২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দ. আফ্রিকা-নিউজিল্যান্ড প্রথম টি২০ আজ

স্পোর্টস রিপোর্টার॥ কিছুদিন আগে বাংলাদেশ সফর করে গেছে দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দল। সফরে দারুন দুর্গতির মধ্যে পড়েছিল তারা। অবশ্য ওয়ানডে সিরিজে হেরে গেলেও এর আগেই টি২০ সিরিজ জয় করে প্রোটিয়া শিবির। এবার ঘরের মাটিতে সফরকারী নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে লড়াই। এবার বিশ্বকাপের পর আর কোন ফরমেটেই মুখোমুখি হয়নি দু’দল। আর টি২০ ক্রিকেটে সর্বশেষ সাক্ষাত হয়েছিল গত বছর বিশ্বকাপে বাংলাদেশের মাটিতে। আর বিশ্বকাপ ছাড়া প্রোটিয়া-নিউজিল্যান্ড সর্বশেষ মোকাবেলা হয় দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে ২০১২ সালের ডিসেম্বরে। গত তিন বছরে এ দুটিই লড়াই হয়েছে দু’দলের মধ্যে টি২০ ক্রিকেটে। দুটোইতেই জয় তুলে নিয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। আজ আবার মুখোমুখি হচ্ছে দু’দল। বাংলাদেশ সময় রাত ১০টায় সিরিজের প্রথম টি২০ ম্যাচে ডারবানে অবতীর্ণ হবে দু’দল। সিরিজে আরও এক টি২০ রয়েছে।

বাংলাদেশ সফরে বেশ সংগ্রাম করতে হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকাকে। কিন্তু সেটাকে তেমন গুরুত্ব দিচ্ছেন না নিউজিল্যান্ডের মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যান গ্রান্ট ইলিয়ট। তিনি মনে করেন বাংলাদেশের কন্ডিশনে যেকোন দলকেই সংগ্রাম করতে হয় ধীরগতির উইকেটের কারণে। এ বিষয়ে তিনি বলেন,‘নিজেদের কন্ডিশনে বাংলাদেশ কঠিণ প্রতিপক্ষ। আমিও বাংলাদেশ সফরে ছিলাম এবং একটা ম্যাচ জয়ের জন্য কঠিণ চ্যালেঞ্জে পড়তে হয়েছে আমাদের। টার্নিং ও ধীরগতির উইকেটে মানিয়ে নেয়াটা কঠিণ।’ আইসিসি র‌্যাঙ্কিং অনুসারে টি২০ ফরমেটে প্রায় সমশক্তির দল দক্ষিণ আফ্রিকা ও নিউজিল্যান্ড। দক্ষিণ আফ্রিকা চার নম্বরে আছে নিউজিল্যান্ডের চেয়ে মাত্র ১ রেটিং কম নিয়ে। তবে সম্প্রতিই জিম্বাবুইয়ে সফর করে আফ্রিকার কন্ডিশনের সঙ্গে এবারের মতো ভালভাবেই ধারণা পেয়ে গেছে ব্ল্যাক ক্যাপস শিবির। যদিও নিউজিল্যান্ড দল এবার সফরে পাচ্ছেনা ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম, রস টেলর ও টিম সাউদির মতো অপরিহার্য তিন তারকাকে। কিন্তু জিম্বাবুইয়ে সফরে ওয়ানডে ও টি২০ সিরিজ জিতে উজ্জীবিত নিউজিল্যান্ড এবার অতীত পরাজয়ের প্রতিশোধ নেয়ার জন্য মুখিয়ে আছে।

তিন বছর আগে সর্বশেষ দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে টি২০ খেলেছে নিউজিল্যান্ড। সেবার তিন ম্যাচের টি২০ সিরিজে ২-১ ব্যবধানে হেরে গিয়েছিল স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে। এরপর গত বছর বাংলাদেশের মাটিতে বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বে দারুন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচে ২ রানে হেরে যায় নিউজিল্যান্ড। এছাড়া আর টি২০ খেলেনি দু’দল। অবশ্য টি২০ ফরমেটে বরাবরই দক্ষিণ আফ্রিকার চেয়ে বেশ পিছিয়ে ব্ল্যাক ক্যাপসরা। এর আগে দু’দল ১২ ম্যাচ খেলেছে যার মধ্যে মাত্র তিনবার জয় তুলে নিতে পেরেছে নিউজিল্যান্ড। অপরদিকে, দক্ষিণ আফ্রিকা ৯ ম্যাচ জিতে নিজেদের এ ফরমেটে ব্ল্যাক ক্যাপসদের চেয়ে শক্তিধর হিসেবে প্রমাণ করেছে। আর বাংলাদেশ সফরে ওয়ানডে সিরিজ হারলেও ঠিকই টি২০ সিরিজে ২-০ ব্যবধানে জিতে দেশে ফিরেছে প্রোটিয়ারা। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ওয়ানডে সিরিজ না খেললেও এবার শুরু থেকেই প্রোটিয়ারা পাচ্ছে অন্যতম নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান এবি ডি ভিলিয়ার্সকে। এর সঙ্গে আছেন ভয়ঙ্কর ডেভিড মিলার। তাছাড়া মরনে মরকেল, তরুন কাগিসো রাবাদা ও কাইল এ্যাবট ছাড়াও আছেন ইমরান তাহির ও এ্যারন ফাঙ্গিসোর মতো দুই কার্যকরী স্পিনার। তবে নিউজিল্যান্ড দলে মার্টিন গাপটিল ও কেন উইলিয়ামসনের মতো ব্যাটসম্যানরা আছেন এ আক্রমণ সামাল দেয়ার জন্য। চলতি বছরে দারুন ফর্মে আছেন এ দুই টপঅর্ডার। তাই লড়াইটা হবে সমানে-সমান।

দক্ষিণ আফ্রিকা টি২০ দল॥ ফাফ ডু প্লেসিস (অধিনায়ক), কাইল এ্যাবট, হাশিম আমলা, ফারহান বেহারডিয়েন, এবি ডি ভিলিয়ার্স, জেপি ডুমিনি, এডি লেই, ডেভিড মিলার, মরনে মরকেল, এ্যারন ফাঙ্গিসো, কাগিসো রাবাদা, রিলি রুশো, মরনে ভ্যান উইক (উইকেটরক্ষক) ও ডেভিড উইয়েস।

নিউজিল্যান্ড টি২০ দল॥ কেন উইলিয়ামসন (অধিনায়ক), ডগ ব্রেসওয়েল, গ্র্যান্ট ইলিয়ট, মার্টিন গাপটিল, ম্যাট হেনরি, টম লাথাম, মিচেল ম্যাক্লেনাঘান, নাথান ম্যাককুলাম, এডাম মিলনে, কলিন মুনরো, জেমস নিশাম, লুক রনকি (উইকেটরক্ষক), মিচেল স্যান্টনার, ইশ সোধি ও বেন হুইলার।