২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাংলাদেশ-স্লোভেনিয়া অব্যবহৃত খাত কাজে লাগাতে প্রধানমন্ত্রীর গুরুত্বারোপ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ ও স্লোভেনিয়ার মধ্যে বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সম্পর্কের অধিকতর সম্প্রসারণে অব্যবহৃত সম্ভাবনাময় খাতগুলো কাজে লাগাতে দুদেশের মধ্যে প্রাতিষ্ঠানিক যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, দুদেশের বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সম্পর্কের আরও উন্নয়নে অব্যবহৃত সম্ভাবনা কাজে লাগাতে বাণিজ্য, বিনিয়োগ ও চেম্বার প্রতিনিধি বিনিময়ের মতো ব্যবস্থা গড়ে তোলা প্রয়োজন। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মঙ্গলবার তাঁর শেরে বাংলানগরে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ ভবন কার্যালয়ে সেøাভেনিয়ার অনাবাসিক রাষ্ট্রদূত দারজাবাবডাজ কুয়েত সাক্ষাত করতে গেলে শেখ হাসিনা এ কথা বলেন। বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। খবর বাসসর।

উভয় দেশের জনগণের মধ্যকার সম্পর্ক জোরদারের ওপর গুরুত্বারোপ করে শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ ও সেøাভেনিয়া দুদেশের স্বার্থে বিভিন্ন খাতে পারস্পরিক সহযোগিতা স্থাপন করা প্রয়োজন। তিনি দুদেশের সম্পর্ক জোরদারে বাংলাদেশ থেকে বিশ্বমানের বিভিন্ন পণ্য আমদানি করতে সেøাভেনিয়া সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ এখন সিরামিক, তৈরি পোশাক, ওষুধ, পাট ও পাটজাত পণ্য, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যের মতো বিশ্বমানের বিভিন্ন সামগ্রী প্রস্তুত করছে। সেøাভেনিয়ার ব্যবসায়ীরা এসব পণ্য আমদানি করতে পারে। বিভিন্ন আর্থ-সামাজিক খাতে সরকারের ব্যাপক সাফল্যের উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রশাসনের বিভিন্ন কার্যকর পদক্ষেপের ফলশ্রুতিতে বাংলাদেশ খাদ্যে স্বনির্ভরতা অর্জন করেছে।

আঞ্চলিক যোগাযোগ প্রতিষ্ঠার ওপর গুরুত্বারোপ করে তিনি বলেন, আঞ্চলিক যোগাযোগ সম্প্রসারণ ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক জোরদারে সম্প্রতি বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল ও ভুটানের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। বৈঠকের শুরুতে তিনি তদানিন্তন যুগোশ্লাভিয়ার অবিভক্ত অংশ হিসেবে সেøাভেনিয়ার ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে সমর্থন দেয়ার কথা কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করেন।

সেøাভেনিয়ার রাষ্ট্রদূত বলেন, দুদেশের অর্থনৈতিক ও জনগণের মধ্যকার সম্পর্ক আরও বাড়াতে তিনি ইতোমধ্যে বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বৈঠক করেছেন এবং বাংলাদেশ ও ভিয়েতনামের শিল্প-বাণিজ্য সংস্থা দুটির মধ্যে সমঝোতা স্মারকও স্বাক্ষরিত হবে। রাষ্ট্রদূত দুদেশের মধ্যে সাংস্কৃতিক প্রতিনিধি দল বিনিময়ের ওপর গুরুত্বারোপ করে ক্রীড়াখাতে সম্পর্ক আরও সম্প্রসারণে বাংলাদেশে দক্ষ ফুটবল কোন পাঠানোর প্রস্তাব দেন।