২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

থামছে না বিদ্যুত চুরি, দুই প্লাস্টিক কোম্পানিকে জরিমানা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ কারখানা থেকে বাসা বাড়িÑ সুযোগ পেলেই ঘটছে বিদ্যুত চুরির ঘটনা। সাম্প্রতিক সময়ে বড় রকমের কয়েকজন বিদ্যুত চোরকে হাতেনাতে ধরেছে ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (ডিপিডিসি)। কিন্তু তারপরও থামছে না বিদ্যুত চুরি। কারখানা মালিক থেকে শুরু করে ক্ষেত্রবিশেষ সাবেক পদস্থ সরকারী কর্মকর্তা-বড় ব্যবসায়ীরাও চুরির সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার প্রমাণ পেয়েছে ডিপিডিসি। বিদ্যুত চুরির অভিযোগে সোমবার দুই প্লাস্টিক কোম্পানিকে ২৩ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, দেশে প্রতিবছর বিতরণ কোম্পানিগুলো সিস্টেমলসের হিসেব দেয় তার বেশিরভাগ বিদ্যুতই চুরি হয়। চুরি হয়ে যাওয়া বিদ্যুতকে সিস্টেমলস দেখিয়ে সাধারণ গ্রাহকের বিদ্যুতের দর বাড়িয়ে ওই অর্থ তুলে নেয় বিদ্যুত বিভাগ। এতে এক শ্রেণীর গ্রাহকের জন্য সার্বিকভাবে বিদ্যুতের দামও বাড়াতে হয়। কোন কোন ক্ষেত্রে বিতরণ কোম্পানির মাঠ পর্যায়ের ব্যক্তিরাও এই চুরির সঙ্গে সম্পৃক্ত।

ডিপিডিসির স্পেশাল টাস্কফোর্সের প্রধান মোহাম্মাদ মুনীর চৌধুরী এ প্রসঙ্গে জানান, বিদ্যুত চুরি ধরা পড়লে প্রকৃত বিলের তিন গুণ হারে জরিমানা গুনতে হবে। উপরন্তু জেলে যেতে হবে এবং ব্যবসা বন্ধ করে দেয়া হবে। সোমবার বিদ্যুত চুরির অভিযোগে ডি,এম. প্লাস্টিককে ১৬ লাখ টাকা এবং মীনা প্লাস্টিককে সাত লাখ টাকা জরিমানা করেছে ডিপিডিসি স্পেশাল টাস্কফোর্স। উভয় কারখানার বিদ্যুত সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে কারখানা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। অপরাধীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ডিপিডিসি সূত্র জানায়, রবিবার কামরাঙ্গীরচর এলাকায় ডি,এম. প্লাস্টিক কারখানাতে আকস্মিক অভিযান চালিয়ে দেখা যায় এ কারখানায় প্রতিদিন বিকালে ৫টা থেকে বেলা ১০টা পর্যন্ত মিটার বাইপাস করে বিদ্যুত ব্যবহার করে আসছে।