২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

তেলের দাম ৬ বছরের মধ্যে সর্বনিম্নে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ তেলের বাজারে চলছে ধস। তারপরও থামছে না তেল উত্তোলন। বাড়ছে সরবরাহ। ওপেকের সর্বশেষ মাসিক তথ্যানুযায়ী, গত তিন বছরের মধ্যে জুলাইতে তেলের উৎপাদন সবচেয়ে বেড়েছে। ফলে দিন দিন তলানিতে ঠেকছে দাম।

আন্তর্জাতিক বাজারে গত মঙ্গলবার ইউএস ক্রুড তেলের দাম আরও ৪ শতাংশ কমে বিক্রি হয়েছে। এদিন নিউইয়র্কে ব্যারেলপ্রতি তেল বিক্রি হয়েছে ৪৩.০৮ মার্কিন ডলারে, যা গত ৬ বছরে সর্বনিম্ন। গত জুন মাসেও ব্যারেলপ্রতি তেলের দাম ৬১.৪৩ ডলারে উঠেছিল।

এক খবরে বুধবার সিএনএন ও এপি জানিয়েছে, বেশ কয়েকটি দিক থেকে তেলের বাজারে শঙ্কা বিরাজ করছে। এর মধ্যে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, ইরাকসহ সংশ্লিষ্ট দেশগুলোতে তেলের উৎপাদনে বাম্পার অবস্থা চলছে, যা বিশ্ববাজারে তেলের সরবরাহ আগের তুলনায় বাড়াতে সাহায্য করেছে। একইসঙ্গে সৌদি আরব ও ওপেকভুক্ত দেশগুলো সমানে তেল উৎপাদন করছে। কিন্তু সেই তুলনায় বিশ্বব্যাপী তেলের চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে না। ফলে নিত্য পড়ে যাচ্ছে তেলের দাম।

তবে এতে করে তেল উৎপাদনকারী দেশগুলো কিছুটা ঠকলেও গাড়িচালক, জাহাজচালক ও বিমানচালকদের ঠোঁটের কোণে হাসি জেগে উঠেছে। ৬ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন দামে তেল কিনতে পারছেন তারা।

বিশ্লেষকরা বলছেন, অন্যতম তেল আমদানিকারক দেশ চীনের অর্থনীতি এখন অনেকটা স্থিতিশীল; দেশটির মুদ্রামানও কমে গেছে। এছাড়া চীনের মতো অন্যান্য আমদানিকারক দেশেও বর্তমানে পর্যাপ্ত তেল মজুত রয়েছে। ফলে তেলের চাহিদা খুব দ্রুত বাড়বে না বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। তেলের এই অব্যাহত দরপতনের ফলে এই শিল্পে আরও শ্রমিক ছাঁটাই, তেল উত্তোলন কেন্দ্র বন্ধের মতো ঘটনা ঘটবে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। ইতোমধ্যে অস্ট্রেলিয়াসহ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কয়েক ডজন কেন্দ্রে শ্রমিক ছাঁটাইয়ের খবর পাওয়া গেছে।

এই মাত্রা পাওয়া