১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নেইমারকে ছাড়াই শিরোপা মিশন বার্সিলোনার

  • উয়েফা সুপার কাপে কাতালানদের প্রতিপক্ষ সেভিয়া, নিজের জায়গা নিয়ে চিন্তিত নন দানবীর মেসি

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ব্রাজিলিয়ান অধিনায়ক নেইমারকে ছাড়াই এক বছরে ছয় শিরোপার মিশন শুরু করছে বার্সিলোনা। উয়েফা সুপার কাপের শিরোপানির্ধারণী ম্যাচে আজ স্বদেশী ক্লাব সেভিয়ার মুখোমুখি হচ্ছে গত মৌসুমে ট্রেবল জয়ী বার্সা। ইউরোপের দেশ জর্জিয়ার রাজধানী টিবিলিসিতে ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে।

তারকা স্ট্রাইকার নেইমার মাম্পস রোগে আক্রান্ত হয়ে দুই সপ্তাহের জন্য মাঠেই বাইরে চলে গেছেন। যে কারণে ম্যাচটি খেলতে পারছেন না তিনি। তবে নেইমার ছাড়া বাদ বাকি তারকাদের পাচ্ছেন কাতালানদের কোচ লুইস এনরিকে। প্রতিবছর উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ও উয়েফা ইউরোপা লীগের বিজয়ী দলের মধ্যে এই ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। গতবার চ্যাম্পিয়ন্স লীগ জয় করে বার্সিলোনা। আর ইউরোপা লীগ জেতে সেভিয়া। যে কারণে দল দুটি এবার মুখোমুখি হচ্ছে উয়েফা সুপার কাপে। গত মৌসুমে (২০১৪-১৫) স্প্যানিশ লা লিগা, স্প্যানিশ কোপা ডেল রে ও চ্যাম্পিয়ন্স লীগের শিরোপাসহ ট্রেবল জয় করে ইতিহাস গড়ে বার্সিলোনা। এখন দলটির সামনে মূল লক্ষ্য ছয় বছর আগে এক বছরে পেপ গার্ডিওলার অধীনে জেতা ছয় শিরোপা জয়ের পুনরাবৃত্তি করা। আগের তিন শিরোপার সঙ্গে এবার বার্সার লক্ষ্য উয়েফা সুপার কাপ, স্প্যানিশ সুপার কাপ ও ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপ জয় করা। এ লক্ষ্যে আজ উয়েফা সুপার কাপের ম্যাচে মাঠে নামছেন মেসি, সুয়ারেজ, রাকিটিচরা।

কোপা আমেরিকায় ব্রাজিলের হয়ে হতাশাজনক মিশন শেষে কিছুদিন আগে বার্সিলোনা শিবিরে ফিরেছিলেন ২৩ বছর বয়সী নেইমার। প্রাক-মৌসুমে বাজে একটি সময় কাটানোর পরে তাকে ও লিওনেল মেসিকে পেয়ে অন্যরাও চাঙ্গা হয়ে উঠেছিল। গত সপ্তাহে প্রাক-মৌসুমের শেষ ম্যাচে রোমাকে হারিয়ে জোয়ান গ্যাম্পার ট্রফি জয় করে বার্সা। ম্যাচটিতে মেসি ও নেইমার দু’জনই গোল করেন। কোপা আমেরিকার ফাইনাল শেষে শ্রীষ্মকালীন ছুটি কাটিয়ে এক সপ্তাহ আগেই দলে যোগ দিয়েছেন আর্জেন্টাইন তারকা মেসি। তার সঙ্গে আছেন উরুগুয়ের স্ট্রাইকার লুইস সুয়ারেজ। নেইমারের অনুপস্থিতিতে পেড্রো রড্রিগুয়েজের সেরা একাদশে খেলা প্রায় নিশ্চিত। আজকের ম্যাচ প্রসঙ্গে সেভিয়ার সাবেক মিডফিল্ডার ইভান রাকিটিচ মনে করেন শিরোপার মাধ্যমে মৌসুম শুরু করার মতো ভাল ফল একটি ক্লাবের জন্য আর কিছুই হতে পারে না। বার্সিলোনা ইতিহাস রচনা করতে চায় এবং এ লক্ষ্যে তারা ধীরে ধীরে অগ্রসর হতে চায়। নতুন খেলোয়াড় রেজিস্ট্রেশনের বিষয়ে নিষেধাজ্ঞার কারণে এবারও বার্সিলোনায় কোন নতুন মুখ দেখা যাবে না। এরপরও এ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ থেকে আরডা টুরান ও সেভিয়া থেকে এ্যালেক্স ভিদালকে দলভুক্ত করেছে কাতালানরা। শুধু ভিদালই এবার সেভিয়া ছেড়ে চলে যাননি, গত দুই বছরের সর্বোচ্চ গোলদাতা কার্লোস বাক্কাও এসি মিলানে পাড়ি জমিয়েছেন। এদের অনুপস্থিতিতে দলে নয়জন নতুন খেলোয়াড় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এদের মধ্যে অন্যতম ইউক্রেনিয়ান তারকা এওভেন কোনোপ্লাইনকা। এসব কারণে বার্সিলোনার বিপক্ষে সাফল্য পেতে সেভিয়াকে সংগ্রাম করতে হবে বলে মনে করছেন অনেকে।

ম্যাচটির আগে অসহায় শিশুদর পাশে দাঁড়িয়েছেন মেসি। আগে থেকেই শিশুদের পাশে দাঁড়ানো বার্সা তারকা ২০০৭ সালে ‘লিও মেসি ফাউন্ডেশন’ প্রতিষ্ঠা করেন। এবার আর্জেন্টিনার অভাবগ্রস্ত শিশুদের জন্য ইউনিসেফকে আর্জেন্টাইন মুদ্রায় ৪৫ লাখ অর্থ সহায়তা দিয়েছেন। যা প্রায় পাঁচ লাখ ডলারের সমান। বার্সিলোনা থেকে ভিডিও লিংকের মাধ্যমে আর্জেন্টিনায় চলমান ইউনিসেফের প্রচারে অংশ নেন মেসি। আকস্মিক তার অংশগ্রহণে সবাই রীতিমতো অবাক হয়। সেখানে তিনি স্বদেশী শিশুদের জন্য শুভকামনা জানান এবং তাদের সাহায্যার্থে চেক প্রদর্শন করেন। ২০১০ সালে ইউনিসেফের শুভেচ্ছা দূত হন মেসি। এরপর থেকেই শিশুদের অধিকার রক্ষার কাজে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছেন তিনি। ২০১৩ সালে নিজ শহর রোজারিওতে অবস্থিত শিশু হাসপাতালে ছয় লাখ ইউরোর অর্থ সহায়তা দেন চারবারের বিশ্বসেরা খেলোয়াড়। উয়েফা সুপার কাপের ম্যাচের আগে এক সাক্ষাতকারে মেসি জানিয়েছেন, দলের প্রয়োজনে যে কোন পজিশনে খেলতে আপত্তি নেই তার। জার্মান কিট-মেকার্স আডিডাসের ‘বি দ্য ডিফারেন্স ক্যাম্পেন’ অনুষ্ঠানে এমন মন্তব্য করেন মেসি। ২৮ বছর বয়সী মেসি বেশিরভাগ সময়ই আক্রমণভাগে খেলে অভ্যস্ত। এই পজিশনে খেলেই দলকে সাফল্য এনে দিয়েছেন তিনি। তবে দলের প্রয়োজনে পজিশন পরিবর্তন করতে কোন সমস্যা নেই তার। এ প্রসঙ্গে মেসি বলেন, যদি দলের প্রয়োজন হয় তবে যে কোন জায়গায় খেলতে রাজি আছি আমি। অনেক ফুটবলারের পরন্ত ক্যারিয়ারে তাদের নিচে খেলানো হয়, এটা একটা পন্থা। কিন্তু আমি এরই মধ্যে অসংখ্যবার মিডফিল্ডে খেলেছি। ফরোয়ার্ড, ডিপফরোয়ার্ড ও মিডফিল্ডে খেলতে পারায় খুশি আমি।