২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দুঃসময় পেরিয়ে ফের স্বমহিমায় মেসি

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ গত সপ্তাহে অবাক করা অবিশ্বাস্য কা- ঘটিয়ে সমালোচনায় জর্জরিত হন লিওনেল মেসি। জোয়ান গ্যাম্পার ট্রফির ম্যাচে এএস রোমার ফরাসী ফুটবলার এমাপো ইয়াঙ্গা-এমবিয়ার গলা চেপে ধরে ঢুস মারেন বার্সিলোনা তারকা। জাতীয় দলের জার্সিতে ব্যর্থ হওয়ার সমালোচনার পর এই ‘আকাম’ মেসিকে আরও কলুষিত করে।

অবশেষে সব সমালোচনা আর ধাক্কা সামলিয়ে স্বরূপে ফিরেছেন সাবেক রেকর্ড টানা চারবারের ফিফা সেরা ফুটবলার। মঙ্গলবার রাতে উয়েফা সুপার কাপে বার্সিলোনা রেকর্ড শিরোপা জিতেছে মূলত তার নৈপুণ্যে উপর ভর করেই। ম্যাচে মেসি জোড়া গোল করেন, দুটিই চোখ ধাঁধানো ফ্রিকিক থেকে। এর মধ্য দিয়ে ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো এক ম্যাচে দুইবার ফ্রিকিক থেকে গোল করার কৃতিত্ব দেখিয়েছেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। অসাধারণ এই নৈপুণ্যের কারণে প্রতিপক্ষ সেভিয়ার ফুটবলাররা মেসিকে ‘সর্বকালের সেরা’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। আর এই শিরোপা জিতে ক্লাবের সাবেক তারকা জাভি হার্নান্দেজের সর্বোচ্চ ২৫ শিরোপা জয়ের রেকর্ডে ভাগ বসিয়েছেন মেসি। বার্সিলোনার হয়ে এই রেকর্ড শিরোপা জয়ে মেসির সঙ্গে আছেন বর্তমান অধিনায়ক আন্দ্রেস ইনিয়েস্তাও। শুধু তাই নয়, প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর সঙ্গে সব ধরনের প্রতিযোগিতায় সর্বোচ্চ ৮০ গোলের রেকর্ড স্পর্শ করেছেন এই আর্জেন্টাইন গোলমেশিন।

গত মৌসুমটা যেখানে শেষ করেছিলেন, নতুন মৌসুমটা ঠিক যেন সেখান থেকেই শুরু করেছেন মেসি। এখন মৌসুমজুড়ে এই সাফল্য ধরে রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন ২৮ বছর বয়সী এই তারকা। শিরোপা জয়ের পর ফ্রিকিক থেকে গোল পাওয়া নিয়ে কথা বলেন ম্যাচসেরা মেসি। তিনি বলেন, আমি যথেষ্ট ভাগ্যবান যে গোলগুলো পেয়েছি। দল জিতেছে বলে আমি খুব খুশি। সমর্থনের জন্য সবার প্রতি কৃতজ্ঞ। আমি এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখার চেষ্টা করব। মেসির অসাধারণ পারফর্মেন্সে গত মৌসুমে ট্রেবল জয় করে বার্সিলোনা। তবে জাতীয় দলের জার্সি গায়ে কোপা আমেরিকায় খুব একটা আলো ছড়াতে পারেননি তিনি। আর্জেন্টিনা টুর্নামেন্টটির ফাইনালে উঠলেও শেষ হাসি হাসতে পারেননি মেসি। জাতীয় দলের হয়ে আরও একবার শূন্য হাতে ফিরতে হয় তাকে। অথচ বার্সিলোনার জার্সি গায়ে মেসি মৌসুমের শুরু থেকেই দ্যুতি ছড়াতে শুরু করলেন। ক্লাবটিতে তাই এক বছরে ছয় শিরোপা জয়ের স্বপ্ন বেশি করে ডালপালা মেলতে শুরু করেছে। এ প্রসঙ্গে মেসি বলেন, আসল কথা হচ্ছে জয় এবং যত বেশি সম্ভব ট্রফি জয়। এই জয় তাৎপর্যপূর্ণ। কারণ, সুপার কাপ জয় মৌসুমটা ঠিকভাবে শুরু করার বিষয়টি উপস্থাপন করে। তাই আমরা আনন্দিত। সব শিরোপাই দারুণ।

ম্যাচ শেষে মেসির প্রশংসায় পঞ্চমুখ হন সতীর্থ ও প্রতিপক্ষের ফুটবলাররা। মেসিকে সর্বকালের সেরা খেলোয়াড়ের ঘোষণা দিয়ে দেন সেভিয়া উইঙ্গার ভিটোলো। ম্যাচে ১৫ মিনিটের ব্যবধানে ফ্রিকিক থেকে দুটি গোল করেন মেসি। এছাড়া আরেকটি ফ্রিকিক ক্রসবারের কোণায় চুমু খেয়ে বেরিয়ে যায়। আরও একটা ফ্রিকিক পেড্রোর ফল নির্ধারক গোলের উৎস। ম্যাচে যেন ফ্রিকিকের জাদুর নেশায় পেয়ে বসেছিল মেসিকে। একাই এভাবে ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারণ করে দেয়ার সামর্থ্য সব খেলোয়াড়ের থাকে না। মেসিকে সর্বকালের সেরা হিসেবে মেনে নিতে তাই কোন দ্বিধা বা সংকোচ নেই ভিটোলোর। তিনি বলেন, মেসিই সর্বকালের সেরা খেলোয়াড়। ম্যাচে তো ও ছিল অবিশ্বাস্য। অবিশ্বাস্য খেলেছে সেভিয়াও। ৪-১ গোলে পিছিয়ে থাকার পরও ম্যাচে এভাবে ফিরে আসা! এক ম্যাচে চার গোল বার্সা গোলরক্ষক মার্ক-আন্দ্রে টার স্টেগান শেষ কবে খেয়েছেন! সবাই মিলে একসঙ্গে আক্রমণ আর রক্ষণ সামলেছে সেভিয়া। একটা সময় তো মনে হচ্ছিল, মাঠে ওদের ১১ খেলোয়াড়ই খেলছে তো! এ কারণে নিজেদের বা বা দিতেও ভুল করেননি ভিটোলো। বলেন, আমরা দশে ১০ নম্বর পাওয়ার মতোই খেলেছি। প্রচুর পরিশ্রম করেছি, দৌড়েছি। বার্সার মতো ক্লাবের বিপক্ষে ৪-১ গোলে পিছিয়ে থাকার পর ম্যাচে ফিরে আসা সহজ কথা নয়।

সুপার কাপের শিরোপা জিতে জাভি হার্নান্দেজের পাশে নাম লিখিয়েছেন লিওনেল মেসি ও আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা। গত মৌসুম শেষে বার্সিলোনাকে বিদায় জানানোর আগে ক্লাবটির হয়ে জাভির ২৫ শিরোপা জয়ের রেকর্ড ছুঁয়েছেন তারা। মেসি-ইনিয়েস্তার এটি তৃতীয় উয়েফা সুপার কাপ জয়। এ দু’জন স্পেনের সুপার কাপও তিনটি করে জেতেন। দুটি করে জিতেছেন ক্লাব বিশ্বকাপ। সাতটি লীগ শিরোপা জয়ের পাশাপাশি চারটি চ্যাম্পিয়ন্স লীগও জেতেন তারা। কোপা ডেল’রের শিরোপা তুলে ধরেন তিনবার করে।