২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চ্যাম্পিয়ন চেলসির হোঁচট শুরুতেই

  • ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগ, ফের চমক সোয়ানসির, কুর্তোয়ার লালকার্ডে হতাশ কোচ মরিনহো, চেলসি ২-২ সোয়ানসি সিটি

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের নতুন মৌসুমের (২০১৫-১৬) শুরুতেই ধাক্কা খেয়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন চেলসি। শনিবার নতুন মৌসুমের উদ্বোধনী দিনে নিজেদের মাঠ লন্ডনের স্টামফোর্ড ব্রিজে দ্য ব্লুজদের ২-২ গোলে রুখে দিয়ে ফের চমক দেখায় সোয়ানসি সিটি।

দারুণ উপভোগ্য ও উত্তেজনা ছড়ানো ম্যাচে ব্রাজিলিয়ান তারকা অস্কারের গোলে এগিয়ে যায় চেলসি। এরপর আন্দ্রে আইয়ুর গোলে সমতা ফেরায় অতিথি সোয়ানসি। পর মুহূর্তেই ফার্নান্ডেজের আত্মঘাতী গোলে ফের এগিয়ে যায় চেলসি। কিন্তু ৫৫ মিনিটে স্বাগতিক গোলরক্ষক থিবাউ কুর্তোয়ার ভুলে পেনাল্টি পায় সোয়ানসি। স্পট কিক থেকে গোমিজ গোল করে দলকে সমতায় ফেরান। পরশুর অন্য ম্যাচে এ্যাস্টন ভিলা ১-০ গোলে নবাগত বার্নমাউথকে, লিচেস্টার সিটি ৪-২ গোলে সান্ডারল্যান্ডকে ও নরউইচ সিটি ৩-১ গোলে পরাজিত করে ক্রিস্টাল প্যালেসকে। এভারটন ও ওয়াটফোর্ডের মধ্যকার ম্যাচটি অমীমাংসিত থাকে ২-২ গোলে।

স্টামফোর্ড ব্রিজে শুরু থেকেই জমজমাট হয়ে ওঠে খেলা। ম্যাচের ২৩ মিনিটে কোনাকুনি ফ্রিকিকে চেলসিকে এগিয়ে নেন অস্কার। বাঁদিক থেকে ব্রাজিলের এই মিডফিল্ডারের নেয়া বাঁকানো শটের দিক বুঝতে পারেননি সোয়ানসির গোলরক্ষক। ছয় মিনিট পরই গোল শোধ করে লড়াইয়ে ফেরে সোয়ানসি। ডি বক্সের ঠিক বাইরে থেকে দ্বিতীয় প্রচেষ্টায় বল জালে জড়ান চলতি মৌসুমেই সোয়ানসিতে যোগ দেয়া ঘানার ফরোয়ার্ড আন্দ্রে আইয়ু। অতিথিরা সমতা ফেরালেও এক মিনিটের ব্যবধানে ফের এগিয়ে যায় মরিনহোর দর। বামপ্রান্ত থেকে ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার উইলিয়ানের শট সোয়ানসির আর্জেন্টাইন ডিফেন্ডার ফেডেরিকো ফার্নান্ডেজের পায়ে লেগে গোলরক্ষকের মাথার ওপর দিয়ে জালে প্রবেশ করে। ম্যাচের ৫২ মিনিটে বড় ধাক্কা খায় চেলসি। ডি বক্সের মধ্যে বাফেটিম্বি গোমিজকে ফাউল করায় লালকার্ড দেখেন চেলসি গোলরক্ষক কুর্তোয়া। যে কারণে অস্কারকে মাঠ থেকে তুলে তার জায়গায় আরেক গোলরক্ষক আসমির বেগোভিচকে নামান কোচ জোশে মরিনহো। তবে ৫৫ মিনিটে ফরাসী ফরোয়ার্ড গোমিজের পেনাল্টি শট ফেরাতে পারেননি চেলসির হয়ে প্রিমিয়ার লীগে প্রথমবারের মতো খেলতে নামা বসনিয়ার এই গোলরক্ষক।

একজন কম নিয়ে খেলার খেসারত দিতে হয় চেলসিকে। ম্যাচের বাকি সময়ে গোল করা দূরে থাক, হার ঠেকানো নিয়েই তাদের ব্যস্ত থাকতে হয়। শেষ পর্যন্ত জয় না পেলেই ড্র নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারেন টেরি, কোস্তা, হ্যাজার্ডরা। ম্যাচ শেষে চেলসি কোচ মরিনহো বলেন, আমি অনেকবার বলেছি প্রিমিয়ার লীগ বিশ্বের সবচেয়ে কঠিন। এখানে এগারো জনের বিপক্ষে দশজন নিয়ে খেলা খুব কঠিন। এরপরও দল অনেক ভাল খেলেছে। বিশেষ করে প্রথমার্ধে অসাধারণ খেলেছে ছেলেরা। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে এক মিনিটেই সব পাল্টে গেছে। লালকার্ডের কারণেই ব্যবধানটা ২-২ হয়েছে।

কুর্তোয়াকে দেয়া রেফারির লালকার্ড নিয়ে কোন মন্তব্য না করলেও বেলজিয়াম গোলরক্ষকের পারফর্মেন্সে হতাশ হয়েছে স্পেশাল ওয়ান। তিনি বলেন, যদি আপনি দশজন নিয়ে খেলেন তাহলে জয়ের চিন্তা করাটা কঠিন। কুর্তোয়া সচেতন হলে এই পরিস্থিতিতে আমাদের পড়তে হতো না।

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে অভিষেকটা দুর্দান্ত হয়েছে আর্জেন্টাইন গোলরক্ষক সার্জিও রোমেরোর। টটেনহ্যামের বিপক্ষে রেড ডেভিলসরা আত্মঘাতী গোলে জয় পায়। কিন্তু ফলাফলটা হার কিংবা ড্রও হতে পারত। তা হয়নি রোমেরোর জ্বলজ্বলে নৈপুণ্যের কারণে। নতুন মৌসুমের শুরুতে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে নাম লেখালেও রোমেরোর ভাগ্য পরিবর্তনের পক্ষে বাজি ধরছিলেন না কেউই। সেই রোমেরোই ইউনাইটেডের হয়ে গোলবার আগলান স্পর্সদের বিপক্ষে। ম্যাচে মোট চারবার ইউনাইটেডকে নিশ্চিত গোলের হাত থেকে বাঁচিয়েছেন রোমেরো। খেলার শুরুতে একটু আড়ষ্ট মনে হলেও খেলা যত গড়িয়েছে ততই নিজের জাত চিনিয়েছেন এই আর্জেন্টাইন। মুহুর্মুহু আক্রমণের মুখেও বিচলিত হননি তিনি। শেষ পর্যন্ত ন্যূনতম ব্যবধান নিয়েই জয়ীর বেশেই মাঠ ছাড়ে ম্যানইউ। এর মূল কৃতিত্বই রোমেরোর।