২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সহজে ঋণ পেতে চান নারী উদ্যোক্তারা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো ঋণ প্রদানের বর্তমান প্রক্রিয়াকে আরও সহজ করার দাবি জানিয়েছেন নারী উদ্যোক্তারা। নারী উদ্যোক্তা উন্নয়ন ইউনিট সম্মেলন ২০১৫-তে অংশগ্রহণকারী নারী উদ্যোক্তারা এ দাবি জানান। উদ্যোক্তাদের এমন দাবির প্রেক্ষিতে হয়রানী মুক্তভাবে ঋণ দেয়ার জন্য ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের প্রতি আহ্বান জানান বাংলাদেশ ব্যাংক গবর্নর। বৃহস্পতিবার রাজধানীর মিরপুরে বাংলাদেশ ব্যাংক ট্রেনিং একাডেমিতে (বিবিটিএ) এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের আয়োজনে সম্মেলনে দেশের বিভিন্নস্থানের কয়েকশ’ নারী উদ্যোক্তা অংশগ্রহণ করেন। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গবর্নর ড. আতিউর রহমান। তিনি নারী উদ্যোক্তাদের সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দেন।

সম্মেলনে উন্মুক্ত আলোচনা পর্বে নারী উদ্যোক্তারা ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণ পেতে নানা ধরনের সমস্যার কথা তুলে ধরেন। ঋণ পাওয়ার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করতে গিয়ে একটি ফ্যাশন হাউসের উদ্যোক্তা তাপসী সাহা বলেন, ঋণ নিতে ব্যাংকে যাওয়ার পরে আমাকে ট্রেড লাইসেন্স, ব্যাংক স্টেটমেন্ট, টিন নম্বরসহ বহু কাগজের একটি তালিকা ধরিয়ে দিলেন কর্মকর্তা। এ সব কাগজ প্রস্তুত করতে এক বছরের বেশি সময় ব্যয় হয়। তিনি সময় বাঁচাতে প্রত্যেক নারী উদ্যোক্তাকে শুধু ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে ঋণ প্রদান করার দাবি জানান এবং পরবর্তীতে সব কাগজ জমা দেয়ার শর্তারোপের কথা বলেন। তার মতে, এভাবে ঋণ না দিলে কোন উদ্যোক্তাই ব্যবসা শুরু করে ঋণ পাবে না। কারণ কাগজপত্র প্রস্তুত করতে পার হবে এক বছর। নারী উদ্যোক্তা ফারজানা বলেন, ঋণের আবেদন করার আগেই ব্যাংকগুলো একগাদা কাগজের তালিকা ধরিয়ে দেন। ঋণ পাওয়ার প্রক্রিয়া সহজ না করলে আমরা ব্যবসার প্রসার ঘটাতে পারব না। তাপসী ও ফারজানা ছাড়াও আরও কয়েকজন নারী উদ্যোক্তা ঋণ পাওয়ার বিষয়ে নিজের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেন। তারাও ঋণ পাওয়ার প্রক্রিয়াকে সহজ করার দাবি জানান।

বাংলাদেশ ব্যাংকের গর্ভনর ড. আতিউর রহমান তাদের অভিজ্ঞতা শুনে তা সমাধানের পথ দেখান। এ বিষয়ে বাণিজ্যিক ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, হয়রানী মুক্তভাবে নারী উদ্যোক্তাদের ঋণ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে। প্রয়োজনে ব্যাংক কর্মকর্তাদের সঙ্গে নারী উদ্যোক্তাদের মতবিনিময় করার ব্যবস্থা করতে হবে। তাদের সমস্যার সমাধান ও নারী উদ্যোক্তা হতে উৎসাহ প্রদান করতে হবে। তিনি আরও বলেন, এসএমই ও নারী উদ্যোক্তারা প্রায়ই অভিযোগ করে থাকেন, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো নারী উদ্যোক্তাদের চাহিদা ও প্রয়োজন সর্ম্পকে উদাসীন। বিদম্যান ঋণ প্রকল্পও নারী উদ্যোক্তাদের উপযোগী নয়। এ ধরনের সমস্যা সমাধানে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে প্রয়োজনে ঋণ প্রকল্প সংশোধন করতে হবে। নারী উদ্যোক্তাদের প্রসার ঘটাতে বাংলাদেশ ব্যাংক ট্রেনিং একাডেমিতে একটি প্রশিক্ষণ সেন্টার স্থাপন করার কথাও জানান গবর্নর। তিনি বলেন, এখানে বিবিটিএ’র সঙ্গে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট যৌথভাবে নারীদের বিভিন্ন কাজের হাতে কলমে প্রশিক্ষণ দেবে। আগামী বছরের জানুয়ারিতে শুরু হতে পারে এ কার্যক্রম। নারী উদ্যোক্তাদের জন্য সিটি কর্পোরেশনে উইমেন মার্কেট করে তাদের উৎপাদিত পণ্যগুলো বিক্রয় ও প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করার ওপরও জোর দেন গবর্নর। ডেপুটি গবর্নর এসকে সুর চৌধুরী বলেন, আর্থিক সচ্ছলতা না থাকায় পরিবার ও সমাজে অনেক নির্যাতিত। তাই নারীর ক্ষমতায়নে আমরা অধিক গুরুত্ব দিয়েছি। বাংলাদেশ ব্যাংকের এসএমই এ্যান্ড স্পেশাল প্রোগ্রাম ডিপার্টমেন্টের মহাব্যবস্থাপক স্বপন কুমার রায়ের সভাপতিত্বে সম্মেলনে আরও বক্তব্য দেন বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট মহাপরিচালক তৌফিক আহমেদ চৌধুরী, এ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স (এবিবি) বাংলাদেশের চেয়ারম্যান আলী রেজা ইফতেখার, বাংলাদেশ লিজিং এ্যান্ড ফাইন্যান্স কোম্পানির সভাপতি আসাদ খান প্রমুখ।

নবেম্বরে ব্যাংকিং মেলা ॥ চলতি বছরর নবেম্বর মাসেই সাত দিনব্যাপী ব্যাংকিং মেলা অনুষ্ঠিত হবে জানান গবর্নর ড. আতিউর রহমান। রাজধানীর মিরপুরে বাংলাদেশ ব্যাংক ট্রেনিং একাডেমিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের উদ্যোগে এ মেলার আয়োজন করা হবে। দেশে কার্যরত সকল ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো এতে অংশগ্রহণ করবে। মেলায় ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো নিজেদের চালু করা বিভিন্ন ঋণ প্রকল্প ও কর্মকা- প্রদর্শন করবে। বিবিটিএ’র উদ্যোগে প্রতিদিন একটি করে সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে। আলোচনা করা হবে ব্যবসায়িক বিভিন্ন বিষয়ে। সেখানে উদ্যোক্তা ও বিভিন্ন ব্যবসায়ীরা অংশগ্রহণ করতে পারবে।