১২ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কারখানা ম্যানেজারসহ গাজীপুরে তিন লাশ উদ্ধার

নিজস্ব সংবাদদাতা, গাজীপুর॥ গাজীপুরে অপহরনের দু’দিন পর মঙ্গলবার আনসার ও ভিডিপি একাডেমির পাশর্^বর্তী লেক থেকে হাত-পা বাঁধা এক কারখানা কর্মকর্তার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এছাড়াও পৃথক ঘটনায় নিহত রিক্সা চালকসহ নিহত আরো দু’জনের লাশ পৃথক স্থান থেকে পুলিশ উদ্ধার করেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসি জানায়, কালিয়াকৈর পৌরসভার চন্দ্রা পল্লী বিদ্যুৎ এলাকার ডিভাইন ফেব্রিক্সের অলওভার প্রিন্ট শাখার উৎপাদন ব্যবস্থাপক (প্রোডাকশন ম্যানেজার) প্রকৌশলী মাসুম মিয়া (৩৮) কাজ শেষে রবিবার রাত ১০টার দিকে কারখানা থেকে বাসায় ফেরার জন্য পল্লী বিদ্য্ৎু বাস ষ্ট্যান্ডের দিকে যাচ্ছিলেন। পথে ক’দুর্বৃত্ত তাকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। এরপর থেকে তার খোঁজ পাওয়া যায়নি। এঘটনায় সোমবার অপহৃতের ভাই সোহেল মিয়া কালিয়াকৈর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। মঙ্গলবার সকালে এলাকাবাসির সংবাদের ভিত্তিতে কালিয়াকৈরের সফিপুরস্থ আনসার ভিডিপি ও একাডেমির পাশর্^বর্তী লেক থেকে হাত-পা বাঁধা মাসুম মিয়ার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

এদিকে, এলাকাবাসির সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ কালিয়াকৈর উপজেলার কালামপুর এলাকায় রেললাইনের পাশের জঙ্গল থেকে মঙ্গলবার দুপুরে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে। নিহত ওই যুবকের (২৮) পরিচয় পাওয়া যায়নি। নিহতের শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তার পড়নে লাল-সাদা চেক গেঞ্জি ও জিন্সের প্যান্ট ছিল।

এছাড়াও জয়দেবপুর থানাধীন পালের পাড়া এলাকায় রতন মাঝি নামের এক রিক্সা ভ্যান চালককে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে সোমবার দিবাগত রাতে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। খবর পেয়ে পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে। নিহতের নাম রতন মাঝি। সে বরিশালের তেতুলিয়া গ্রামের রুস্তম মাঝির ছেলে। নিহতের স্বজনদের দাবি, মামলার স্বাক্ষী সংক্রান্ত পূর্ব শত্রুতার জের ধরে রতন মিয়াকে হত্যা করা হয়েছে।

পুলিশ ময়না তদন্তের জন্য লাশ তিনটি গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।