২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পাবনায় মুরগি খামারীরা বিপাকে

নিজস্ব সংবাদদাতা, পাবনা, ১১ আগস্ট ॥ জেলার দু’হাজার ব্রয়লার ও সোনালি মুরগি খামারীরা বিপাকে পড়েছে। মুরগির দাম অস্বাভাবিক কমে যাওয়ায় উৎপাদন খরচও উঠছে না। এ পরিস্থিতিতে বিপুল লোকসানের বোঝা নিয়ে খামারিরা উৎপাদন চালু রাখতে হিমশিম খাচ্ছে। অনেক খামারীই ব্যবসা বন্ধ করতে বাধ্য হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। তথ্য মতে, দু’মাস ধরে ব্রয়লার ও সোনালি মুরগির দাম অস্বাভাবিক কমেছে। মুরগির বাচ্চা, ওষুধ ও ফিডের দাম বাড়লেও মুরগির দাম কমে যাওয়ায় উৎপাদন খরচও উঠছে না। দিনের পর দিন লোকসান গুনে খামারীরা ব্যবসা ছেড়ে দিতে বাধ্য হচ্ছে। সদর থানার জালালপুরের খামার ব্যবসায়ী কামরুল ইসলাম কমল ও আটঘরিয়ার উপজেলার শীবপুরের খামারী রেজাউল করিম জানিয়েছেন, ব্রয়লার প্রতিটি বাচ্চা ৭০ টাকায় কিনে ৪০ দিন পালন করতে হয়। ৪০ দিনের প্রতিটি বাচ্চার ৩ কেজি করে ফিড লাগে। ৩ কেজি ফিডের দাম ১শ’ ৫০ টাকা। স্বাভাবিক সুস্থ থাকলে প্রতিটির মুরগির ওজন হয় ১ কেজি ৮শ’ গ্রাম। প্রতিটিতে ওষুধ খরচ ১৫ টাকা। তাতে একটি ব্রয়লার মুরগিতে উৎপাদন খরচ হয় ২শ’ ৩৫ টাকা। সেক্ষেত্রে বাজারে ব্রয়লার পাইকারি বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি সর্বোচ্চ ১শ’ ২০ টাকা। প্রতিটি মুরগিতে ৩৫-৪০ টাকা লোকসান গুনতে হচ্ছে খামারীদের। তার পরেও বাজারে ক্রেতা খুব কম। তাই অনেক খামারী মোড়ে মোড়ে মাইকিং করে মুরগি বিক্রিতে বাধ্য হচ্ছে। অন্য দিকে সোনালি মুরগির দামও কমে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছে খামারীরা। সোনালি মুরগির প্রতিটি বাচ্চা ২৫ টাকা দরে কিনতে হচ্ছে। ৪০টাকা কেজি ফিড কিনে ওষুধসহ সোনালি মুরগির উৎপাদন খরচ হয় প্রতি কেজি ১শ’ ৮০ টাকা। সেখানে বর্তমানে বাজারে সোনালি মুরগি পাইকারি বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ১শ’ ৬০টাকা। প্রতি কেজিতে ২০ টাকা করে লোকসান গুনতে হচ্ছে।