১২ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সাঙ্গার জন্য শ্রদ্ধাভরা অপেক্ষা...

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বুধবার গলে প্রথম টেস্ট দিয়ে শুরু শ্রীলঙ্কা-ভারত তিন ম্যাচের সিরিজ। যেখানে আর সবকিছু ছাড়িয়ে কুমার সাঙ্গাকারার অবসর। ২০ আগস্ট কলম্বোর পি সারা ওভালে দ্বিতীয় টেস্ট খেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানাবেন দেশটির কিংবদন্তিতুল্য এই ব্যাটসম্যান। বর্তমান অধিনায়ক এ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস, সাবেক হয়ে যাওয়া বন্ধু মাহেলা জয়াবর্ধনে থেকে প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়রারও তাকে বিদায়ী সম্মান জানাতে অধীর ...। ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি আগেভাগেই সাঙ্গার (সাঙ্গাকারার ডাক নাম) জন্য টুপি খোলা স্যালুট নিয়ে অপেক্ষা করছেন। সব মিলিয়ে পরাশক্তি দুই দেশের এই সিরিজজুড়ে এখন আলোচনায় কেবলই সাঙ্গাকারা। ‘সাঙ্গাকারা কেবল অসাধারণ ক্রিকেটারই নয়, একজন অসাধারণ মানুষও। দারুণ একটা বিদায়ী সংবর্ধনা তার পাওনা। ওর মতো কিংবদন্তির বিদায়ী ম্যাচে সাক্ষী হতে পারাটা হবে আমাদের জন্য গর্বের বিষয়। তবে মাঠে তাকে দ্রুত আউট করতে পারব বলে আশা করছি!’ গলে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমকে বলেন ভারত টেস্ট অধিনায়ক কোহলি। কিন্তু ইতিহাসটা কোহলিদের পক্ষে নয়। গত বাইশ বছরে শ্রীলঙ্কার মাটিতে টেস্ট সিরিজ জয়ের নজির নেই তাদের। তার ওপর মহেন্দ্র সিং ধোনি অবসরে (টেস্ট থেকে) যাওয়ায় একটা তরুণ দল নিয়ে এই সফরে নামতে হচ্ছে কোহলিকে। অধিনায়ক কোহলির জন্য যেটা প্রথম পূর্ণাঙ্গ সিরিজ।

কোহলি নিজে অবশ্য অতীত নিয়ে পড়ে থাকতে চান না। তিনি বলেন, ‘আপনি যখন ভাল খেলবেন, তখন রেকর্ড আর ইতিহাস পাশে পড়ে থাকবে। তারুণ্য নির্ভর দল নিয়ে আমরা এখানে নতুন ঘারনার আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলতে এসেছি।’ সুতরাং প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ এক সিরিজ হবে বলে ঘোষণা কোহলির। গ্রেট সাঙ্গাকারাকে বিদায় জানাতে প্রস্তুত লঙ্কানরাও। স্বাগতিক অধিনায়ক এ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস যেমন বলেন, ‘সিরিজ জয়ই হতে পারে ওর মতো গ্রেটের বিদায়ের সেরা উপহার। পাকিস্তান সিরিজটা মোটেই ভাল যায়নি, কিন্তু আমরা ঘুরে দাঁড়াব। ভারতের সঙ্গে ইতিহাসও আমাদের পক্ষে।’

ঠিক এক বছর আগে গত আগস্টে টেস্ট থেকে অবসর নেন মাহেলা জয়াবর্ধনে। যার অভিষেক হয়েছিল ১৯৯৭ সালে। তার তিন বছর পর ২০০০Ñএ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রাখেন সাঙ্গাকারা। মাঠ ও মাঠের বাইরে দুজনের বন্ধুত্ব যেন ক্রিকেটের আরেক রূপকথা। এবারের বিশ্বকাপ খেলে একসঙ্গে ওয়ানডে থেকে অবসর নেন। এবার অপার অবসর জীবনে মাহেলার সঙ্গী হওয়ার দ্বারপ্রান্তে সাঙ্গাকারা। সাঙ্গায় বিমোহিত মাহেলা বলেন, ‘সোজা কথা, সোজাভাবে বলাই শ্রেয়। শ্রীলঙ্কা আজ পর্যন্ত যে কজন দুর্ধর্ষ ব্যাটসম্যানের জন্ম দিয়েছে তার মধ্যে কুমার সাঙ্গাকারাই সেরা। ও আমাদের সর্বকালের সেরা ব্যাটসম্যান। আবেগের কারণে অনেকে হয়ত অরবিন্দ ডি সিলভার নাম বলবেন, তিনি আমারও প্রিয়। কিন্তু সংখ্যায় সাঙ্গাকে কে হরায়? ভাবা যায় ষাটটির বেশি আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরি ওর!’

১৩২ টেস্টে সাঙ্গাকারার মোট রান ১২,৩০৫, সেঞ্চুরি ৩৮। ৪০৪ ওয়ানডেতে রান ১৪,২৩৪ সেঞ্চুরি ২৫। অর্থাৎ দুই ভার্সনে সেঞ্চুরি সংখ্যা ৬৩। সাঙ্গাকারা কেন গ্রেট? তার ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে বন্ধু মাহেলা আরও যোগ করেন, ‘ও ব্যতিক্রম এক গ্রেট, কারণ বিশ্বের যে কোন প্রান্তে যে কোন দলের বিপক্ষে রান করার এমন ক্ষমতা কম ব্যাটসম্যানেরই রয়েছে। ক্যারিয়ারে এমন একটা মাইলস্টোনে পৌঁছেছে যেটি পরবর্তী প্রজন্মের জন্য অনুস্মরণীয় হয়ে থাকবে। আপনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এমন মানুষ কমই পাবেন, যে মাঠ ও মাঠের বাইরে দুই জায়গাতেই সমান গ্রেট।’ সাঙ্গাকারার শূন্যতা পূরণে শ্রীলঙ্কার সময় লাগবে বলেও মনে করেন তিনি। মাহেলা বলেন, ‘ওর বিদায়ে যে শূন্যতা তৈরি হবে, সেটি পূরণ হতে অনেক সময় লাগবে। সাঙ্গাকারার সঙ্গে খেলতে পেরে আমি নিজেকে ভাগ্যবান মনে করি।’

সময় লাগবে, তবে একেবারে অসম্ভব নয়। এ নিয়ে মাহেলার মন্তব্য, ‘আমার আর মাহেলার সম্ভাব্য পরিবর্তক হিসেবে এখন দুটি নামই মাথায় আসছে। যদি ফিট থাকে তবে দীনেশ চান্দিমাল আর লাহিরু থিরিমান্নে শ্রীলঙ্কাকে দীর্ঘদিন টানতে পারে। ওদের সেই ক্ষমতা আছে। জিহান মুবারক আর একজন। ওর মধ্যেও প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে। ভবিষ্যতে হয়ত আরও কেউ উঠে আসবে।’