নমুখী ধারায় লেনদেন শেষ হয়েছে পুঁজিবাজারে। দুই স্টক এক্সচেঞ্জেই লেনদেনের পরিমাণ কমে গেছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক একচেঞ্জ (সিএসই) ওয়েবসাইট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। স্বল্প মূলধনী কোম্পানিগুলো নিয়ে আলাদা বাজার গঠনের উদ্যোগ নেয়ার পর থেকেই জাঙ্ক বা স্বল্প মূলধনী কোম্পানির চাহিদা বাড়ছে। এর বিপরীতে বড় মূলধনী কোম্পানির দর হারিয়েছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, রবিবার ডিএসইতে ৬৭৩ কোটি ৪৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে; যা আগের দিনের তুলনায় ১৫ কোটি টাকা কম লেনদেন। আগের দিন এ বাজারে ৬৮৮ কোটি ৫৪ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছিল।

ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয় ৩২০টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১১২টির, কমেছে ১৬৯টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৯টির শেয়ার দর।

সকালে সূচকের ইতিবাচক প্রবণতা দিয়ে শুরুর পরে ডিএসইএক্স বা প্রধান মূল্য সূচক ২০ পয়েন্ট কমে ৪ হাজার ৮৪৪ পয়েন্টে অবস্থান করছে। ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ৩ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে এক হাজার ১৯৩ পয়েন্টে। ডিএস৩০ সূচক ৫ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৮৮১ পয়েন্টে।

খাতভিত্তিক বাজার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, সার্বিকভাবে ডিএসইতে মোট জ্বালানি এবং শক্তি খাতের বেশি লেনদেন হয়েছে। খাতটির মোট লেনদেনের পরিমাণ ১৩৯ কোটি টাকা, যা মোট লেনদেনের ২০ ভাগ। এরপরেই দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রকৌশল খাতের কোম্পানিগুলো। খাতটির মোট ১৩১ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে, যা মোট লেনদেনের ১৯ দশমিক ৭০ ভাগ। তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে ওষুধ এবং রসায়ন খাতটি। সারাদিনে খাতটির মোট লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় ১০০ কোটি টাকা, যা মোট লেনদেনের প্রায় ১৫ ভাগ।

ডিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে থাকা দশ কোম্পানি হলো- ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন এ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড, লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট লিমিটেড, এসিআই লিমিটেড, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল কোম্পানি লিমিটেড, শাহজিবাজার পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ, বাংলাদেশ স্টিল রি-রোলিং মিলস, স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড, রতনপুর স্টিল রি-রোলিং মিলস এবং ইফাদ অটোস।

ডিএসইর দরবৃদ্ধির সেরা কোম্পানিগুলো হলো : সিভিও পেট্রো কেমিক্যাল, জেমিনি সি ফুড, এইচ আর টেক্সটাইল, ইস্টার্ন লুব্রিক্যান্টস, ওয়াটা কেমিক্যাল, নদার্ন জুটস, মুন্নু স্টাফলারস, আরামিট সিমেন্ট, সাফকো স্পিনিং ও রহিম টেক্সটাইল।

দর হারানোর সেরা কোম্পানিগুলো হলো : রেনউইক যজ্ঞেশ্বর, আইএফআইসি, তাল্লু স্পিনিং, ইসলামী ব্যাংক, ন্যাশনাল পলিমার, আনোয়ার গ্যালভানাইজিং, ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স, বার্জার পেইন্টস ও নদার্ন ইন্স্যুরেন্স।

রবিবার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ৫৬ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এদিন সিএসই সার্বিক সূচক ৪০ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজার ৮৬৯ পয়েন্টে। সিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২৫৪টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৯৬টি কোম্পানির, দর কমেছে ১৩০টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৮টি কোম্পানির।

সিএসইর লেনদেনের সেরা কোম্পানিগুলো হলো : ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন এ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড, মোজাফফর হোসেন স্পিনিং, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল কোম্পানি লিমিটেড, অলিম্পিক এক্সেসরিজ, ইউনাইটেড এয়ার, বিএসআরএম লিমিটেড, শাহজিবাজার পাওয়ার, স্কয়ার ফার্মা ও সিঙ্গার বিডি।